ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙল কোন দল, এই নিয়ে রাজ্যজুড়ে চলছে জলঘোলা। অমিত শাহের রোড শো-কে কেন্দ্র করে এদিন শহরের পথে চলা নৈরাজ্যকে নিন্দা করছে বাংলা-সহ সারা দেশের মানুষ। 

বিদ্যাসাগরের মূর্তি ভাঙা নিয়ে টলিপাড়ার তারকারাও মুখর হয়েছেন। টুইটার থেকে ফেসবুক বিভিন্ন জায়গায় তাঁরা প্রতিবাদ জানিয়েছেন। পরিচালক সৃজিৎ মুখোপাধ্য়ায় টুইট করে লেখেন, "বিদ্যাসাগর চিহ্নে ভোট দিন।" 

অভিনেতা তথা ঘাটাল কেন্দ্রে বিধায় দেব টুইট করেন, "আমাদের বর্ণপরিচয়,আমাদের উচ্চারণ, আমাদের ভাষা,আমাদের অস্তিত্ব আক্রান্ত।আমরা বাঁচতে চাই আমাদের ভাষা নিয়ে,বাঁচতে চাই আমাদের বর্ণ পরিচয় নিয়ে।আমাদের বাংলা বিদ্বেষের বাংলা নয়।আমাদের বাংলা রামমোহন রবীন্দ্রনাথ বিদ্যাসাগরের বাংলা। হিংসা ভুলে, দ্বেষ ভুলে আসুন নতুন বাংলা গড়ার শপথ নিই।"

 

 

পরিচালক কমলেশ্বর মুখোপাধ্য়ায় ফেসবুকে লিখছেন, "প্রসঙ্গ বিদ্যাসাগর। এমনটা কি হওয়ার ছিল না একদিন ? 'খাও পিয়ো মজা করো' সংস্কৃতিকে প্রশ্রয় দিলে এবং রোজ চারপাশে ঘটে চলা সামাজিক তথা অর্থনৈতিক অন্যায় বা রিগ্রেসিভ দর্শনকে চুপচাপ মেনে নিলে এক আত্মবিস্মৃত জাতির এমন করুন পরিণতি হতে বাধ্য।"

অভিনেতা রুদ্রনীল ঘোষও ঘটনার তীব্র নিন্দা করে সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হন। তিনি লেখেন, "ভিডিও তে স্পষ্ট কে বা কারা বিদ্যাসাগরের মূর্তি আছড়ে চুরমার করল! কোন দল খারাপ বা ভাল, কে কাকে প্ররোচণা দিল এই সব ন্যাকামো, তর্ক ছেড়ে সিদ্ধান্তে আসুন এবার কি করা উচিত এই ঔদ্ধত্যবাজদের!!! প্রতিবাদ ফেসবুক থেকে বাইরে না বেরোলে কোনদিন এদের শায়েস্তা করা যাবে না! আর প্রমাণিত হবে শিক্ষিত বাঙালি মানেই আসলে ভীতু! আরও জঘন্য হবে এদের আক্রমণ! কাল ভাঙবে রবীন্দ্রনাথ পরশু আমাদের শিরদাঁড়া!!! গর্জে উঠুন রাজনীতি দল মত ভুলে! এদের বর্ণ পরিচয় আমাদেরই পড়াতে হবে!"

 

 

গায়িকা ইমন চক্রবর্তী এই মুহূর্তে শিকাগোতে ছুটি কাটাচ্ছেন। সেখান থেকেই ফেসবুকে ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে লিখেছেন, "ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগর, ক্ষমা করে দেবেন আমাদের।"

 

 

এছড়াও পরিচালক রামকমল মুখোপাধ্য়ায়, রাজ চক্রবর্তী, অভিনেতা রিদ্ধি সেন, গায়ক নীল দত্ত সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ঘটনার তীব্র নিন্দা করেন।