করোনার বাজারে ৩ মাসের ইএমআই-এ ছুট, কী করলে সুবিধে পাবেন গ্রাহকরা

First Published 2, Apr 2020, 5:32 PM

করোনাভাইরাস মোকাবিলায় লকডাউনের পথে হেঁটেছে ভারত। প্রায় স্তব্ধ জনজীবন। এই পরিস্থিতিতে ব্যাঙ্ক গ্রাহকদের পাশে দাঁড়িয়েছে রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া। আগামী তিন মাসের জন্য সমস্ত রকম শর্ত সাপেক্ষ ঋণের ওপরই  মকুব করা হয়েছে সুদ। দিতে হবে না ইএমআই ও ক্রেডিট কার্ডের টাকাও। জানিয়েছে শীর্ষ ব্যাঙ্ক। এই সুদ মকুবের সুফল ভোগ করতে কী করবেন আপনি। চোখ বুলিয়ে নিন তারই কিছু টিপসের ওপর।

করেনাভাইরাস মহামারীর আকার নেওয়ায় লকডাউনে প্রায় গোটা দেশ। এই অবস্থায় গ্রাহকদের বোঝা কমাতে উদ্যোগী রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া।

করেনাভাইরাস মহামারীর আকার নেওয়ায় লকডাউনে প্রায় গোটা দেশ। এই অবস্থায় গ্রাহকদের বোঝা কমাতে উদ্যোগী রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া।

আগামী ৩ মাসের জন্য গ্রাহকদের সব রকম ঋণের ওপর সুদ গ্রহণে স্থগিতাদেশ দেওয়া হয়েছে।

আগামী ৩ মাসের জন্য গ্রাহকদের সব রকম ঋণের ওপর সুদ গ্রহণে স্থগিতাদেশ দেওয়া হয়েছে।

১ মার্চ ২০২০ থেকে ৩১ মে ২০২০ পর্যন্ত কোনও সব ধরনের ঋণ ,ইএমআই ও ক্রেডিট কার্ডের বকেয়া পরিশোধ করতে হবে না গ্রাহককে।

১ মার্চ ২০২০ থেকে ৩১ মে ২০২০ পর্যন্ত কোনও সব ধরনের ঋণ ,ইএমআই ও ক্রেডিট কার্ডের বকেয়া পরিশোধ করতে হবে না গ্রাহককে।

আপনি যদি এই প্রকল্পটি বেছে নেন তাহলে আপনার ঋণ পরিশোধের মেয়াদ আরও ৩ মাস বেড়ে যাবে। নগদ প্রবাহের সমস্যা থাকলেই এই স্কিম বেছে নিতে পারেন।

আপনি যদি এই প্রকল্পটি বেছে নেন তাহলে আপনার ঋণ পরিশোধের মেয়াদ আরও ৩ মাস বেড়ে যাবে। নগদ প্রবাহের সমস্যা থাকলেই এই স্কিম বেছে নিতে পারেন।

যাঁরা অটো ডেবিটের মাধ্যমে ইএমআই বা ঋণ পরিষোধ করেন স্থগিতাদেশের বিষয়টি আবিলম্বে সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্কে জানাতে হবে। তা না হলে ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ টাকা কেটে নেবে।

যাঁরা অটো ডেবিটের মাধ্যমে ইএমআই বা ঋণ পরিষোধ করেন স্থগিতাদেশের বিষয়টি আবিলম্বে সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্কে জানাতে হবে। তা না হলে ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষ টাকা কেটে নেবে।

এই ৩ মাস ইএমআই-এর টাকা না দিলেও তা আপনার ক্রেডিট স্কোরকে প্রভাবিত করবে না।

এই ৩ মাস ইএমআই-এর টাকা না দিলেও তা আপনার ক্রেডিট স্কোরকে প্রভাবিত করবে না।

ক্রেডিট কার্ডের বকেয়াও এই প্রকল্পের একটি অংশ। এই সময় বকেয়া প্রাদান করা না হলে পরবর্তীকালে একসঙ্গে অনেক টাকা দিতে হবে।

ক্রেডিট কার্ডের বকেয়াও এই প্রকল্পের একটি অংশ। এই সময় বকেয়া প্রাদান করা না হলে পরবর্তীকালে একসঙ্গে অনেক টাকা দিতে হবে।

ব্যাঙ্কগুলিও তাঁদের গ্রাহকদের ঋণ খেলাপি জাতীয় কোনও তথ্য জমা করবে না।

ব্যাঙ্কগুলিও তাঁদের গ্রাহকদের ঋণ খেলাপি জাতীয় কোনও তথ্য জমা করবে না।

loader