আসন্ন মরশুম এবং তার পরের মরশুম বাদ দিয়ে, অর্থাৎ দুই বছর পর থেকেই যে আইলিগের বিজয়ী দল সরাসরি আইএসএলে খেলতে পারবে, সেই আশ্বাস দিল সর্বভারতীয় ফুটবল ফেডারেশন। ২০২৪-২৫ ফুটবল মরশুম থেকে আইসিএলে অবনমনও শুরু হবে বলেও জানানো হয়েছে। অর্থাৎ ৪ মরশুম বাদে সম্পূর্ণ রূপরেখা পেতে চলেছে ভারতীয় ফুটবল। 

এবছর আইএসএলে অতিরিক্তি একটি দল নেওয়া হচ্ছে বলে ইতিমধ্যেই দরপত্র প্রকাশ করে বিজ্ঞাপন দিয়েছে সংগঠন এফএসডিএল। ১৪ ই সেপ্টেম্বরের মধ্যে ইস্টবেঙ্গলকে দরপত্র জমা দেওয়া এবং সমস্ত নিয়ম কানুন সংক্রান্ত সমস্যা মিটিয়ে ফেলতে হবে। আইএসএল ও আইলিগের মধ্যে যে দুই বছরের মধ্যেই সুস্পষ্ট সম্পর্ক তৈরী হবে সেই নিয়ে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন এআইএফএফ-এর সাধারণ সম্পাদক কুশল দাস। ২০২৪-২৫ থেকে যে কোনও অন্য লিগের মতোই অবনমন ও উত্তোরণ থাকবে আইসিএলে। এই বিষয় সব স্টেকহোল্ডার একমত বলে জানান তিনি। তার আগে ২০২২-২৩ ও ২০২৩-২৪ মরশুমে আইলিগের বিজয়ীরা সুযোগ পাবে আইসিএলে, কিন্তু আইএসেএলের কোনও দলের অবনমন ঘটবে না। অর্থাৎ ক্রমশই বাড়বে এই লিগে দলের সংখ্যা। 

ইস্টবেঙ্গল যে বিনিয়োগকারী পেয়েছে তাতে খুশি ব্যক্ত করেছেন কুশল দাস। ইস্টবেঙ্গল ও মোহনবাগান আইএসএলে খেলবে, এটা ভারতীয় ফুটবলের সামনের দিনের রোডম্যাপের ভিত্তি বলে জানান এআইএফএফ কর্তা। কুশল দাস বলেন যে মোহনবাগান এটিকে-র সঙ্গে একজোটে আইএসএলে আসার পর এটা খুবই প্রয়োজন ছিল যে ইস্টবেঙ্গলও চলে আসে। সেটা সম্ভব হওয়া দারুন খবর বলে জানান তিনি। শতাব্দীপ্রাচীন দুই ক্লাবের ঐতিহ্য সম্পর্কে ওয়াকিবহাল তিনি, তাই তিনি জানিয়েছেন যে ঐতিহ্যকে কখনো অস্বীকার যায় না। কুশলবাবু আরও  বলেন যে এতে ক্লাবগুলির উপকার হওয়ার সাথে সাথে আইএসএলও আরো জমে গেল।