নির্দিষ্ট পদ্ধতিতে শ্বাস-প্রশ্বাস নিলেই জব্দ হবে করোনা, দাওয়াই দিচ্ছেন নোবেলজয়ী বিজ্ঞানী

First Published 25, Jun 2020, 9:30 AM

প্রাণায়াম ও যোগাভ্যাসে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখে দেওয়া যায় বলে আগেই দাবি করেছেন অনেকে। যাতে শ্বাস-প্রশ্বাসের নিয়ম মানার কথাও বলা হয়েছে। এবার তেমনই দাবি করলেন নোবেলজয়ী বিজ্ঞানী লুইস জে ইগনারো। আর সেই দাবি নিয়ে ইতিমধ্যে  হৈচৈ পড়ে গেছে গোটা বিশ্বে।

<p><strong>করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে দ্য কনভার্সেসন পত্রিকায় প্রকাশিত একটি খবরে চমকে ওঠার মতো দাবি করা হয়েছে। বলা হয়েছে, নির্দিষ্ট পদ্ধতিতে শ্বাস-প্রশ্বাস নিলে করোনা রুখে দেওয়া যাবে! </strong></p>

করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে দ্য কনভার্সেসন পত্রিকায় প্রকাশিত একটি খবরে চমকে ওঠার মতো দাবি করা হয়েছে। বলা হয়েছে, নির্দিষ্ট পদ্ধতিতে শ্বাস-প্রশ্বাস নিলে করোনা রুখে দেওয়া যাবে! 

<p>দ্য কনভার্সেশনে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী, কোনো মানুষ ঠিক কিভাবে শ্বাস নেয়, তার ওপর নির্ভর করতে পারে করোনা সংক্রমণ আটকানো যাবে কি না।</p>

দ্য কনভার্সেশনে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী, কোনো মানুষ ঠিক কিভাবে শ্বাস নেয়, তার ওপর নির্ভর করতে পারে করোনা সংক্রমণ আটকানো যাবে কি না।

<p><strong>প্রতিবেদনে এও দাবি করা হয়েছে, যাঁরা নাক দিয়ে শ্বাস গ্রহণ করে মুখ দিয়ে ছাড়েন তাঁদের শরীরে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতাই বেশি হয়। </strong></p>

প্রতিবেদনে এও দাবি করা হয়েছে, যাঁরা নাক দিয়ে শ্বাস গ্রহণ করে মুখ দিয়ে ছাড়েন তাঁদের শরীরে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতাই বেশি হয়। 

<p><strong>আর সেই দাবিকে একেবারে উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। কারণ দাবিটি করেছেন নোবেলজয়ী ফার্মাকোলজিস্ট লুইস জে ইগনারো। </strong></p>

আর সেই দাবিকে একেবারে উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না। কারণ দাবিটি করেছেন নোবেলজয়ী ফার্মাকোলজিস্ট লুইস জে ইগনারো। 

<p><strong>ইগনারো ১৯৯৮ সালে মেডিসিনে নোবেল পান। তাঁরই গবেষণা অনুযায়ী যাঁরা নাক ও মুখ দিয়ে শ্বাস-প্রশ্বাস নেন তাঁদের ন্যাজাল ক্যাভিটিতে নাইট্রিক অক্সাইড তৈরি হয়। এই মলিকিউল ফুসফুসে রক্তের প্রবাহ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। একই সঙ্গে রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা বাড়িয়ে তোলে।</strong></p>

ইগনারো ১৯৯৮ সালে মেডিসিনে নোবেল পান। তাঁরই গবেষণা অনুযায়ী যাঁরা নাক ও মুখ দিয়ে শ্বাস-প্রশ্বাস নেন তাঁদের ন্যাজাল ক্যাভিটিতে নাইট্রিক অক্সাইড তৈরি হয়। এই মলিকিউল ফুসফুসে রক্তের প্রবাহ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে। একই সঙ্গে রক্তে অক্সিজেনের মাত্রা বাড়িয়ে তোলে।

<p><strong>বিজ্ঞানীর দাবি, যখন কেউ নাক দিয়ে শ্বাস নেয়, তখন নাইট্রিক অক্সাইড সরাসরি ফুসফুসে পৌঁছে যায়। এর জেরে করোনাভাইরাসকে ফুসফুসে রেপ্লিকেশন আটকে দেয়। রক্তে অধিক অক্সিজেন থাকলে মানুষ সতেজ বোধ করে।</strong></p>

বিজ্ঞানীর দাবি, যখন কেউ নাক দিয়ে শ্বাস নেয়, তখন নাইট্রিক অক্সাইড সরাসরি ফুসফুসে পৌঁছে যায়। এর জেরে করোনাভাইরাসকে ফুসফুসে রেপ্লিকেশন আটকে দেয়। রক্তে অধিক অক্সিজেন থাকলে মানুষ সতেজ বোধ করে।

<p><br />
<strong>মানুষের শরীরে সব সময় নাইট্রিক অক্সাইড তৈরি হয় আর তার মাধ্যমে মানব দেহের ধমনি ও শিরাগুলোতে, বিশেষত ফুসফুসের এন্ডোথেলিয়াম গঠনে সহায়তা করে। এই এন্ডোথেলিয়াম ধমনির পেশিগুলো মসৃণ করতে সহায়তা করে, যা উচ্চ রক্তচাপ সম্পর্কিত সমস্যা প্রতিরোধে সহায়তা করে।</strong> </p>


মানুষের শরীরে সব সময় নাইট্রিক অক্সাইড তৈরি হয় আর তার মাধ্যমে মানব দেহের ধমনি ও শিরাগুলোতে, বিশেষত ফুসফুসের এন্ডোথেলিয়াম গঠনে সহায়তা করে। এই এন্ডোথেলিয়াম ধমনির পেশিগুলো মসৃণ করতে সহায়তা করে, যা উচ্চ রক্তচাপ সম্পর্কিত সমস্যা প্রতিরোধে সহায়তা করে। 

<p><strong>নাইট্রিক অক্সাইড অন্যান্য অঙ্গগুলিতে রক্ত ​​প্রবাহকে বাড়িয়ে তোলে। তা ছাড়াও নাইট্রিক অক্সাইড সাধারণ ধমনীতে রক্ত ​​জমাট বাঁধা প্রতিরোধে সহায়তা করে। </strong></p>

নাইট্রিক অক্সাইড অন্যান্য অঙ্গগুলিতে রক্ত ​​প্রবাহকে বাড়িয়ে তোলে। তা ছাড়াও নাইট্রিক অক্সাইড সাধারণ ধমনীতে রক্ত ​​জমাট বাঁধা প্রতিরোধে সহায়তা করে। 

loader