প্রথম ম্যাচে সহজ হয় চেলসির। চেলসির হয়ে নিজের প্রথম অফিসিয়াল ম্যাচ খেলতে নামা টিমো ওয়ার্নার কে বক্সে পর ফাউল করার পর প্রথমে জর্জিনোর পেনাল্টি এবং পরে রিসে জেমস ও কার্ট জুমার গোলে ব্রাইটন অ্যান্ড হোভে অ্যালবিয়ন-কে তাদের ঘরের মাঠেই ১-৩ ব্যাবধানে হারায় ফ্র্যাঙ্ক ল্যাম্পার্ডের ছেলেরা। আর বি লেপজিগ থেকে চেলসিতে যোগ দেওয়া দুই জার্মান ফুটবলার টিমো ওয়ার্নার এবং কাই হাভার্টজ, কাল চেলসির হয়ে প্রথমবার মাঠে নামেন। যদিও হাভার্টজ নিজের প্রথম ম্যাচে খুব বেশি প্রভাবিত করতে পারেননি। 

আরও পড়ুনঃডিভোর্সি মহিলার সঙ্গে জীবন বেঁধেছেন এই সব ক্রিকেটার, দেখে নিন তালিকায় কারা

ম্যাচের ২১ মিনিটে বল নিয়ে বিপজ্জনক জায়গায় পৌঁছে যাওয়া ওয়ার্নারকে আটকাতে বক্সের মধ্যেই ফাউল করে বসেন ব্রাইটনের ডিফেন্ডার ম্যাট রায়ান। সেই পেনাল্টি থেকে ২৩ মিনিটে দলকে এগিয়ে দেন জর্জিনহো। প্রথমার্ধ চেলসি শেষ করে ১-০ গোলে এগিয়ে থেকেই। দ্বিতীয়ার্ধের ১০ মিনিটেই মধ্যে লুকাস ট্রসরদের দৃষ্টিনন্দন গোলে সমতায় ফেরে ব্রাইটন। কিন্তু সেই গোলে গোলকিপার কেপা এরিজাবেলাগার ভূমিকা নিয়েও প্রশ্ন ওঠে। কিন্তু তার দু মিনিটের মধ্যেই চেলসি রাইট ব্যাক জেমসের ২৫ গজ দূর থেকে নেওয়া দুর্দান্ত শটে এগিয়ে যায় চেলসি। এর ঠিক দশ মিনিট পরে জেমসের কর্নার থেকেই চেলসি ডিফেন্ডার কার্ট জুমা ভলি মেরে ব্যাবধান আরও বাড়ান। শেষপর্যন্ত ১-৩ ফলেই ম্যাচ জিতে নেন ব্লুজ-রা। 

আরও পড়ুনঃঅভিনেত্রীর রূপ ও যৌবনের 'ইয়র্কার',তাতেই কি 'ক্লিন বোল্ড' হলেন পৃথ্বী শ, দেখুন প্রাচী সিংয়ের অ্যালবাম

আরও পড়ুনঃপর্ণ দুনিয়ার ভরছে না মন, কার রেসিংয়ের উত্তেজনায় ফিরতে চান রেনি গ্রাসি

জিতলেও চেলসির আক্রমণভাগের খেলোয়াড়রা খুব একটা প্রভাবিত করতে পারেননি। টিমো ওয়ার্নার তো স্বীকারই করে নিয়েছেন যে এত কড়া ডিফেন্ডিং তাকে বুন্দেশলিগায় সামলাতে হয়নি। এছাড়া ক্রিশ্চিয়ান পুলিসিচ এবং হাকিম জিয়াচের চোট থাকায় রুবেন লফটাস চিককে খেলান ল্যাম্পার্ড। তিনি একেবারেই প্রভাব ফেলতে পারেননি।