সঠিক রক্ত ​​সঞ্চালন শরীরের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। রক্ত, অক্সিজেন এবং পুষ্টি শরীরের বিভিন্ন অংশে প্রেরণে সাহায্য করে রক্ত ​​সঞ্চালন ব্যবস্থা। যখন এই রক্ত ​​সঞ্চালনে সমস্যা হয়, তখন দেহের কোষগুলি প্রয়জনীয় অক্সিজেন এবং পুষ্টি পেতে সক্ষম হয় না। ফলে শরীরের প্রয়োজনীয় চাহিদায় ঘাটতি পড়ে। দুর্বল রক্ত ​​সঞ্চালনের কয়েকটি সাধারণ কারণগুলির মধ্যে রয়েছে অ্যাথেরোস্ক্লেরোসিস (রক্তনালীতে ফলক গঠন), ডায়াবেটিস, রক্ত ​​জমাট বাঁধা, ওজন বেশি হওয়া, উচ্চ রক্তচাপ, ব্যস্ত জীবনযাত্রা এবং ধূমপান। 

ক্ষুধা হ্রাস- রক্ত সঞ্চালনের ব্যাঘাতের সাধারণ লক্ষণগুলির মধ্যে ক্ষুধা হ্রাসও অন্তর্ভুক্ত। হজমের ক্রিয়া বজায় রাখার জন্য দেহের সঠিক মাত্রায় রক্ত ​​সরবরাহ প্রয়োজন। দুর্বল রক্ত ​​সঞ্চালন ক্ষুধা হ্রাস এবং হজমের সমস্যা দেখা দিতে পারে।

দুর্বল স্মৃতিশক্তি-  দুর্বল স্মৃতিশক্তি এবং মনোনিবেশ করতে অক্ষমতাও দুর্বল রক্ত ​​সঞ্চালনের লক্ষণ হতে পারে। এটি

অসাড়তা-  অনেক সময় দুর্বল রক্ত ​​সঞ্চালনের ফলে হাত, পা, পায়ের আঙ্গুল, কবজিতে অসাড়তা দেখা দেয়। এই অঞ্চলগুলিতে সঠিক মাত্রায় রক্ত সঞ্চালন বাধা পাওয়ার ফলে এগুলি ঘটে থাকে।

ঠান্ডা হাত পা-  হঠাৎ হঠাৎ হাত পা ফুলে যাওয়া দুর্বল রক্ত ​​সঞ্চালনের লক্ষণ হতে পারে। এটি তখন ঘটে এই অংশগুলি পর্যাপ্ত রক্ত ​​পান না।

কোষ্ঠকাঠিন্য-  শরীরের কোষগুলিতে সঠিক মাত্রায় রক্ত ​​সরবরাহ না হওয়ার কারণে ডায়রিয়া, ঘন ঘন পেটে ব্যথা, কোষ্ঠকাঠিন্য বা হজমজনিত সমস্যা তৈরি হয়।

ক্লান্তবোধ-  অনেক সময় বিশ্রাম নেওয়ার পরেও শরীর ক্লান্ত হওয়া বা ক্লান্ত বোধ অনুভূতি এবং পেশীগুলিতে অক্সিজেন এবং পুষ্টির অপর্যাপ্ত সরবরাহের কারণে এগুলি হতে পারে।

দুর্বল প্রতিরোধ ক্ষমতা-  যদি আপনি প্রায়শই অসুস্থ থাকেন তবে এটি রক্তের সঞ্চালন দুর্বল হওয়ার লক্ষণ হতে পারে। কারণ রক্তের সঞ্চালন সঠিক ভাবে না হলে শরীরের  প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হয়ে পড়ে। ফলে বারে বারে রোগে আক্রান্ত হওয়ার মত সমস্যা দেখা দেয়।

রক্ত সঞ্চালন সঠিক রাখতে মেনে চলুন এগুলি- 

১) বিশেষজ্ঞদের মতে, রক্ত ​​সঞ্চালন যদি সঠিকভাবে কাজ না করে তবে এটি স্বাস্থ্যের উপর খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে। রক্ত সঞ্চালন বাড়াতে ও উন্নত করার জন্য অনেকগুলি উপায় নেওয়া যেতে পারে। হৃদয় রক্ত সঞ্চালনকে দ্রুত করে এবং শরীরে রক্ত ​​সঞ্চালন বাড়াতে সহায়তা করে এমন অনুশীলন করা প্রয়োজন। তাই নিয়মিত দৌড় বা জগিং, নাচ, সাইকেল চালানো ইত্যাদি করা উচিত।

২) পর্যাপ্ত পরিমাণ জল পান করার ফলে, দেহের অঙ্গগুলি ভাল কাজ করে এবং রক্ত ​​সঞ্চালন আরও ভাল।

৩) বডি ম্যাসাজ রক্ত ​​সঞ্চালন উন্নত করতে সহায়তা করে। শরীরের ম্যাসেজের জন্য, নারকেল তেল, অলিভ অয়েল এবং বাদাম তেল ব্যবহার করতে পারেন। তবে ম্যাসাজ করার আগে চিকিৎসকরে পরামর্শ নিন।

৪) ডায়েট এর জন্য খুব গুরুত্বপূর্ণ ফল, সবুজ শাকসব্জী, শস্য, প্রোটিন এবং স্বাস্থ্যকর ফ্যাট জাতীয় খাদ্য। 

৫) অ্যান্টিঅক্সিড্যান্ট সমৃদ্ধ গ্রিন টি অনেক উপকার দেয় এবং  শরীরের রক্ত ​​চলাচল উন্নত করে।

৬) মানসিক চাপ স্বাস্থ্যের ক্ষতি করে। এই কারণে শরীরের রক্ত ​​সঞ্চালন সঠিকভাবে হয় না। মানসিক চাপমুক্ত হওয়ার জন্য যথাসাধ্য চেষ্টা করুন।

৭) খাবার পাতে কম পরিমাণে নুন খান। অতিরিক্ত লবণ রক্তচাপ এবং রক্ত ​​সঞ্চালনের উপর এর প্রভাব ফেলে। বেশি পরিমাণে নুন খেলে ধমনী শক্ত হয়ে যায় এবং শরীরে রক্ত ​​প্রবাহ বন্ধ হয়ে যায়। 

এই সমস্ত কিছু প্রয়োগ করার আগে প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।