ইউএস ওপেনের ফাইনালে রূদ্ধশ্বাস ম্যাচের পর  অবশেষে আলেকজান্ডার জেরেভকে হারিয়ে ইউএস ওপেন খেতাব জিতে নিলেন ডমিনিক থিয়েম। রজার ফেডেরার, রাফায়েল নাদাল, নোভাক জকোভিচবিহীন টুর্নামেন্টে এই গ্র্যান্ড স্ল্যাম যে নতুন চ্যাম্পিয়ন পাবে তা সকলেই জানতেন। কিন্তু রাফা, রজার, জোকার হীন ফাইনাল যে এতটা প্রতিদ্বন্দ্বীতা পূর্ণ হবে তা হয়তো আশা করেননি কেউ। পাঁচ গেমের ম্যারাথন ম্যাচের পর টাইব্রেকারে কাপ হাতে উঠল প্রতিযোগিতার দ্বিতীয় বাছাই অস্ট্রিয়ান টেনিস তারকা ডমিনিক থিয়েমের হাতে।

জেরেভের সামনে শুরুটা অবশ্য ভালো হয়নি থিয়েমের। বিশ্বতালিকায় তিন নম্বরে থাকা থিয়েম প্রথম দুটি সেট হারিয়ে পিছিয়ে পড়েছিলেন। সেখান থেকেই শেষপর্যন্ত ম্যাচ টাইব্রেকারে নিয়ে গিয়ে কামব্যাক করে অবশেষে খেতাব জিতে নিলেন তিনি। ২০০৪ সালের ফরাসি ওপেনের ফাইনালের পর প্রথম কোনও ফাইনালে এমন ঘটনা প্রথম ঘটল, যখন কোনও খেলোয়াড় দু সেট পিছিয়ে পড়েও অপ্রতিরোধ্যভাবে ম্যাচে ফিরে এসে খেতাব জিতে নিয়ে গেলেন। হার মানতে হল টুর্নামেন্টের পঞ্চম বাছাই জার্মানির আলেকজান্ডার জেরেভকে। খেলার ফল ২-৬, ৪-৬, ৬-৪, ৬-৩, ৭-৬ (৮/৬)।

গ্র্যান্ড স্ল‍্যামে ফাইনাল ভাগ্য কোনওদিনই ভালো নয় থিয়েমের। এর আগে তিনবার ফাইনালে উঠে তাঁকে হারতে হয়েছে। ২০১৮ ও ২০১৯ সালের ফরাসি ওপেন ও ২০২০ সালের অস্ট্রেলিয়ান ওপেনের ফাইনালে পরাজিত হন তিনি। এ দিনও শুরুটা দেখে মনে হয়েছিল এ বারও সেই পরিণতি হতে চলেছে। বেশ কিছু আনফোর্সড এররও করে ফেলেন। খোয়াতে হয় প্রথম দুই সেট।

এরপর তৃতীয় সেট থেকে শুরু হয় থিয়েমের মরিয়া কামব্যাকের গল্প। ক্লান্তির জেরে জেরেভের সেকেন্ড সার্ভের গতি কমতে থাকে। পরের দুটি সেট জিতে পঞ্চম সেটে খেলা নিয়ে যান থিয়েম। শেষে সেটেও এগিয়ে ছিলেন জেরেভই। কিন্তু ৫-৩ এগিয়ে থাকা অবস্থায় সার্ভিস খোয়ান জেরেভ। ৬-৫ এগিয়ে যাওয়া অবস্থায় নিজের সার্ভিস খোয়ান থিয়েমও। ফলে টাইব্রেকারে গড়ায় সেই সেট। সেখানেও পরপর দুটি ডবল ফল্টের খেসারত দিতে হয় জেরেভকে। ম্যাচ হাতের মুঠোয় করে নেন থিয়েম।