করোনা আবহে প্রতিবারের মতো ক্লাবে বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন না করা হলেও, দিনভর ডিজিট্যাল প্ল্যাটফর্মে পালিত হয়েছে মোহনবাগান দিবস। তা নিয়ে কিছুটা আক্ষেপ যদিও থেকে থাকে তা অনেকটাই ঘুচিয়ে দিয়েছিল নিউয়র্কের টাইমস স্কোয়ারে মোহনবাগান দিবস উপলক্ষ্যে ন্যাশডাক বিলবোর্ডে ভেসে ওঠা মোহনবাগানের ছবি। পালতোলা নৌকা আর সবুজ-মেরুন রঙে  রঙিন বিলবোর্ডের ডিজিটাল স্ক্রিন। দিনভর এভাবেই বিলবোর্ডে শোভা পাচ্ছে শতাব্দী প্রাচীন ক্লাবের নাম। পরে টাইম স্কোয়ারের সেই ছবিই পোস্ট করেই মোহনবাগান শুভেচ্ছা জানায় ফিফা। যা বাগান সমর্থকদের সব আক্ষেপ মিটিয়ে দিল।

আরও পড়ুনঃআবেগের রং সবুজ-মেরুন, লকডাউনের মাঝে বাড়ির ছাদে ২৯ জুলাই উদযাপন মোহনবাগান ভক্তদের

মোহনবাগান মানে শুধুই একটা ক্লাব নয়। ক্লাবের থেকেও অনেক বড় কিছু। এর সঙ্গে জড়িয়ে কোটি-কোটি মানুষের আবেগ-ভালবাসা। মোহনবাগান মানে গর্ব। ইতিহাসের অন্যতম অধ্যায়। এভাবেই মোহনবাগান দিবসে টাইমস স্কোয়ারের নাসডাক বোর্ডে ফুটে ওঠা মোহনবাগানের ছবি পোস্ট করে শুভেচ্ছা জানাল ফিফা।মোহনবাগান দিবসে শুভেচ্ছা জানিয়ে বিশ্ব ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থা ফিফা টুইটে লিখেছে,'নিউইয়র্কের টাইমস স্কোয়ারের বিলবোর্ডে যখ আকাশচুম্বী প্রতিপত্তি আর ঝলমলে সুন্দর ক্লাবের নাম ফুটে ওঠে, তখন ক্লাবের থেকেও অনেক বড় কিছু হয়ে যায়। বিশ্বের অন্যতম সমর্থকদের ভালোবাসার ক্লাবকে জানাই মোহনবাগান দিবস ২০২০-র শুভেচ্ছা।'

 

 

আরও পড়ুনঃঐতিহ্যের সবুজ-মেরুন মিলে গেল ইতিহাসের টাইমস স্কোয়ারে

আরও পড়ুনঃখেলা নয় সংগ্রাম,ফিরে দেখা ১৯১১-র মোহনবাগানের সেই ঐতিহাসিক ম্যাচ

২৯ জুলাই ১৯১১ ইংল্যান্ডের ইষ্ট ইয়র্কশায়ারকে হারিয়ে আইএফএ শিল্ড জিতে ইতিহাস তৈরি করেছিল মোহনবাগান ক্লাব। বর্তমানে প্রতিবছর এইব দিনটাতে মোহনবাগান দিবস পালিত হয়। এই দিনটির ঐতিহাসিক গুরুত্ব, আবেগ, ভালবাসা সবকিছুর থেকে আলাদা মোহনবাগান সদস্য-সমর্থকদের কাছে। সেই দিনে নিউইয়র্কের ঐতিহাসিক টাইম স্কোয়ারে মোহনবাগানের নামনাম জ্বলজ্বল করে ভেসে ওঠা ও ফিফা শুভেচ্ছা জানানো বাগান সমর্থকদের গর্ব আরও বাড়িয়ে তুলল।