নতুন প্রজন্ম এখন আর বিনোদনের  জন্য টেলিভিশন বা বড় পর্দার অপেক্ষায় থাকে না। নেটফ্লিক্স বা আমাজন প্রাইমই বিনোদনের মূল উৎস হয়ে উঠছে। সহজেই দেখা যাচ্ছে হিংসা, আত্মহত্যা ও রগরগে যৌনতার দৃশ্য। এমনই একটি ওয়েব সিরিজ ১৩ রিজনস হোয়াই। সম্প্রতি এই ওয়েবসিরিজ থেকে একটি আত্নহত্যার দৃশ্য বাদ দিল নেটফ্লিক্স। মঙ্গলবার টুইট করে জানায় নেটফ্লিক্স। 

জে অ্যাশারের লেখা উপন্যাস ১৩ রিজনস হোয়াই। সেই গল্প নিয়েই তৈরি ওয়েব সিরিজ ১৩ রিজনস হোয়াই। ১৩টি এপিসোডের এই ওয়েব সিরিজে দেখা যায় কী ভাবে অবসাদের মধ্যে ঢুকে পড়ে স্কুল ছাত্রী হ্যানা বেকার। কখনও প্রিয়  বন্ধুর কাছে প্রতারিত হয় সে। কখনও সহপাঠীর কাছে যৌন হেনস্থার শিকার হয়। যৌনতার পরেই প্রেমিকের মুখ ফিরিয়ে নেওয়ার পরে সে দ্বারস্থ হয় স্কুলের মনোবিদের কাছে। কিন্তু সেখানেও অবহেলিত অনুভব করে শেষে বেছে নেয় আত্মহত্যার পথ। প্রথম সিজনের শেষ এপিসোডে দেখা যায় আত্মহত্যার রাস্তাই বেছে নেয় হ্যানা। শৌচালয়ে গিয়ে হাতের শিরা কেটে আত্নহত্যা করে সে। সেই দৃশ্যই এবার সিরিজ থেকে বাদ দিল নেটফ্লিক্স। এছাড়াও আত্মহত্যার দৃশ্যের একটি গ্রাফিক্স ব্যবহার করা হয়েছে সিরিজে। সেটিও বাদ দেওয়া হয়েছে। 

আরও পড়ুনঃ প্রকাশ পেল 'সেক্রেড গেমস ২'-এর ট্রেলার, কবে থেকে হবে সম্প্রচার

টুইট করে নেটফ্লিক্স বলে, আমরা সিরিজের পরিচালক ব্রায়ান ইয়র্কে ও প্রযোজকের সঙ্গে কথা বলেই হ্যানার আত্নহত্যার দৃশ্য়টি মুছে দিতে বলেছি। 

এই ওয়েব সিরিজটি নিয়ে এর আগেও বহু বিতর্ক উঠেছে। সমালোচক মহলে এই সিরিজ প্রশংসিত হলেও, পেরেন্টস টেলিভিশন কাউন্সেল (পিটিসি) দাবি করেছে এই সিরিজ কিশোর কিশোরীদের আত্মহত্যার সুখ্যাতি করেছে। পিটিসি নেটফ্লিক্স থেকে এই শো সম্পূর্ণ ভাবে তুলে দেওয়ার আবেদনও করেছিল। এমনকী, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি সমীক্ষা বলছে এই সিরিজ দেখে ১৭ বছরের আশপাশের ছেলেমেয়েদের মধ্য়ে  আত্নহত্যার প্রবণতা বেড়েছিল।