কেরিয়ারের প্রথম দিকে নানা পটেকর যৌন হেনস্থা করেছিলেন। সেই ঘটনা ২০১৮-য় সামনে আনেন অভিনেত্রী তনুশ্রী দত্ত। অভিযোগ দায়ের করা হয় নানা পটেকরের বিরুদ্ধে। কিন্তু যথেষ্ট প্রমাণ না থাকায় বি সামারি রিপোর্ট পেশ করল পুলিশ। বি সামারি রিপোর্টের অর্থ পুলিশ অভিযুক্তের বিরুদ্ধে কোনও প্রমাণ পায়নি যার উপর ভিত্তি করে এই তদন্ত এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যাবে। 

যদিও তনুশ্রী দত্ত ও তাঁর আইনজীবী পুলিশের এই রিপোর্ট মানতে রাজি নন। ওশিওয়ারা পুলিশ এই রিপোর্ট আন্ধেরির মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে জমা দিয়েছে। তনুশ্রীর আইনজীবী জানিয়েছেন তাঁরা পুলিশের এই রিপোর্টের বিরুদ্ধে আদালতে হলফনামা পেশ করবেন বলে জানিয়েছেন। আগামী ৭ সেপ্টেম্বর এই মামলার শুনানি। 

প্রসঙ্গত, ২০০৮ সালে হর্ন ওকে ছবির শ্যুটিং চলাকালীন নানা পটেকর যৌন হেনস্থা করেছিলেন, হ্যাশট্যাগ মি-টুর মাধ্যমে এই  অভিযোগ আনেন তনুশ্রী দত্ত। বি-টাউনে রীতিমতো ঝড় ওঠে। দুই ভাগে ভাগ হয়ে যান বলিউডের তারকার। তনুশ্রীর রাস্তা অনুসরণ করেই আরও অনেকেই মি-টু ঘটনা প্রকাশ্যে আনেন। তনুশ্রী জানিয়েছিলেন সেই ছবির শ্যুটিংয়ের সময়ে নানা তাঁকে আপত্তিকর ভাবে স্পর্শ করতে চেয়েছিলেন। 

নানা পটেকরের সঙ্গে ওই সেটে উপস্থিত কোরিয়োগ্রাফার গণেশ আচার্য, প্রযোজক সামি সিদ্দিকি ও রাকেশ সারাঙের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছিলেন তনুশ্রী। কিন্তু ১০ বছর আগের ঘটনার প্রমাণ জোগাড় করতে না পারায় ছাড়া পেলেন নানা পটেকর-সহ অভিযুক্তরা।