বলিউডে সোনাক্ষী সিনহার অভিষেক ঘটে 'দাবাং' ছবি দিয়ে। সলমন খানের সঙ্গে প্রথম সিনেমা তাঁকে কেরিয়ারে অনেকটাই সাফল্য দিয়েছে। কিন্ত সমালোচনা পিছু ছাড়েনি সোনাক্ষীর। সমালোচনার কারণ হল ওজন। সাফল্য পেলেও তাঁর ওজন-এর জন্য কম কথা শুনতে হয়নি তাঁকে। আগামী বছরই তাঁর বলিউডে এক দশক পূর্ণ হতে চলেছে।  

সম্প্রতি এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি জানিয়েছেন, তাঁকে খোদ সলমন খানই ওজন কমানোর পরামর্শ দেন। কারণ সলমন নিজেই সোনাক্ষীকে 'দাবাং' এর জন্য মনোনীত করেছিলেন। কপিল শর্মার শো-তে তিনি শেয়ার করেছেন অভিনয়ের জগতে আসার কাহিনী। সোনাক্ষী জানান এক ফ্যাশন শো-তেই তাঁর সলমনের সঙ্গে দেখা হয়, যেখানে তিনি অডিয়েন্স ম্যানেজার হিসেবে কাজ করেন। এই শো-তেই উপস্থিত ছিলেন সলমন খান। সোনাক্ষীকে সরাসরি অভিনয়ে আসার প্রস্তাব দেন ভাইজান। সোনাক্ষীর কথায়, 'সলমন আমার দিকে ঘুরে তাকিয়ে বলেন, আমি তোমাকে আমার পরবর্তী সিনেমাতে কাস্ট করার জন্য ভাবছি, ওজন কমাও।' 

এর পরে সলমন সোনাক্ষীর থেকে ট্রিট চান। এই ট্রিটের কথা শুনে দাবাং কন্যা খুবই অস্বস্তিতে পড়েন। কারণ ওই দিন তাঁর পকেটে মাত্র ৩০০০ টাকা ছিল।  কিন্তু এক দশক পরেও সেই ট্রিট আজও বাকি রয়ে গিয়েছে। 'দাবাং'-এর 'রাজ্জো' চরিত্রটিতে বেশ নজর কেড়েছিলেন সোনাক্ষী সিনহা। 'দাবাং-২'তেও তিনি ছিলেন। এরপর পালা 'দাবাং-৩-'-এর। প্রোডিউসার হিসেবে রয়েছেন সলমন খান এবং আরবাজ খান। 

সোনাক্ষী জানান, সলমন খানের সঙ্গেই বলিউডে অভিষেক তাঁর। সলমনের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক কোনওদিন ই পাল্টাবে না, তা তিনি যত বড় অভিনেত্রীই হয়ে যান। সলমন তাঁর পরিচয় গড়ে দিয়েছেন। তিনি কোনওদিন ভাবেননি, তিনি অভিনয়ের সঙ্গে যুক্ত হবেন। তবে নায়িকা আপাতত ব্যস্ত রয়েছেন 'খানদানি শাফাখানা' ছবির প্রোমোশন নিয়ে।

প্রসঙ্গত, 'দাবাং' মুক্তি পায় ২০১০ সালে। তার পরে এর সিক্যুয়েল ২০১২ তে মুক্তি পায়। 'দাবাং-৩' এই বছর ডিসেম্বরে মুক্তি পাওয়ার কথা। তবে নায়িকা আপাতত ব্যস্ত রয়েছেন 'খানদানি শাফাখানা' ছবির প্রোমোশন নিয়ে। ছবিটি মুক্তি পাবে ২ অগাস্ট।