অনুষ্ঠানে বরাবরের কবীর সুমনের গানের সঙ্গে তাঁর ভাবনা ও কথাবার্তায় ভাসলেন দর্শকরা। সঙ্গে অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে চলল টুকটাক শব্দের খেলা। অরাজনৈতিক অনুষ্ঠান হলেও সুমনের কথায় উঠে এল নতুন সংগঠনের কথা। সেই সংগঠন যে কোনও ভাবেই রাজনৈতিক নয়, তা বোঝাতে অনিন্দ্য বললেন, এই সংগঠন কেবল গানেরই। তাই এর নাম 'সং'- গঠন। কথা গানে জমে উঠেছিল জিডি বিড়লা সভাঘর। 

তবে কবীর সুমনের গানের মতোই এই অনুষ্ঠানও একটি বার্তা দিয়ে গেল। দর্শকদের হাতে তুলে দেওয়া হল একটি করে গাছ। 'কৃতী' সংস্থার প্রধান অভিরূপ সেন-এর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, সুমনের তিনি 'বৃদ্ধ হলেন, বনস্পতির ছায়া দিলেন সারাজীবন' গানটি দর্শকদের গাছ দেওয়াতে অনুপ্রেরণা দেয়। তবে গাছ দেওয়ার পিছনে মূল ভাবনা ছিল 'পল্লীশ্রী লিমিটেড অরগ্যানিক অর্ডচার্ট' সংস্থার। ৫ জুন বিশ্ব পরিবেশ দিবস ছিল। সেই কারণেই দর্শকদের সচেতন করতে উপহার হিসেবে একটি করে গাছ তুলে দেওয়া হয়েছে। 

গাছটির নাম সিঙ্গোনিয়াম। এই গাছটি মূলত বাড়ির মধ্যেই রাখার জন্য, কারণ অতিরিক্ত রোদের সংস্পর্শে গাছের পাতা নষ্ট হয়ে যেতে পারে। 

এই অভিনব উপহার পেয়ে নিঃসন্দেহে খুশি উপস্থিত দর্শকরা। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, চন্দ্রিল ভট্টাচার্য, কৌশিক সেন, ঋদ্ধি সেন-সহ আরও অনেকে।