কোভিড যোদ্ধাদের জন্য বিশেষ ছাড়, পুজোর বাজারে এল 'করোনা শাড়ি'

First Published 21, Sep 2020, 12:19 PM

করোনা আবহে মানুষের ত্রাহি ত্রাহি রব। দরজায় কড়া নাড়ছে দুর্গা পুজো। বাঙালির কেনাকাটায় কাটছাট হলেও কেনাকেনা চলছে। এবার পুজোয় বাজারে করোনা শাড়ি। করোনা সচেতনতায় বার্তা দিয়ে এই শাড়ি ডিজাইন করেছে শ্রীরামপুরের একটি বুটিক। এই শাড়ি কিনতে করোনা যোদ্ধাদের জন্য বিশেষ ছাড়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। পুজোর কটা দিন বাকি থাকতেই করোনা শাড়ি কিনছেন অনেকেই। 

<p>চারিদিকে কাশফুল। আকাশে পেঁজা তুলোর মেঘ। মহালয়ায় আগমণী বার্তা দিয়ে পিতৃপক্ষ অবসানের পর দেবীপক্ষের সূচনা হয়েছে। কিন্তু পুজোর শোরগোল নেই। তবুও কেনাকাটা শুরু হলেও বাজেটে পকেট কেটেছে করোনাভাইরাস। আর এই পুজোর মুখে বাজারে হাজির হল করোনা শাড়ি।</p>

চারিদিকে কাশফুল। আকাশে পেঁজা তুলোর মেঘ। মহালয়ায় আগমণী বার্তা দিয়ে পিতৃপক্ষ অবসানের পর দেবীপক্ষের সূচনা হয়েছে। কিন্তু পুজোর শোরগোল নেই। তবুও কেনাকাটা শুরু হলেও বাজেটে পকেট কেটেছে করোনাভাইরাস। আর এই পুজোর মুখে বাজারে হাজির হল করোনা শাড়ি।

<p>হুগলির শ্রীরামপুরের একটি বুটিক নিজেরাই এই করোনা শাড়ি ডিজাইন করেছে। &nbsp;গোটা শাড়িতে করোনা সচেতনতার বার্তা দেওয়া হয়েছে। আচার, অনুষ্ঠানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা কথা বলা হয়েছে সেই শাড়িতে। করোনা আবহে সেরকম কাপড় বিক্রি না হলেও করোনা শাড়ি ভাল সাড়া ফেলেছে বলে দাবি দোকানদারের।</p>

হুগলির শ্রীরামপুরের একটি বুটিক নিজেরাই এই করোনা শাড়ি ডিজাইন করেছে।  গোটা শাড়িতে করোনা সচেতনতার বার্তা দেওয়া হয়েছে। আচার, অনুষ্ঠানে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা কথা বলা হয়েছে সেই শাড়িতে। করোনা আবহে সেরকম কাপড় বিক্রি না হলেও করোনা শাড়ি ভাল সাড়া ফেলেছে বলে দাবি দোকানদারের।

<p>'দো গজ কি দূরি, রহনা হ্যায় জরুরি', 'সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন', করোনা সতর্কতায় এই বার্তা ফুটিয়ে তোলা হয়েছে এই বুটিকে। আকর্ষণীয় শাড়ির এই ডিজাইন দেখতে ভিড় জমিয়েছেন ক্রেতারাও।&nbsp;<br />
&nbsp;</p>

'দো গজ কি দূরি, রহনা হ্যায় জরুরি', 'সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন', করোনা সতর্কতায় এই বার্তা ফুটিয়ে তোলা হয়েছে এই বুটিকে। আকর্ষণীয় শাড়ির এই ডিজাইন দেখতে ভিড় জমিয়েছেন ক্রেতারাও। 
 

<p><br />
দোকানের মালিক জানান, গত ছয় মাসে কাপড় বিক্রির বাজার একেবারে খারাপ। তাই দুর্গাপুজোর আগে করোনা শাড়ি ডিজাইন করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তাতেও ফলও মিলেছে। জানালেন বুটিকের দোকানের মালিক।<br />
&nbsp;</p>


দোকানের মালিক জানান, গত ছয় মাসে কাপড় বিক্রির বাজার একেবারে খারাপ। তাই দুর্গাপুজোর আগে করোনা শাড়ি ডিজাইন করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তাতেও ফলও মিলেছে। জানালেন বুটিকের দোকানের মালিক।
 

<p><br />
শাড়ির বিক্রির সঙ্গে সঙ্গে বিশেষ ছাড়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। করোনা যোদ্ধাদের জন্য পাঁচ শতাংশ ছাড় দিয়েছেন দোকানের মালিক। তাঁর দাবি, এই ধরনের করোনা শাড়ির ডিজাইন তাঁরা কোথাও দিতে পারবে না।<br />
&nbsp;</p>


শাড়ির বিক্রির সঙ্গে সঙ্গে বিশেষ ছাড়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে। করোনা যোদ্ধাদের জন্য পাঁচ শতাংশ ছাড় দিয়েছেন দোকানের মালিক। তাঁর দাবি, এই ধরনের করোনা শাড়ির ডিজাইন তাঁরা কোথাও দিতে পারবে না।
 

loader