বিশ্বের সর্বোচ্চ ভোটকেন্দ্র, উৎসবের মেজাজে লাহুল-স্পিতি-তে ভোটগ্রহণ

First Published 19, May 2019, 4:07 PM IST

রবিবার লোকসভা নির্বাচন ২০১৯-এর শেষ দফার ভোটগ্রহণ চলছে। দেশের অন্য বেশ কয়েকটি অংশের মতো এদিন ভোট নেওয়া হচ্ছে হিমাচল প্রদেশেও। আর এখানেই অবস্থিত পৃথিবীর সবচেয়ে উঁচু ভোট কেন্দ্র। সেখানে ভোট পরিচালনা করার কাজটা কিন্তু মোটেই সহজ নয়। বরফ কেটে রাস্তা করে তবেই সম্ভব হয়েছে ভোট গ্রহণ।

 

বাকি ভারতবর্ষের সঙ্গে হিমাচল প্রদেশের লাহুল-স্পিতি ভ্যালির যোগাযোগটা মূলত পর্যটনের হাত ধরে। কিন্তু, রবিবারের পরিবেশটা ছিল ব্যতিক্রমী। পর্যটন নয়, এদিন উপত্যকাবাসীর মন জুড়ে ছিল লোকসভা ভোট। এখানকারই তাশিগাঙ-এ অবস্থিত পৃথিবীর সর্বোচ্চ ভোটকেন্দ্র।

বাকি ভারতবর্ষের সঙ্গে হিমাচল প্রদেশের লাহুল-স্পিতি ভ্যালির যোগাযোগটা মূলত পর্যটনের হাত ধরে। কিন্তু, রবিবারের পরিবেশটা ছিল ব্যতিক্রমী। পর্যটন নয়, এদিন উপত্যকাবাসীর মন জুড়ে ছিল লোকসভা ভোট। এখানকারই তাশিগাঙ-এ অবস্থিত পৃথিবীর সর্বোচ্চ ভোটকেন্দ্র।

স্থানীয় উপজাতির মানুষ তাঁদের ঐতিহ্যবাহী রঙিন পোশাকে সজ্জিত হয়ে উৎসবের মেজাজে ভোট দিলেন সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১৫,২৫৬ ফুট উচ্চতার এই ভোটকেন্দ্রে। অল্প সংখ্যক ভোটার হলেও তাঁদের মধ্যে মতদানকে ঘিরে উৎসাহ ছিল দেখার মতো। এমনকী মাঝে এই কেন্দ্রে লাইনও পড়ে যায়। এই  কেন্দ্র হিমাচল প্রদেশের মান্ডি লোকসভা আসনের অন্তর্গত।

স্থানীয় উপজাতির মানুষ তাঁদের ঐতিহ্যবাহী রঙিন পোশাকে সজ্জিত হয়ে উৎসবের মেজাজে ভোট দিলেন সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১৫,২৫৬ ফুট উচ্চতার এই ভোটকেন্দ্রে। অল্প সংখ্যক ভোটার হলেও তাঁদের মধ্যে মতদানকে ঘিরে উৎসাহ ছিল দেখার মতো। এমনকী মাঝে এই কেন্দ্রে লাইনও পড়ে যায়। এই কেন্দ্র হিমাচল প্রদেশের মান্ডি লোকসভা আসনের অন্তর্গত।

এখানে ভোট পরিচালনার কাজটা অবশ্য মোটেই সহজ নয়। বছরের এই সময়টায় তুষাড় পাতে ভারতের বাকি অংশের সঙ্গে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় লাহুল-স্পিতি ভ্যালি। এদিন সেখানে সুষ্ঠুভাবে ভোট পরিচালনার জন্য ধন্যবাদ দিতে হবে বর্ডার রোড অর্গানাইজেশনের কর্মীদের।

এখানে ভোট পরিচালনার কাজটা অবশ্য মোটেই সহজ নয়। বছরের এই সময়টায় তুষাড় পাতে ভারতের বাকি অংশের সঙ্গে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় লাহুল-স্পিতি ভ্যালি। এদিন সেখানে সুষ্ঠুভাবে ভোট পরিচালনার জন্য ধন্যবাদ দিতে হবে বর্ডার রোড অর্গানাইজেশনের কর্মীদের।

এদিন ভোর অবধিও মানালি থেকে রোহটাং পাস হয়ে লাহুল ভ্যালি পৌঁছবার রাস্তাটি কয়েক ফুট বরফের নিচে ছিল। ভোর ৪টে থেকে বিআরও-এর কর্মীরা বরফ কাটার কাজ শুরু করেন।

এদিন ভোর অবধিও মানালি থেকে রোহটাং পাস হয়ে লাহুল ভ্যালি পৌঁছবার রাস্তাটি কয়েক ফুট বরফের নিচে ছিল। ভোর ৪টে থেকে বিআরও-এর কর্মীরা বরফ কাটার কাজ শুরু করেন।

তাঁদের অক্লান্ত পরিশ্রমেই অবশেষে রাস্তা সাফ হয়ে য়ায়। ভোটারদের ভোট দিতে যেতে বা ভোট কর্মীদের ভোট নিতে ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার পথের সব বাধা দূর হয়ে যায়।

তাঁদের অক্লান্ত পরিশ্রমেই অবশেষে রাস্তা সাফ হয়ে য়ায়। ভোটারদের ভোট দিতে যেতে বা ভোট কর্মীদের ভোট নিতে ভোটকেন্দ্রে যাওয়ার পথের সব বাধা দূর হয়ে যায়।

তারপর বাকি দিনটা শুধু তাশিগাঙ কেন্দ্রেই নয়, গোটা লাহুল-স্পিতি ভ্যালিতেই ভোটগ্রহণ হয়েছে উঠসবের মেজাজে। এমনকী গান-বাজনা, ছবি তোলারও আয়োজন করা হয়।

তারপর বাকি দিনটা শুধু তাশিগাঙ কেন্দ্রেই নয়, গোটা লাহুল-স্পিতি ভ্যালিতেই ভোটগ্রহণ হয়েছে উঠসবের মেজাজে। এমনকী গান-বাজনা, ছবি তোলারও আয়োজন করা হয়।

loader