111

করোনার কোনও ভ্যাকসিনই এখনও বাজারে আসেনি। তবে স্পুটনিক ভি-তে বিশ্বের প্রথম করোনা ভ্যাকসিন হিসেবে ইতিমধ্যে দাবি করেছে রাশিয়া। এবার সবাইকে চমকে দিয়ে আরও একটি দাবি করল রাশিয়া। করোনার দ্বিতীয়  ভ্যাকসিন আনতে চলেছে পুতিনের দেশ।

Subscribe to get breaking news alerts

211

খুব বেশি আর দেরি নেই। অক্টোবরেই দ্বিতীয় ভ্যাকসিন আনছে রাশিয়া। ১৫ অক্টোবরেই সেই  ভ্যাকসিনের কথা জানানো হবে।

311

রাশিয়ার উপ প্রধানমন্ত্রী তাতিয়ানা গোলিকোভার দাবি করেছেন, ভেক্টর ভাইরোলজি ইনস্টিটিউটের তত্ত্বাবধানে তৈরি হচ্ছে করোনা প্রতিরোধক এপিভ্যাককরোনা। চলতি মাসেই সাইবেরিয়ায় ওই ভ্যাকসিনের ক্লিনিকাল ট্রায়ালের প্রাথমিক ধাপ সম্পূর্ণ হয়ে যাবে। 
 

411

বুধবার রাশিয়ার সংসদে দেশের প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনও জানান, করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ভ্যাকসিনটি শীঘ্রই নথিভূক্ত করা হবে।

511

দ্বিতীয় ভ্যাকসিন মানব শরীরে আরও বেশিদিন ইমিউনিটি বাঁচিয়ে রাখবে বলে দাবি রাশিয়ার বিজ্ঞানীদের। রাশিয়ার স্টেট রিসার্চ সেন্টার অফ ভায়েরোলজি অ্যান্ড বায়োটেকনোলজি ভেক্টর এমনই দাবি করেছে।

611

ভেক্টরের দাবি এবারের ভ্যাকসিন মানুষের শরীরে করোনা প্রতিরোধ ক্ষমতা বজায় রাখবে ৬ মাসেরও বেশি সময় ধরে। ভেক্টরের প্রধান আলেকজান্ডার রিজিকোভ অবশ্য জানিয়েছেন, হয়তো সারাজীবনের জন্য রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করতে পারবে না এই ভ্যাকসিন। তবে আগের ভ্যাকসিনের তুলনায় সময় বেশি পাবেন মানুষ। ৬ মাস ধরে এই ভ্যাকসিনের কার্যকারীতা বজায় থাকবে।

711

 প্রয়োজনে এই ভ্যাকসিন দ্বিতীয়বারও নেওয়া যেতে পারে । ভেক্টরের প্রধান আলেকজান্ডার রিজিকোভের  বক্তব্যকে উদ্ধৃত করে রাশিয়ান সংবাদ সংস্থা তাস জানিয়েছে ফের ভ্যাকসিন নেওয়া নিরাপদ ও কার্যকরী। এমনই দাবি করেছে ভেক্টর।

811

আলেকজান্ডার জানান, এই ভ্যাকসিনের যতদূর ট্রায়াল চলেছে, তাতে কোনও পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। প্রথম পর্যায়ের ট্রায়ালে বেশ সাফল্যের সঙ্গেই কাজ করছে  ভ্যাকসিনটি। এখনও পর্যন্ত নিরাপদ বলা চলে ভ্যাকসিনটিকে। 

911

প্রায় ১৫০০ প্রাণীর ওপর এর ট্রায়াল চলেছে বলে জানা যাচ্ছে। মানুষ ছাড়া ভিন্ন ভিন্ন প্রজাতির প্রাণীর ওপর ট্রায়াল চলেছে।

1011

২১শে জুলাই রাশিয়ার দ্বিতীয় ভ্যাকসিন ট্রায়ালের জন্য ছাড়পত্র পায়। রাশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রক জানায়, এই ভ্যাকসিন নিয়ে পরীক্ষা নিরীক্ষা শুরু করা যেতে পারে। ২৭শে জুলাই স্বেচ্ছাসেবকদের রেজিস্ট্রেশন শুরু হয়। ৩০শে সেপ্টেম্বরের মধ্যে বেশ কয়েক ধাপ এগিয়ে যেতে পারবে এই ভ্যাকসিন আশা করা হচ্ছে।
 

1111

পরিসংখ্যান বলছে, এই মুহূর্তে সারা বিশ্বে ১৪২টি ভ্যাকসিনের এখনও হিউম্যান ট্রায়াল হয়নি। প্রথম পর্যায়ের ট্রায়ালে উতরেছে ২৯টি। দ্বিতীয় পর্যায়ে ১৮টি এবং তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল চলছে ৯টি ভ্যাকসিনের।