বিশ্বের দরবারে দেশকে গর্বিত করেছেন! চিনে নিন ৮ জন বাঙালিকে

First Published 15, Aug 2019, 4:10 PM IST

আজ ভারতের ৭৩ তম স্বাধীনতা দিবসের। স্বাধীনতার পর থেকে এমন বহু বাঙালি রয়েছেন যাঁরা বিশ্বের দরবারে দেশকে বিশেষ ছাপ রেখেছেন। চিনে নেওয়া যাক এমন কয়েকজনকে যাঁরা ভারতের আর্থ সামাজিক বিষয়ে তাৎপর্যপূর্ণ। 

জ্যোতি বসু- ১৯৭৭ সাল থেকে ২০০০ পর্যন্ত একটানা ২৩ বছর পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন জ্যোতি বসু। এছাড়াও ১৯৬৪ সাল থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত সিপিআইএম-এর পলিটব্যুরো সদস্য ছিলেন।

জ্যোতি বসু- ১৯৭৭ সাল থেকে ২০০০ পর্যন্ত একটানা ২৩ বছর পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন জ্যোতি বসু। এছাড়াও ১৯৬৪ সাল থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত সিপিআইএম-এর পলিটব্যুরো সদস্য ছিলেন।

সিদ্ধার্থ শঙ্কর রায়- ভারতের জাতীয় কংগ্রেসের সদস্য ছিলেন। ১৯৭২ সাল থেকে ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে  ভারতের রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন করেছেন।

সিদ্ধার্থ শঙ্কর রায়- ভারতের জাতীয় কংগ্রেসের সদস্য ছিলেন। ১৯৭২ সাল থেকে ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন। তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ভারতের রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন করেছেন।

সুকুমার সেন- ভারতের প্রথম নির্বাচন কমিশনার হিসেবে নির্বাচিত হন তিনি। ১৯৫০ এর ২১ মার্চ থেকে ১৯৫৮ এর ১৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত তিনি এই পদে নিযুক্ত ছিলেন।

সুকুমার সেন- ভারতের প্রথম নির্বাচন কমিশনার হিসেবে নির্বাচিত হন তিনি। ১৯৫০ এর ২১ মার্চ থেকে ১৯৫৮ এর ১৯ ডিসেম্বর পর্যন্ত তিনি এই পদে নিযুক্ত ছিলেন।

প্রণব মুখোপাধ্যায়- প্রায় পাঁচ দশকের রাজনৈতিক জীবনে বড় ছাপ রেখেছেন প্রণব। এই সময়সীমায় কংগ্রেসে বেশ কিছু দায়িত্বপূর্ণ পদে ছিলেন তিনি। পিভি নরশিমা রাও, রাজীব গান্ধী, ইন্দিরা গান্ধী, মনমোহন সিং, এই চার প্রধানমন্ত্রীর সরকারেই গুরু দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। ১৯৯৩ সাল থেকে ১৯৯৫ পর্যন্ত বাণিজ্যমন্ত্রী ছিলেন তিনি।

প্রণব মুখোপাধ্যায়- প্রায় পাঁচ দশকের রাজনৈতিক জীবনে বড় ছাপ রেখেছেন প্রণব। এই সময়সীমায় কংগ্রেসে বেশ কিছু দায়িত্বপূর্ণ পদে ছিলেন তিনি। পিভি নরশিমা রাও, রাজীব গান্ধী, ইন্দিরা গান্ধী, মনমোহন সিং, এই চার প্রধানমন্ত্রীর সরকারেই গুরু দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। ১৯৯৩ সাল থেকে ১৯৯৫ পর্যন্ত বাণিজ্যমন্ত্রী ছিলেন তিনি।

বিকাশ সিনহা- বাঙালি পদার্থবিদ বিকাশ সিনহা সাহা ইনস্টিটিউট অফ নিউক্লিয়ার ফিজিকস এর ডিরেক্টর ছিলেন।

বিকাশ সিনহা- বাঙালি পদার্থবিদ বিকাশ সিনহা সাহা ইনস্টিটিউট অফ নিউক্লিয়ার ফিজিকস এর ডিরেক্টর ছিলেন।

অভীক সরকার- এবিপি গ্রুপের কর্ণধার। ভারতীয় সাংবাদিকতায় অভীক সরকারের অবদান  অনস্বীকার্য।

অভীক সরকার- এবিপি গ্রুপের কর্ণধার। ভারতীয় সাংবাদিকতায় অভীক সরকারের অবদান অনস্বীকার্য।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়- ২০১১ সাল থেকে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর আসনে তিনি। ১৯৯৮ সালে তৃণমূল কংগ্রেস দলটি গড়েন তিনি।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়- ২০১১ সাল থেকে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রীর আসনে তিনি। ১৯৯৮ সালে তৃণমূল কংগ্রেস দলটি গড়েন তিনি।

অমর্ত্য সেন- ১৯৯৮ সালে বাংলার ঝুলিতে আরও একটি নোবেল পুরস্কার এনেছিলেন অমর্ত্য সেন। দুর্ভিক্ষ, জনকল্যাণ অর্থনীতি ও দারিদ্র কার্যকারণ নিয়ে গবেষণার জন্য নোবেল পেয়েছিলেন তিনি।

অমর্ত্য সেন- ১৯৯৮ সালে বাংলার ঝুলিতে আরও একটি নোবেল পুরস্কার এনেছিলেন অমর্ত্য সেন। দুর্ভিক্ষ, জনকল্যাণ অর্থনীতি ও দারিদ্র কার্যকারণ নিয়ে গবেষণার জন্য নোবেল পেয়েছিলেন তিনি।

loader