প্রফেসর, টোকিও, রাকেল, আলিসিয়া। এই নামগুলোর সঙ্গে সিরিজ ভিউভাররা অত্যন্ত পরিচিত। জনপ্রিয় স্প্যানিশ সিরিজ মানি হাইস্টের চরিত্রগুলির নামই উল্লেখ করা হয়েছে এখানে। নেটদুনিয়ার আনাচে কানাচে এখন এদের নামই ঘুরে ফিরে বেরায়। মানি হাইস্ট সিরিজটি বিঞ্জওয়াচিংয়ের জন্য সম্পূর্ণরূপে দায়ী। প্রফেসর, নাইরবি, বার্লিন এ সকল চরিত্রগুলি নিয়ে রীতিমত একাধিক দর্শকের কাছে অতি পছন্দের হয়ে উঠেছে। চারটি সিজন আপাতত রয়েছে নেটফ্লিক্সে। চার নম্বর সিজনটি মাসখানেক আগেই মুক্তি পেয়েছে। নাইরবির চরিত্রটির মৃত্যুর পর পালের্মো এবং গান্দিয়ার উপর রীতিমত ফুসছে। সিরিজটির সিজন ফিনালে নিয়ে সকলের মধ্যে উত্তেজনা তুঙ্গে। আলিসিয়া সিয়েরা, সিরিজের মোস্ট হেটেড ভিলেনের মধ্যে তিনি সেরা। 

আরও পড়ুনঃ'সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু-তদন্তের ভার যেতে পারে সিবিআই-র কাছে', জানালেন নীতিশ কুমার

যদিও সিয়েরার আসল পরিচয় এবং সিরিজের অন্যান্য বিষয় নিয়ে নানা ফ্যান থিওরি এসে গিয়েছে প্রকাশ্যে। বিঞ্জওয়াচিংয়ের উত্তেজনা, প্রত্যেক চরিত্রের খুঁটিনাটি বের করা সঙ্গে চিত্রনাট্যের মধ্যে লুকিয়ে থাকা নানা হিন্ট, এসব খোঁজার দায়িত্ব হল সিরিজ ফ্যানেদের। ইতিমধ্যে মানি হাইস্টের সিজন ফাইভের ঘোষণা নিয়ে বিভিন্ন ফ্যান থিওরি প্রকাশ্যে এসে গিয়েছে। স্পয়ালার সমেতই লকডাউনের মধ্যে সামনে এলে নানা থিওরি। ঠিক কবে থেকে শেষ সিজনের স্ট্রিমিং হবে সে বিষয় এখনও কোনও ঘোষণা হয়নি। ফ্যান থিওরির মতে, সিজন ফাইভে মারা যেতে পারে হেলসিঙ্কি। অনেকের মতে আবার প্রফেসরের মৃত্যু দেখতে হবে পারে দর্শকদের। সিজন ফোরে নাইরবির মৃত্যুর পর রীতিমত শোকাহত ভক্তমহল। ব্যাঙ্ক অফ স্পেনের স্পেশ্যাল সিকিওরিটি গান্দিয়া শেষে নাইরবিকে মাথায় শ্যুট করে। 

আরও পড়ুনঃপরিযায়ী শ্রমিকদের বার্তা সোনু সুদের জন্য, আবেগঘন হয়ে কান্নায় ভেঙে পড়লেন অভিনেতা

 

গান্দিয়াকে পালাতে সাহায্য করেছিল গ্যাংয়ের অন্য এক মেম্বার পালের্মোর। এখন পালের্মোর উপরে ক্ষুব্ধ মানি হাইস্ট ভক্তরা। অন্যদিকে আলিসিয়া সিয়েরাকে নিয়ে চলছে নানা মতোবিরোধ। তাতিয়ানাকে আশা করি সকলের মনে আছে। বার্লিনের সেই স্ত্রী যে হঠাৎ করেই সিরিজ থেকে উধাও হয়ে যায়। সে নাকি আসলে আলিসিয়া। তাতিয়ানা বার্লিনের মৃত্যুর জন্য হয়তো দায়ী করছে প্রফেসর অর্থাৎ সার্জিও মার্কিনোকে। তাই বার্লিনের মৃত্যুর জন্য আলিসিয়ার বেসে সে এসেছে প্রতিশোধ নিতে। প্রাক্তন ইন্সপেক্টর রাকেলের মুরিও এখন সার্জিওর প্রেমিকা এবং গ্যাংয়ের অন্যতম সদস্য। তার সঙ্গে আলিসিয়ার এক ভিন্ন কানেকশন দেখানো হয়েছে সিরিজে। বিভিন্ন মতোবিরোধ নিয়ে চলছে সিজন ফাইভের চর্চা। সিজন ফোর শেষ হয়েছে এক অদ্ভুত ট্যুইস্টে। ব্যাঙ্ক অফ স্পেন থেকে গ্যাংয়ের সফলতা অন্যদিকে নাইরবির মৃত্যু এবং শেষে গান্দিয়াকে হস্টেজে নেওয়া। আলিসিয়া ধীরে ধীরে ব্যক্তিগতভাবে তদন্ত চালিয়ে প্রফেসরের থাকার জায়গা খুঁজে বের করে। গানপয়েন্টে তাকে শেষে ধরে ফেলতেই শেষ হয় সিজনটি।