রজত জয়ন্তী বর্ষেই বড় বিতর্কে কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসব। উৎসব কমিটি থেকে আগেই সরে দাঁড়ান প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। একই সঙ্গে উপদেষ্টা কমিটি থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন অভিনেত্রী এবং পরিচালক অপর্ণা সেনও।

গতবছর এই উৎসব কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। কিন্তু এবার তাঁর জায়গায় দায়িত্ব দেওয়া হয় রাজ চক্রবর্তীকে। এর পরেই প্রসেনজিৎ উৎসব কমিটি এবং উপদেষ্টা কমিটি থেকে অব্যাহতি চেয়ে নিয়েছেন বলে খবর। রাজ চক্রবর্তীকে চেয়ারম্যান করার ফলেই প্রসেনজিৎ সরে গেলেন কি না, সেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করে টলিপাড়ার অন্দরে। প্রসেনজিৎ অবশ্য সেই জল্পনা উড়িয়ে দাবি করেন, ব্যস্ততার জন্যই সরে দাঁড়িয়েছেন তিনি। তাঁর দেশের বাইরে যাওয়ার কথা রয়েছে। যেহেতু এবার চলচ্চিত্র উৎসবের পঁচিশ বছর, তাই আরও বেশি করে উৎসবে সময় দিতে হবে বলে মনে করেন তিনি। কিন্তু এবছর তাঁর পক্ষে তা সম্ভব হবে না বলেই সরে দাঁড়াচ্ছেন বলে জানান প্রসেনজিৎ। কলকাতা চলচ্চিত্র উৎসবকে অন্তরের জিনিস বলে দাবি করে তারকা অভিনেতা জানান, ভবিষ্যতে সময় হলেই আবার চলচ্চিত্র উৎসবের সঙ্গে যুক্ত হবেন তিনি।

প্রসেনজিৎ ব্যস্ততার কথা বললেও অপর্ণা সেন কিন্তু তাঁকে উপদেষ্টা কমিটিতে রাখা নিয়ে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন। প্রবীণ অভিনেত্রী ও পরিচালকের অভিযোগ, তাঁকে না জানিয়েই কমিটিতে রাখা হয়েছিল। অপর্ণা আরও বলেন, 'সংবাদমাধ্যম থেকে জানতে পারলাম আমায় কমিটিতে রাখা হয়েছে। কাউকে না জিজ্ঞেস করে তাঁর নাম ছাপিয়ে দেওয়াটা কী ধরনের ভদ্রতা? আর উপদেষ্টা কমিটিতে থাকলে আমি হয় চেয়ারম্যান হিসেবে থাকব, আর তা হলে এমন কাউকে চেয়ারম্যান করা উচিত যিনি আমার থেকেও অভিজ্ঞ এবং যোগ্য। কিন্তু এ ক্ষেত্রে তা হয়নি।' অপর্ণা সেনও অবশ্য জানিয়েছেন, নতুন ছবি নিয়ে ব্যস্ত থাকবেন তিনি। 

যদিও যাবতীয় বিতর্ক সরিয়ে সবাইকে নিয়েই কাজ করার বার্তা দিয়েছেন পরিচালক রাজ চক্রবর্তী। তিনি বলেন, 'সরকার আমাকে দায়িত্ব দিয়েছে। প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় বা অপর্ণা সেন কেন সরে গেলেন বলতে পারব না। এবার চলচ্চিত্র উৎসবের পঁচিশ বছর, তাই সবাইকে ভীষণ প্রয়োজন। আমার উপরে বা চেয়ারের উপরে রাগ করে যেন ফিল্ম ফেস্টিভ্যালটার কেউ ক্ষতি না করেন। আমি দরকারে সবার কাছে যাব।'