শনিবার থেকে শুরু হচ্ছে বিশ্বের সবথেকে জনপ্রিয় ফুটবল লিগ, ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগ। গত মরশুমের ইপিএলে চ্যাম্পিয়ন্স লিগ এবং ইউরোপা লিগের যোগ্যতা অর্জন করার জন্য মারাত্মক প্রতিযোগিতা দেখা গিয়েছিল। কিন্তু গত মরশুমের শুরু থেকেই ধারাবাহিকতার চরমে থেকে লিগ শেষ হওয়ার অনেক আগে থেকেই জুর্গেন ক্লপের লিভারপুল বুঝিয়ে দিয়েছিল যে ৩০ বছর পর ইপিএল খেতাব ফিরতে চলেছে স্ট্যামফোর্ড ব্রিজেই এবং শেষপর্যন্ত ছয় ম্যাচ বাকি থাকতেই খেতাব নিশ্চিত করে নিয়েছিল তারা। কিন্তু আসন্ন মরশুম হয়তো এতটাও সহজ হবে না। লিভারপুলকে চ্যালেঞ্জ জানাতে তৈরি রয়েছে একাধিক দল। সেই সঙ্গে আবারও চ্যাম্পিয়ন্স লিগ এবং ইউরোপা লিগে যোগ্যতাঅর্জনের জন্য হতে চলেছে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই। দেখে নিন এইবার লিভারপুল বাদে নজর থাকছে কাদের ওপর। 

চেলসি-
দলবদলের বাজারে একাধিক গুরুত্বপূর্ণ খেলোয়াড়কে সই করিয়েছে চেলসি। চেলসি কোচ এবং ক্লাব কিংবদন্তি ফ্রাঙ্ক ল্যাম্পার্ড দলকে আগাগোড়া তারুণ্যের চাদরে মুড়িয়ে দিয়েছেন। আক্রমণভাগে মেসন মাউন্ট, আব্রাহাম, পুলিসিচদের সাথে তিনি এবার নতুন করে জুড়তে চলেছেন জার্মানির টিমো ওয়ার্নার ও মরক্কোর হাকিম জিয়াচকে। মাঝমাঠের জন্য এনেছেন জার্মানির তরুণ মিডফিল্ডার কাই হাভার্টজ-কে। এছাড়া ডিফেন্সকে সুদৃঢ় করার জন্য পিএসজি থেকে অভিজ্ঞ ডিফেন্ডার থিয়াগো সিলভার সাথে তরুণ ফ্রেঞ্চ মালাঙ্গ সার এবং লেস্টার সিটির সাইড ব্যাক বেন চিলওয়াল-কে। খেতাব দখলের জন্য এবার মরিয়া ফ্রাঙ্ক ল্যাম্পার্ডের দল। 

ম্যানচেস্টার সিটি-
গত মরশুমে মাত্র একটি ট্রফি জিততে পেরেছে পেপ গুয়ার্দিওয়ালার হাই প্রোফাইল ম্যান সিটি। সারা মরশুম জুড়ে সিটির ডিফেন্স প্রতিটি প্রতিযোগিতায় তাদের বাজেভাবে ভুগিয়েছে। প্রতিপক্ষর ধারালো প্রতিআক্রমণ সামলাতে সমস্যায় পড়েছেন সিটি ডিফেন্ডাররা। তাই এই মরশুমের জন্য দুজন দ্রুতগতির সাইড ব্যাককে সই করিয়েছেন কোচ পেপ গুয়ার্দিওয়ালা। এরা হলেন নেদারল্যান্ডসের সাইড ব্যাক নাথান একে এবং স্পেনের দ্রুতগতির সাইড ব্যাক এঞ্জেলিনো। সেই সঙ্গে আক্রমণে অপশন বাড়াতে স্পেনের ফেরান তোরেস-কে সই করিয়েছেন পেপ। এখন দেখার দুই মরশুম আগের মতো ভয়ংকর ম্যান সিটিকে আবার দেখা যায় কিনা। 

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড-
গত মরশুমে তিন নম্বরে লিগ শেষ করেছিল ম্যান ইউ। ২০২০-র ফেব্রুয়ারি থেকে লিগে প্রায় অপ্রতিরোধ্য ফর্মে ছিল ওলে গানার সলশায়ারের দল। পর্তুগিজ মিডফিল্ডার ব্রুনো ফার্নান্দেজ ক্লাবে আসার পর থেকে অসাধারণ ফর্ম দেখায় তারা। এই মরশুমে তাদের মাঝমাঠকে সুদৃঢ় করতে নেদারল্যান্ডসের তরুণ মিডফিল্ডার ভ্যান দে বিক-কে সই করিয়েছে ইউনাইটেড। মাঝমাঠে পোগবা, ব্রুনো এবং ভ্যান দে বিক-এর সাথে সাথে আক্রমণে যদি র‍্যাশফোর্ড এবং মার্শিয়াল নিজের ফর্ম ধরে রাখতে পারেন তাহলে অনেক ভালো ফল করবে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড।

আর্সেনাল-
নতুন কোচ মিখায়েল আর্তাতের দায়িত্ব নেওয়ার পর ধীরে ধীরে নিজেদের গুছিয়ে নিচ্ছে আর্সেনাল। গত মরশুমে এফএ কাপ জিতেছিল তারা। আর নতুন মরশুমের শুরুতেই লিভারপুলকে পেনাল্টি শ্যুট-আউটে হারিয়ে কমিউনিটি শিল্ড ঘরে তুলেছে তারা। এই মরশুমে নিজেদের ডিফেন্সকে শক্তিশালী করতে ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার গ্যাব্রিয়েল এবং পর্তুগিজ সাইড ব্যাক সেড্রিক সোয়ারেসকে সই করিয়েছে মিখায়েল আর্তাতে। সেই সাথে চেলসি থেকে অভিজ্ঞ ব্রাজিলিয়ান উইঙ্গার উইলিয়ানকেও সই করিয়েছে তারা। এবার দেখার নতুন মরশুমে কতটা প্রভাব ফেলতে পারে তারা। 

কালো ঘোড়ারা- এই কটি শক্তিশালী দলের সাথে সাথে রয়েছে এমন কিছু দল যারা খাতায় কলমে বিশাল শক্তিশালী না হলেও পাল্টে দিতে পারে লিগের হিসাব নিকেশ। জেনে নিন তাদের সম্পর্কেও-

  • জোসে মৌরিনহোর টট‍্যেনহ‍্যাম হটস্পার গত মরশুমের শেষদিকে ভালো পারফরম্যান্স করেছিল। এই মরশুমের জন্য তারা আয়ারল্যান্ডের অভিজ্ঞ ডিফেন্ডার ম্যাট ডোহার্টি এবং ইংল্যান্ডের অভিজ্ঞ গোলকিপার জো হার্ট-কে সই করিয়েছে। তাদের দিকে নজর থাকবে। 
  • ১৬ বছর পর ফার্স্ট ডিভিশনে উঠে এসেছে লিডস ইউনাইটেড। তাদের কাছে রয়েছে মার্শেলো বিয়েসার মতো অভিজ্ঞ কোচ। এছাড়া তাড়া সই করিয়েছে ভ্যালেন্সিয়া অভিজ্ঞ স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড রদ্রিগোকে। নতুন মরশুমে চমক দেখাতে তৈরি তারা। 
  • গত দুই মরশুম ধরে ইপিএলে বড়ো বড়ো দলগুলির পথের কাঁটা হয়ে উঠছে ন্যূনো এস্পাসিতো সান্তোর উলভারহ‍্যাম্পটন ওয়ান্ডারার্স। এই মরশুমেও লিগের বড় দলগুলিকে চ্যালেঞ্জ জানাতে প্রস্তুত তারা। দলে সই করেছেন পর্তুগালের তরুণ প্রতিভা ফ্যাবিয়ো সিলভা। নজর থাকবে তার দিকেও
  • কার্লো আনসেলোত্তির কোচিংয়ে আসন্ন মরশুমের জন্য শক্তিশালী দল তৈরি করেছে এভার্টন। দলে এসেছেন ব্রাজিলের মিডফিল্ডার অ্যালান, ফ্রান্সের মিডফিল্ডার নংকুন্যংকু-র মতো খেলোয়াড়রা। এছাড়া রিয়াল মাদ্রিদ থেকে হামেস রদ্রিগেজের মতো বিশাল মাপের তারকাকে সই করিয়েছে তারা। চলতি মরশুমে বড়সড় চমক দেখাতে পারে এভার্টন।