'সুশান্তের টাকা নেই বলে সাধারণ পোশাকে ইডি-র অফিসে এসেছে রিয়া', ভিড়ের মাঝে বেসামাল নায়িকা

First Published 7, Aug 2020, 3:09 PM

দীর্ঘ দশদিন পর জনসমক্ষে রিয়া চক্রবর্তী। আন্ডারগ্রাউন্ড থেকে বেরতে বাধ্য হলেন প্রয়াত অভিনেতা সুশান্ত সিং রাজপুতের বান্ধবী। রিয়ার বিরুদ্ধে মে মাসে মামলা দায়ের করেন সুশান্তের বাবা শ্রী কৃষ্ণকুমার সিং। তারপরই তড়ঘড়ি মুম্বইয়ের আস্তানা ছেড়ে বেরিয়ে যান তিনি। একা নন, ছিলেন মা, বাবা এবং ভাই সৌভিকও। সেই বিল্ডিংয়ের সুপারভাইসারের কথায়, মাঝরাতে সপরিবারের মালপত্র বোঝাই করে বেরিয়ে গিয়েছিলেন রিয়া। 'আন্ডারগ্রাউন্ড' হয়েই তাঁকে তলব করে বসে বিহার পুলিশ। এরই মাঝে সুশান্ত মৃত্যুর তদন্ত চলে যায় সিবিআইয়ের কাছে। সেখান থেকে তাঁকে তলব করতেই অবশেষে জনসমক্ষে আসেন রিয়া। এশিয়ানেটের এক্সক্লুসিভ ভিডিওতে ধরা গিয়েছে রিয়াকে। 

<p>পরণে নীল রঙের কুর্তা এবং সাদা রঙের পাজামা। মাথায় সাদা ওরনা এবং সাদা মাস্ক পরে ঢুকছেন ইডির অফিসে। সঙ্গে ছিলেন আরও এক ব্যক্তি। যিনি রিয়াকে জড়িয়ে ধরে কোনওরকমে ইডি-র অফিসে ঢুকলেন।</p>

পরণে নীল রঙের কুর্তা এবং সাদা রঙের পাজামা। মাথায় সাদা ওরনা এবং সাদা মাস্ক পরে ঢুকছেন ইডির অফিসে। সঙ্গে ছিলেন আরও এক ব্যক্তি। যিনি রিয়াকে জড়িয়ে ধরে কোনওরকমে ইডি-র অফিসে ঢুকলেন।

<p>রিয়াকে দেখা মাত্রই ঝাঁপিয়ে পড়ে সকল সংবাদমাধ্যম। সেই ভিডিও এবং ছবি ইতিমধ্যে ভাইরাল হয়ে গিয়েছে নেটদুনিয়ায়। সেই ভিডিও এবং ছবিতেই একের পর এক নিন্দায় ভরছে।&nbsp;</p>

রিয়াকে দেখা মাত্রই ঝাঁপিয়ে পড়ে সকল সংবাদমাধ্যম। সেই ভিডিও এবং ছবি ইতিমধ্যে ভাইরাল হয়ে গিয়েছে নেটদুনিয়ায়। সেই ভিডিও এবং ছবিতেই একের পর এক নিন্দায় ভরছে। 

<p>কেউ দাবি জানাচ্ছে রিয়াকে গ্রেফতার করা হোক এই মুহূর্তে। কেউ আবার বলছে এবার রিয়ার আর পালাবার পথ নেই। তিনি দোষি কি দোষি নয়, তা প্রমাণ হওয়ার আগেই দেশবাসীর কাছে তিনি দোষি সাব্যস্থ হয়েছেন।&nbsp;</p>

কেউ দাবি জানাচ্ছে রিয়াকে গ্রেফতার করা হোক এই মুহূর্তে। কেউ আবার বলছে এবার রিয়ার আর পালাবার পথ নেই। তিনি দোষি কি দোষি নয়, তা প্রমাণ হওয়ার আগেই দেশবাসীর কাছে তিনি দোষি সাব্যস্থ হয়েছেন। 

<p>তাঁকে এই সালোয়ার-কামিজের পোশাকে দেখেও বেজায় চটেছে নেটিজেনরা। মন্তব্য, "এখন কেন এমন পোশাকে এসেছ ইডি-র অফিসে। অফিসারদের কাছে নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করার জন্য।"</p>

তাঁকে এই সালোয়ার-কামিজের পোশাকে দেখেও বেজায় চটেছে নেটিজেনরা। মন্তব্য, "এখন কেন এমন পোশাকে এসেছ ইডি-র অফিসে। অফিসারদের কাছে নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করার জন্য।"

<p>অনেকে এও লিখেছে, সুশান্ত নেই বলেই এখন সাধারণ পোশাকে দেখা যাচ্ছে রিয়াকে। সুশান্তের ব্যাঙ্ক ব্যালেন্স থাকলে আজও ডিজাইনার কিছু পরেই ঢুকতেন ইডি-র অফিসে।&nbsp;</p>

অনেকে এও লিখেছে, সুশান্ত নেই বলেই এখন সাধারণ পোশাকে দেখা যাচ্ছে রিয়াকে। সুশান্তের ব্যাঙ্ক ব্যালেন্স থাকলে আজও ডিজাইনার কিছু পরেই ঢুকতেন ইডি-র অফিসে। 

<p>এমনকি যে ব্যক্তির সঙ্গে রিয়াকে ঢুকতে দেখা যায় তাকে নিয়েও উঠছে নানা প্রশ্ন। নেটবাসীর কথায়, রিয়ার এতটাই ভয় পেয়ে আছেন যে তাঁকে প্রায় আগলে নিয়ে যেতে হচ্ছে সব জায়গায়।&nbsp;</p>

এমনকি যে ব্যক্তির সঙ্গে রিয়াকে ঢুকতে দেখা যায় তাকে নিয়েও উঠছে নানা প্রশ্ন। নেটবাসীর কথায়, রিয়ার এতটাই ভয় পেয়ে আছেন যে তাঁকে প্রায় আগলে নিয়ে যেতে হচ্ছে সব জায়গায়। 

<p>সংবাদমাধ্যমের কোনও প্রশ্নর উত্তর দেননি তিনি। ধাক্কাধাক্কি করে তাঁকে ইডি-র অফিসে ঢোকাতে হয় তাঁকে। একাধিক প্রশ্ন সে সময় ছুঁটে আসে তাঁর দিকে।&nbsp;</p>

সংবাদমাধ্যমের কোনও প্রশ্নর উত্তর দেননি তিনি। ধাক্কাধাক্কি করে তাঁকে ইডি-র অফিসে ঢোকাতে হয় তাঁকে। একাধিক প্রশ্ন সে সময় ছুঁটে আসে তাঁর দিকে। 

<p>সুশান্তের বাবার আনা অভিযোগের বিষয় কী বক্তব্য তাঁর। একাধিক অভিযোগ তাঁর বিরুদ্ধে, এই নিয়ে তিনি কিছু বলতে চান কিনা। একবার কেবল সংবাদমাধ্যমের দিকে তাকিয়ে সোজা উঠে চলে গেলেন।&nbsp;</p>

সুশান্তের বাবার আনা অভিযোগের বিষয় কী বক্তব্য তাঁর। একাধিক অভিযোগ তাঁর বিরুদ্ধে, এই নিয়ে তিনি কিছু বলতে চান কিনা। একবার কেবল সংবাদমাধ্যমের দিকে তাকিয়ে সোজা উঠে চলে গেলেন। 

<p>তাঁকে নিয়ে ইতিমধ্যেই টুইটারে, গ্রেফতার রিয়া চক্রবর্তী হ্যাশট্যাগ ট্রেন্ড করা শুরু হয়ে গিয়েছে। লক্ষাধিক টুইট এসেছে এই হ্যাশট্যাগে। এবং ক্রমশ তা বেড়ে চলেছে।&nbsp;</p>

তাঁকে নিয়ে ইতিমধ্যেই টুইটারে, গ্রেফতার রিয়া চক্রবর্তী হ্যাশট্যাগ ট্রেন্ড করা শুরু হয়ে গিয়েছে। লক্ষাধিক টুইট এসেছে এই হ্যাশট্যাগে। এবং ক্রমশ তা বেড়ে চলেছে। 

<p>এতদিন দেশবাসীর দাবি ছিল, সুশান্ত মৃত্যু তদন্তে সিবিআইকে আনা হোক। এখন দাবি, রিয়া চক্রবর্তীকে গ্রেফতার করা হোক। কতদূর গড়াবে তদন্তের জল, সেটাই এখন দেখার বিষয়।</p>

এতদিন দেশবাসীর দাবি ছিল, সুশান্ত মৃত্যু তদন্তে সিবিআইকে আনা হোক। এখন দাবি, রিয়া চক্রবর্তীকে গ্রেফতার করা হোক। কতদূর গড়াবে তদন্তের জল, সেটাই এখন দেখার বিষয়।

loader