কলকাতা ময়দানে একটা যুগের অবসান। শুক্রবার ভোরে রাত, বাইপাসের ধারের এক বেসরকারী হাসপাতাল থেকে এল খবরটা। অঞ্জন মিত্র আর নেই। অনেক দিন থেকেই অসুস্থ ছিলন মোহনবাগানের প্রাক্তন সচিব। কাখনও বাড়ি কখনও হাসপাতল, এটাই যেন জীবন হয়ে উঠেছিল তাঁর। কিন্তু লড়াই চালবিয়ে যাচ্ছিলেন প্রাক্তন বাগান সচিব। শুক্রবার ভোর রাত ৩.১০ নাগাদ সব লড়াই শেষ। ময়দানের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করলেন অঞ্জন মিত্র। বয়েস হয়েছিল ৭৩ বছর। 

 

১৯৯৫ সালে মোহনবাগান ক্লাবের প্রসাশনে সরাসরি যুক্ত হয়েছিলেন অঞ্জন মিত্র। সেবার অর্থ-সচিব পদে এসেছিলেন ক্লাবে। তারপর থেকে মোহনবাগান ও অঞ্জন মিত্র নামটা যেন কোথাও এক সঙ্গেই উচ্চারণ করা হত। সবুজ মেরুণের সুখ-দুঃখ সবতেই ছিলেন তিনি। বাগানের তিনিটি জতীয় লিগ জয় বা একটি আইলিগ জয়, সবটাই তাঁর আমলে। ২০১৮ সালে নির্বাচনে পর সচিব পদ থেকে সরতে হয় অঞ্জনকে। মন চাইলেও শরীর আর দিচ্ছিল না। তাই শেষ দিকে চেষ্টা করলেও ক্লাবের সব দিক সামলে উঠতে পারছিলেন না অঞ্জন। 

শুক্রবার বাইপাসের ধারের হাসপাতাল থেকে অঞ্জন মিত্রের মরদেহ নিয়ে যাওয়া হবে তাঁর ট্যাংরার বাসভবনে। সেখানে ১১ পর্যন্ত শ্রদ্ধা জানানো হবে। এরপর ১২টার সময় অঞ্জন মিত্রের পার্থিব শরীর পৌছবে মোহনবাগান ক্লাবে। দুপুর ২.৩০ পরন্ত সেখানই তাঁকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে পারবেন ক্লাবের সদস্যস সমর্থকরা। দুপুর ৩.৩০ মিনিটে ক্লাব থেকে কেওড়াতলা মহা শশ্মানে নিয়ে যাওয়া হবে দেহ। সেখানেই শেষকৃত্য সম্পন্ন হবে প্রাক্তন মোহনবাগান সচিবের।