দীপাবলীতে 'শুভেচ্ছা সন্দেশ', উৎসবের মরশুমে মিষ্টির দোকানে ভিড় বাড়ছে ক্রেতাদের

First Published 15, Nov 2020, 9:24 PM

করোনা আতঙ্কে এবার কালীপুজোয় বাজি পোড়ানোয় নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে আদালত। উৎসব প্রিয় বাঙালিকে দমিয়ে রাখা কি এতই সহজ! দীপাবলীতে বাজারে চলে এল প্রদীপ ও শুভেচ্ছা সন্দেশ। অভিনব এই মিষ্টির স্বাদ নিতে দোকানে ভিড় করছেন ক্রেতারা।
 

<p>কথায় বলে, বাঙালির বারো মাসে তেরো পার্বণ। কিন্তু আম বাঙালির আনন্দে বাদ সেধেছে করোনা আতঙ্কে। পুজোর সময়ে মণ্ডপে ঢুকতে পারেননি বহিরাগত দর্শনার্থীরা। কালীপুজোতে আবার বাজি পোড়ানোয় জারি হয়েছে নিষেধাজ্ঞা।<br />
&nbsp;</p>

কথায় বলে, বাঙালির বারো মাসে তেরো পার্বণ। কিন্তু আম বাঙালির আনন্দে বাদ সেধেছে করোনা আতঙ্কে। পুজোর সময়ে মণ্ডপে ঢুকতে পারেননি বহিরাগত দর্শনার্থীরা। কালীপুজোতে আবার বাজি পোড়ানোয় জারি হয়েছে নিষেধাজ্ঞা।
 

<p>অগত্যা এবার না হয় মিষ্টিমুখে হোক দীপাবলীর শুভেচ্ছা বিনিময়। খোয়া ক্ষিরের তৈরি প্রদীপ ও শুভেচ্ছা সন্দেশ পাওয়া যাচ্ছে উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জে একটি প্রসিদ্ধ মিষ্টির দোকানে। ক্রেতাদের ভিড়ও হচ্ছে ভালোই।<br />
&nbsp;</p>

অগত্যা এবার না হয় মিষ্টিমুখে হোক দীপাবলীর শুভেচ্ছা বিনিময়। খোয়া ক্ষিরের তৈরি প্রদীপ ও শুভেচ্ছা সন্দেশ পাওয়া যাচ্ছে উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জে একটি প্রসিদ্ধ মিষ্টির দোকানে। ক্রেতাদের ভিড়ও হচ্ছে ভালোই।
 

<p>দশমীই বলুন কিংবা ভাইফোঁটা, প্রতিবছর উৎসবের মরশুমে মিষ্টির চাহিদা বাড়ে। করোনা পরিস্থিতি এবার মহালয়া থেকেই নানাধরণের মিষ্টি তৈরি করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন রায়গঞ্জের মিষ্টান্ন ব্যবসায়ী দেবব্রত দাস।<br />
&nbsp;</p>

দশমীই বলুন কিংবা ভাইফোঁটা, প্রতিবছর উৎসবের মরশুমে মিষ্টির চাহিদা বাড়ে। করোনা পরিস্থিতি এবার মহালয়া থেকেই নানাধরণের মিষ্টি তৈরি করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন রায়গঞ্জের মিষ্টান্ন ব্যবসায়ী দেবব্রত দাস।
 

<p>&nbsp;শুধু কি প্রদীপ আর দীপাবলীর শুভেচ্ছা সন্দেশ! রায়গঞ্জে শহরের ওই প্রসিদ্ধ মিষ্টির&nbsp;দোকানে যদি যান, তাহলে রসমালাই, ম্যাঙ্গো দই, আনারস দই-এর মতো আরও হরেকরকমের মিষ্টিও পাবেন।<br />
&nbsp;</p>

 শুধু কি প্রদীপ আর দীপাবলীর শুভেচ্ছা সন্দেশ! রায়গঞ্জে শহরের ওই প্রসিদ্ধ মিষ্টির দোকানে যদি যান, তাহলে রসমালাই, ম্যাঙ্গো দই, আনারস দই-এর মতো আরও হরেকরকমের মিষ্টিও পাবেন।
 

<p>এর আগে ভোটের সময়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের প্রতীক চিহ্নের আদলে মিষ্টির স্বাদও চেটেপুটে উপভোগ করেছিলেন স্থানীয় বাসিন্দারা।<br />
&nbsp;</p>

এর আগে ভোটের সময়ে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের প্রতীক চিহ্নের আদলে মিষ্টির স্বাদও চেটেপুটে উপভোগ করেছিলেন স্থানীয় বাসিন্দারা।