মোটামুটিভাবে আগেই সবটা স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল। শুধু বাকি ছিল সরকারি ঘোষণাটা। পুজোর পঞ্চমীর দিনই হাজার ওয়াটের আলো জ্বলল পিয়ারলেসে। বৃহস্পতিবার কল্যানী স্টেডিয়ামে কলকাতা কাস্টমস-এর বিরুদ্ধে ইস্টবেঙ্গল ম্যাচ ছেড়ে দেওয়ায় এইবারের কলকাতা লিগ জিতল তারা। দীর্ঘ ৬০ বছর পর কলকাতার তিন প্রধান ক্লাবের বাইরে আরও একটি ক্লাব জয়ী ১২১ বছরের পুরোনো এই ফুটবল লিগ।  

এর আগে ১৯৫৯ সালে শেষ বার তিন প্রধান - ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগান, মহামেডানের বাইরে ইস্টার্ন রেল কলকাতা ফুটবল লিগ চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। সেই দলে ছিলেন প্রখ্যাত প্রাক্তন ফুটবলার তথা কোচ পিকে বন্দোপাধ্যায়, নিখিল নন্দীরা। বস্তুত  ১২১ বছরের লিগের ইতিহাসে এতদিন তিন প্রধানের বাইরে ওই একবারই আর কোনও দল চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। সেটিও ছিল একটি অফিস দল, এবার জয়ী হল আরও একটি অফিস দল।

গত বছর ইস্টবেঙ্গলের টানা আটারের ট্রফি জেতার দৌড় থামিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল মোহনবাগান। দ্বিতীয় স্থাীনে ছিল পিয়ারলেস। এই বছর কিন্তু লিগের শীর্ষ। স্থান ধরে রাখার পথে পিয়ারলেস ইস্টবেঙ্গল-মোহনবাগান দুই আইলিগ দলকেই হারিয়েছে।  

এর আগে ২৯ সেপ্টেম্বর জর্জ টেলিগ্রাফকে হারানোর পরই পিয়ারলেসের লিগ জয় প্রায় নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল। কিন্তু মাঝখানে কাঁটা ছিল ইস্টবেঙ্গল। একই দিনে মাঠে জল জমে থাকায় ইস্টবেঙ্গল-কাস্টমস ম্যাচ বাতিল হয়েছিল। সেই ম্যাচই এদিন কল্যানী স্টেডিয়ামে দেয় আইএফএ। তবে লাল-হলুদকে জিততে হত  গোলে।

কোচ-ফুটলাররা ছুটিতে গিয়েছেন যুক্তি দিয়ে ম্যাচ পিছিয়ে দেওয়ার আবেদন জানিয়েছিল লাল-হলুদ। আইএফএ অবশ্য তা মানেনি। যার ফলে এদিন ইস্টবেঙ্গল কল্যানীর মাঠে খেলতেই আসেনি। তারপরই আইএফএ-র পক্ষ থেকে পিয়ারলেসকে জয়ী ঘোষণা করে দেওয়া হয়।