শবরদের জন্য কাজের স্বীকৃতি, রেকর্ড বুকে নাম উঠল পুরুলিয়ার অরূপ মুখোপাধ্যায়ের

First Published 6, Aug 2020, 3:00 PM

পেশায় তিনি কলকাতা পুলিশের কর্মী। পিছিয়ে পড়া জনজাতি শবরদের উন্নয়নেও কিন্তু তাঁর অবদান কম নয়! কর্মস্থল থেকে বহুদুরে পুরুলিয়ায় নিজের গ্রামে তৈরি করেছেন স্কুল। লকডাউনে বাজারে খাবারের জোগান দিয়েছেন হাজার চারেক শরব পরিবারকে। এবার ব্রেভো ইন্টারন্যাশনাল বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস-এ নাম উঠল ট্রাফিক গার্ডের কনস্টেবল অরূপ মুখোপাধ্যায়ের।
 

<p>পরাধীন ভারতে শবরদের&nbsp;অপরাধপ্রবণ জাতির তকমা দিয়েছিল ব্রিটিশরা। এলাকায় চুরি কিংবা ডাকাতির ঘটনা ঘটলেই তাঁদের ধরে এনে চলত অত্যাচার, নিপীড়ন। সময় বদলেছে, দুর্নামও ঘুচেছে শবরদের। কিন্তু আর্থ সামাজিক অবস্থার কোনও পরিবর্তন হয়নি।<br />
&nbsp;</p>

পরাধীন ভারতে শবরদের অপরাধপ্রবণ জাতির তকমা দিয়েছিল ব্রিটিশরা। এলাকায় চুরি কিংবা ডাকাতির ঘটনা ঘটলেই তাঁদের ধরে এনে চলত অত্যাচার, নিপীড়ন। সময় বদলেছে, দুর্নামও ঘুচেছে শবরদের। কিন্তু আর্থ সামাজিক অবস্থার কোনও পরিবর্তন হয়নি।
 

<p>পুরুলিয়া জেলার পুঞ্চা এলাকায় পৈতৃক বাড়ি অরূপ মুখোপাধ্যায়ে। বাবা-কাকা, এমনকী দাদুও, বংশ পরম্পরায় পরিবারের সকলেই চাকরি করেছেন পুলিশে। অরূপ নিজেও ট্রাফিক গার্ডের কনস্টেবল। চাকরি সূত্রে থাকেন কলকাতায়।<br />
&nbsp;</p>

পুরুলিয়া জেলার পুঞ্চা এলাকায় পৈতৃক বাড়ি অরূপ মুখোপাধ্যায়ে। বাবা-কাকা, এমনকী দাদুও, বংশ পরম্পরায় পরিবারের সকলেই চাকরি করেছেন পুলিশে। অরূপ নিজেও ট্রাফিক গার্ডের কনস্টেবল। চাকরি সূত্রে থাকেন কলকাতায়।
 

<p>পুলিশ পরিবারে বড় হওয়ার সুবাদে শবরদের দুর্দশা দেখেছেন নিজের চোখে। কলকাতা পুলিশের কর্মী অরূপ মুখোপাধ্যায় বলেন. 'ছোটবেলায় দেখতাম, বাড়ি চুরি হলেই ওদের ধরা নিয়ে যাওয়া হত।' &nbsp;সিদ্ধান্ত নেন, শবরদের সমাজের মূলস্রোতে ফিরিয়ে আনবেন।<br />
&nbsp;</p>

পুলিশ পরিবারে বড় হওয়ার সুবাদে শবরদের দুর্দশা দেখেছেন নিজের চোখে। কলকাতা পুলিশের কর্মী অরূপ মুখোপাধ্যায় বলেন. 'ছোটবেলায় দেখতাম, বাড়ি চুরি হলেই ওদের ধরা নিয়ে যাওয়া হত।'  সিদ্ধান্ত নেন, শবরদের সমাজের মূলস্রোতে ফিরিয়ে আনবেন।
 

<p>সালটা ২০১১। নিজের টাকায় পুরুলিয়ার পুঞ্চায় বাড়ির কাছেই শবর&nbsp;ছেলে-মেয়ের জন্য একটি স্কুল খোলেন অরূপ। &nbsp;স্কুলের নাম পঞ্চা নবদিশা মডেল স্কুল। এই স্কুলে প্রথম শ্রেণির থেকে চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত পঠনপাঠন চলে। পড়াশোনাই শুধু নয়, পড়ুয়াদের থাকা-খাওয়া ও পোশাকের জন্য় পয়সা লাগে না।&nbsp;<br />
&nbsp;</p>

সালটা ২০১১। নিজের টাকায় পুরুলিয়ার পুঞ্চায় বাড়ির কাছেই শবর ছেলে-মেয়ের জন্য একটি স্কুল খোলেন অরূপ।  স্কুলের নাম পঞ্চা নবদিশা মডেল স্কুল। এই স্কুলে প্রথম শ্রেণির থেকে চতুর্থ শ্রেণি পর্যন্ত পঠনপাঠন চলে। পড়াশোনাই শুধু নয়, পড়ুয়াদের থাকা-খাওয়া ও পোশাকের জন্য় পয়সা লাগে না। 
 

<p>সরকারি স্বীকৃতি বা পুরস্কার তো দূর অস্থ, উল্টে শবরদের জন্য় কাজ করতে গিয়ে চাকরি ক্ষেত্রে সমস্যায় পড়েছেন অরূপ মুখোপাধ্যায়। তবুও নিজের লক্ষ্যে অবিচল তিনি।<br />
&nbsp;</p>

সরকারি স্বীকৃতি বা পুরস্কার তো দূর অস্থ, উল্টে শবরদের জন্য় কাজ করতে গিয়ে চাকরি ক্ষেত্রে সমস্যায় পড়েছেন অরূপ মুখোপাধ্যায়। তবুও নিজের লক্ষ্যে অবিচল তিনি।
 

loader