বলিউডে ফিটনেস ফ্রিক বললেই মাথায় আসে অভিনেত্রী শিল্পা শেট্টির নাম। স্বাস্হ্য নিয়ে বরাবরই সচেতন শিল্পা। সোশ্যাল মিডিয়াতেও তিনি মাঝে মধ্যেই ছড়িয়ে দেন ফিটনেস মন্ত্র। ওর্য়াক আউট নিয়ে অ্যাপ ও রয়েছে তাঁর। ফিটনেস নিয়ে বেশ কিছু বই ও লিখেছেন তিনি। শিল্পা শেট্টির মত সুন্দর সুস্বাস্হ্যের অধিকারিণী অনেকেই হতে চান। তবে তাঁর এই ছিপছিপে তণ্বী চেহারার জন্য, স্লিমিং পিলের দ্বারস্হ তিনি হননা। 

সম্প্রতি তাঁর হাতে এসেছিল এক অ্যাড ফিল্মের সুযোগ। এক আয়ু্র্বেদ স্লিমিং পিল সংস্থা ১০ কোটি টাকার বিজ্ঞাপনের প্রস্তাব নিয়ে এসেছিল শিল্পা শেট্টির কাছে, কিন্তু তিনি তা নাকোচ করে দেন। শিল্পা যে ব্যাতিক্রমী তা আবারও প্রমাণ হল। স্লিমিং পিল একটা নিলেই কমবে ওজন, এই মন্ত্রে মোটেই বিশ্বাসী নন শিল্পা। এই ব্যাপারে শিল্পা জানান 'আমি যেখানে নিজেই যোগার মাধ্যমে সবাইকে সুস্থ থাকার কথা বলি, সেখানে আমি কি করে বলতে পারি স্লিমিং পিল নেওয়ার কথা। শরীর সুস্হ রাখতে সুষম ডায়েট এবং সঠিক রুটিন মেনে চলার চেয়ে ভালো কিছুই হয় না। মানুষ হাসবে আমার এই বিজ্ঞাপন দেখলে।' স্লিমিং পিলের কনসেপ্টে তিনি একদমই বিশ্বাস করেন না। এই ধরণের কাজে নাম লেখানো মানে নিজের ব্র্যান্ড ভ্যালু নষ্ট করা। 

বিদ্যা বালান থেকে অর্জুন কাপুর অভিনেতা হওয়া সত্ত্বেও এদের সকলকেই বডি শেমিং-এর স্বীকার হতে হয়েছে। সোনাক্ষী সিনহাকেও এই নিয়ে কথা শুনতে হয়েছে। কিছুদিন আগে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয় অভিনেত্রী বিদ্যা বালান নিজের শারীরিক গঠন নিয়ে কাঁদতে কাঁদতে এক ভিডিও পোষ্ট করেন। সুতরাং সাধারণ মানুষ শুধুই নয় সেলেব-রাও শিকার এই বডি শেমিং-এর। ঠিকঠাক নিয়ম মেনে চললেই যে সুস্থ থাকা যায় সেই বার্তা আবারও ধরা পড়ল অভিনেত্রী শিল্পা শেট্টির কথায়। প্রসঙ্গত প্রায় ১৩ বছর ছবিতে ফিরছেন অভিনেত্রী শিল্পা শেট্টি।