সোমবার প্রয়াত হয়েছেন বর্ষীয়ান অভিনেত্রী তথা সঙ্গীতশিল্পী রুমা গুহঠাকুরতা। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৪। বালিগঞ্জ প্লেসের বাড়িতে ঘুমের মধ্যেই চলে যান তিনি। মায়ের মৃত্যুর খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে কলকাতা ছুটে আসেন বড় ছেলে অমিত কুমার। 

মা-কে নিয়ে ফেসবুকে একটি আবেগঘন পোস্ট দেন অমিত কুমার। ফেসবুকে রুমা গুহঠাকুরতার সঙ্গে একটি ছবি শেয়ার করে তিনি লেখেন, বিদায় মা। তুমি আমার শক্তি ছিলে। তোমায় সবচেয়ে বেশি মিস করব। আমায় কে বাবুসোনা বলে ডাকবে এখন থেকে। কিন্তু আমি স্বপ্নে তোমায় দেখব আমি জানি। তোমার আত্মার শান্তি হোক। 

 

 

১৯৪৪ এ জোয়ার ভাঁটা হিন্দি ছবি দিয়ে তাঁর অভিনয় জগতে পথ চলা শুরু। সেই ছবির পরিচালক ছিলেন অমিয় চক্রবর্তী। ১৯৫৯ সালে পার্সোনাল অ্যাসিস্ট্যান্ট ছবি দিয়ে বাংলা চলচ্চিত্র জগতে পদার্পণ তাঁর। ১৯৬২ সত্যজিৎ রায়ের অভিযান ছবিতে অভিনয় করেছেন রুমা গুহ ঠাকুরতা। এছাড়াও তাঁর উল্লেখ্যযোগ্য ছবিগুলির মধ্যে রয়েছে, গঙ্গা, নির্জন সৈকতে, পলাতক, বালিকা বধূ, অ্যান্টনি ফিরিঙ্গি, বাঘিনী, দাদার কীর্তি, ৩৬ চৌরঙ্গি লেন, অমৃত কুণ্ডের সন্ধানে, আক্রোশ, গণশত্রু, হুইল চেয়ার, দ্য নেমসেক। 

ইংরেজি ছবি দ্য নেমসেক-এই তাঁকে শেষ বার দেখা গিয়েছিল। ঝুম্পা লাহিড়ীর উপন্যাস অবলম্বনে এই ছবিতে অভিনয় করেছিলেন ইরফান খান, তাব্বু। বেশ কিছু ছবিতে প্লে ব্যাক গেয়েছিলন রুমা গুহঠাকুরতা। 

১৯৫১ সালে কিংবদন্তী শিল্পী কিশোর কুমারের সঙ্গে বিয়ে হয় রুমা গুহঠাকুরতা। তাঁদের সন্তান অমিত কুমারও সঙ্গীত জগতের জনপ্রিয় তারকা। রুমা গুহঠাকুরতার মৃত্যুতে শোকের ছায়া বাংলা চলচ্চিত্র জগতে। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্য়ায়ও দুঃখপ্রকাশ করেন। তিনি এদিন রুমা গুহঠাকুরতার বাড়িতেও পৌঁছে যান।