করোনাকালে জনসংযোগের নয়া কৌশল, মাঠে নেমে ধান কাটলেন বিজেপির জেলা সভাপতি

First Published 9, Nov 2020, 8:22 PM

করোনা হাত থেকে বাঁচতে সতর্ক হওয়া থাকা ছাড়া উপায় নেই। কিন্তু তা বলে তো আর কাজকর্ম শিকেয় তুলে ঘরে বসে থাকা যায় না! লকডাউন শিথিল হতেই ফের কাজের সন্ধানে ভিনরাজ্যে পাড়ি দিয়েছেন পরিযায়ী শ্রমিকেরা। পরিস্থিতি এমনই যে, মাঠের ধান কাটার লোকও পাওয়া যাচ্ছে না। চাষীদের পাশে দাঁড়াতে এবার লুঙ্গি, গেঙ্গি পরে কাস্তে হাতে মাঠে নেমে পড়লেন খোদ বিজেপি-এর উত্তর দিনাজপুর জেলা সভাপতি বিশ্বজিৎ লাহিড়ী।

<p>রাজ্য তথা উত্তরবঙ্গের প্রান্তিক জেলা উত্তর দিনাজপুর। পেটের দায়ে ভিনরাজ্যে পরিযায়ী শ্রমিকের কাজ করতে যান বহু মানুষ। রোজগারপাতিও মন্দ হয় না। কিন্তু &nbsp;করোনা আতঙ্কে উলটপালট হয়ে গিয়েছে সবকিছুই।<br />
&nbsp;</p>

রাজ্য তথা উত্তরবঙ্গের প্রান্তিক জেলা উত্তর দিনাজপুর। পেটের দায়ে ভিনরাজ্যে পরিযায়ী শ্রমিকের কাজ করতে যান বহু মানুষ। রোজগারপাতিও মন্দ হয় না। কিন্তু  করোনা আতঙ্কে উলটপালট হয়ে গিয়েছে সবকিছুই।
 

<p>করোনা সতর্কতায় যখন দেশজুড়ে লকডাউন জারি হল, তখন নিরুপায় হয়ে কাজকর্ম ছেড়ে ভিনরাজ্য থেকে ফিরেছিলেন পরিযায়ী শ্রমিকরা। ব্যতিক্রম ঘটেনি উত্তর দিনাজপুরেও।<br />
&nbsp;</p>

করোনা সতর্কতায় যখন দেশজুড়ে লকডাউন জারি হল, তখন নিরুপায় হয়ে কাজকর্ম ছেড়ে ভিনরাজ্য থেকে ফিরেছিলেন পরিযায়ী শ্রমিকরা। ব্যতিক্রম ঘটেনি উত্তর দিনাজপুরেও।
 

<p>করোনা আতঙ্ক কাটেনি এখনও। বরং রাজ্যে আক্রান্তের গ্রাফ ফের উর্ধ্বমুখী। এরইমধ্যে আনলক প্রক্রিয়া জারি রেখেছে সরকার। ধীরে ধীরে স্বাভাবিক ছন্দ ফিরছে জনজীবনে। &nbsp;খুলে গিয়েছে অফিস, চলছে যানবাহনও।<br />
&nbsp;</p>

করোনা আতঙ্ক কাটেনি এখনও। বরং রাজ্যে আক্রান্তের গ্রাফ ফের উর্ধ্বমুখী। এরইমধ্যে আনলক প্রক্রিয়া জারি রেখেছে সরকার। ধীরে ধীরে স্বাভাবিক ছন্দ ফিরছে জনজীবনে।  খুলে গিয়েছে অফিস, চলছে যানবাহনও।
 

<p>কর্মহীন হয়ে ঘরে বসে থাকতে নারাজ উত্তর দিনাজপুর পরিযায়ী শ্রমিকেরাও। কাজের সন্ধানে ফের ভিনরাজ্য়ে চলে গিয়েছেন প্রায় সকলেই। এদিকে মাঠে ধান পেকে গিয়েছে, কিন্তু ফসল কাটার লোক পাওয়া যাচ্ছে না।<br />
&nbsp;</p>

কর্মহীন হয়ে ঘরে বসে থাকতে নারাজ উত্তর দিনাজপুর পরিযায়ী শ্রমিকেরাও। কাজের সন্ধানে ফের ভিনরাজ্য়ে চলে গিয়েছেন প্রায় সকলেই। এদিকে মাঠে ধান পেকে গিয়েছে, কিন্তু ফসল কাটার লোক পাওয়া যাচ্ছে না।
 

<p>জেলার কৃষকদের মাঠের ধান ঘরে তুলে দেওয়ার উদ্য়োগ নিল বিজেপি। রায়গঞ্জের তাহেরপুরে&nbsp;এক মহিলার দশ বিঘা জমির ধান কেটে দিলেন খোদ দলের জেলা সভাপতি বিশ্বজিৎ লাহিড়ী। আগামিদিনে এভাবেই দলের কর্মীদের একুশের বিধানসভা ভোটের কাজে যুক্ত করতে চান তিনি।<br />
&nbsp;</p>

জেলার কৃষকদের মাঠের ধান ঘরে তুলে দেওয়ার উদ্য়োগ নিল বিজেপি। রায়গঞ্জের তাহেরপুরে এক মহিলার দশ বিঘা জমির ধান কেটে দিলেন খোদ দলের জেলা সভাপতি বিশ্বজিৎ লাহিড়ী। আগামিদিনে এভাবেই দলের কর্মীদের একুশের বিধানসভা ভোটের কাজে যুক্ত করতে চান তিনি।