ছন্দে ফিরছে পর্যটন, খুলছে দার্জিলিং-এর দরজা, রইল বিস্তারিত তথ্য

First Published 25, Jun 2020, 4:37 PM

করোনা কোপে পরে একে একে সব সেক্টরেই নামছিল ধ্বস। সাধারণ মানুষের সুরক্ষার কথা মাথায় রেখে, গোটা দেশে তড়িঘড়ি জাড়ি হয়েছিল লকডাউন। যার সব থেকে বেশি প্রভাব পড়ার আশঙ্কা পর্যটনেই। ধীরে ধীরে লকডাউন ওঠার মুখে দেশ। ছন্দে ফিরছে সকলেই। কিন্তু মানুষ বর্তমানে কতটা ভ্রমণ মুখী থাকবে তা এক কথায় বলা দায়। এরই মাঝে একে একে খুলে দেওয়া হচ্ছে পর্যটন কেন্দ্রে দরজা। এবার পালা দার্জিলিং-এর। 

<p>একে একে এবার ছন্দে ফিরছে রাজ্যের বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্র। মার্চ মাস থেকেই লকডাউনের কবলে পড়ে বন্ধ হয়েছিল ভ্রমণ। বন্ধ হয়েছিল হোটেল, গাড়ি। </p>

একে একে এবার ছন্দে ফিরছে রাজ্যের বিভিন্ন পর্যটন কেন্দ্র। মার্চ মাস থেকেই লকডাউনের কবলে পড়ে বন্ধ হয়েছিল ভ্রমণ। বন্ধ হয়েছিল হোটেল, গাড়ি। 

<p>পাড়ারে মূল জীবিকাই হল পর্যটন। আর লকডাউনের কোপে পড়ে বেজায় ক্ষতির মুখ দেখতে হয়েছে সকলকে। এবার খানিক মিলল স্বস্তি। </p>

পাড়ারে মূল জীবিকাই হল পর্যটন। আর লকডাউনের কোপে পড়ে বেজায় ক্ষতির মুখ দেখতে হয়েছে সকলকে। এবার খানিক মিলল স্বস্তি। 

<p>বৃহস্পতিবার সকালে বৈঠকের মাধ্যমে স্থির হল ১ জুলাই থেকে খুলে দেওয়া হবে দার্জিলিং-এর দরজা পর্যটকদের জন্য। ১ জুলাই থেকেই ছন্দে ফিরছে শৈল এলাকা। </p>

বৃহস্পতিবার সকালে বৈঠকের মাধ্যমে স্থির হল ১ জুলাই থেকে খুলে দেওয়া হবে দার্জিলিং-এর দরজা পর্যটকদের জন্য। ১ জুলাই থেকেই ছন্দে ফিরছে শৈল এলাকা। 

<p>গ্রীষ্মের মরসুমে দার্জিলিং-এ তিল ধারনের জায়গা থাকে না। আর পাঁচটা সময়ের থেকে এই সময় পর্যটকদের ঢল থাকে সব থেকে বেশি কিন্তু ২০২০-র ছবিটা ছিল ঠিক এর উল্টো। </p>

গ্রীষ্মের মরসুমে দার্জিলিং-এ তিল ধারনের জায়গা থাকে না। আর পাঁচটা সময়ের থেকে এই সময় পর্যটকদের ঢল থাকে সব থেকে বেশি কিন্তু ২০২০-র ছবিটা ছিল ঠিক এর উল্টো। 

<p>বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে প্রতিটা হোটেলই খুলে দেওয়া হবে। তবে টুরিস্টের জন্য সৈরি করা হচ্ছে গাইড লাইন যা মেনে চলতে হবে। </p>

বৈঠকে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে প্রতিটা হোটেলই খুলে দেওয়া হবে। তবে টুরিস্টের জন্য সৈরি করা হচ্ছে গাইড লাইন যা মেনে চলতে হবে। 

<p>এই গাইডলাইনে, বেশ কয়েকটি বিষয়ের উল্লেখ থাকবে, যার মধ্যে অন্যতম হল পর্যটকদের করতে হবে থার্মাল চেকিং।</p>

এই গাইডলাইনে, বেশ কয়েকটি বিষয়ের উল্লেখ থাকবে, যার মধ্যে অন্যতম হল পর্যটকদের করতে হবে থার্মাল চেকিং।

<p>প্রতিটা হোটেলকে প্রত্যহ স্যানিটাইজ করতে হবে। ভিড় কোথাও কড়া চলবে না। তবে খুলে দেওয়া হবে ভ্রমণের স্থানগুলি, তাই সাইট সিনে কোনও বাধা থাকছে না। </p>

প্রতিটা হোটেলকে প্রত্যহ স্যানিটাইজ করতে হবে। ভিড় কোথাও কড়া চলবে না। তবে খুলে দেওয়া হবে ভ্রমণের স্থানগুলি, তাই সাইট সিনে কোনও বাধা থাকছে না। 

<p>ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে প্রস্তুতি। বিভিন্ন মোড়ে থাকে চেকপোস্ট। কোনও সমস্যা হলেই যোগাযোগ করা যাবে নির্দিষ্ট হেলপ লাইন নম্বরে। আর সব থেকে বেশি যে বিষয়টিতে নজর দিতে হতে তা হল পর্যটকদের সুরক্ষা। </p>

ইতিমধ্যেই শুরু হয়েছে প্রস্তুতি। বিভিন্ন মোড়ে থাকে চেকপোস্ট। কোনও সমস্যা হলেই যোগাযোগ করা যাবে নির্দিষ্ট হেলপ লাইন নম্বরে। আর সব থেকে বেশি যে বিষয়টিতে নজর দিতে হতে তা হল পর্যটকদের সুরক্ষা। 

loader