করোনা মহামারী রুখতে পঞ্চম দফার লকডাউন শুরু হয়েছে। একটানা  লকডাউনে ঘরবন্দি সবাই। এই সময়ে গরমের দাপটও ক্রমশ বাড়ছে। ঘরে থাকতে থাকতে একঘেয়েমি চলে এসেছে অনেকেরই। তার মধ্যে যারা ফিটনেস ফ্রিক তাদের অবস্থা আরও নাজেহাল। বাইরে বেরিয়ে বা জিমে গিয়ে এই অবস্থায় জিম করা কারোর পক্ষেই সম্ভব নয়। তাই বাড়িতে বসেই শরীরচর্চা যেমন মাস্ট। তেমনই এর পাশাপাশি খাবারেও রাশ টানতে হবে।

আরও পড়ুন-মধ্যবিত্তের হেঁশেলে কোপ, দুশ্চিন্তা বাড়িয়ে ফের বাড়ল রান্নার গ্যাসের দাম...

বাড়িতে থেকে রোধ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে নিতে হবে এই সময়ে। তাই বলে শুয়ে বসে নয়,ঠিকমতো ডায়েট মেনে খাওয়াদাওয়া ও শরীরচর্চাই এর একমাত্র ওষুধ। সারাদিন এদিক-ওদিক করে সময় নষ্ট না করে নির্দিষ্ট সময় মেনে শরীরচর্চা করুন। ওজন কমানোর জন্য খাওয়া-দাওয়ার অভ্যেস সবার আগে পরিবর্তন করতে হবে।  প্রাথমিক কিছু নিয়ম মেনে চললেই ওজন থাকবে বশে।  শরীর ঠান্ডা ও সুস্থ রাখতে জলের যোগান অত্যন্ত জরুরি। তাই শরীর সুস্থ রাখতে এবং ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে চুমুক দিতে হবে এই পানীয়তে। পশ্চিমবঙ্গ তো বটেই গোটা দেশেই ছাতুর শরবত ভীষণ জনপ্রিয়।

আরও পড়ুন-এবার সম্পূর্ণ বিনামূল্যেই পাবেন প্যান কার্ড, বড় ঘোষণা কেন্দ্রীয় সরকারের...

ছাতু এমনই একটি খাবার, যা প্রোটিনে ভরপুর, এবং যেটা খেলে এনার্জিও যেমন থাকে, এর পাশাপাশই পেটও অনেকক্ষণ ভর্তি থাকে। ছাতুতে প্রচুর পরিমাণে আয়রণ, সোডিয়াম, ফাইবার, পটাশিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, প্রোটিন রয়েছে। এবং এটি শরীরের জন্যও ভীষণ উপকারী। তাই খালি পেটে ছাতুর সরবত খেলেই শরীর থাকবে একদম ফিট। প্রতিদিন সকালে লেবু, বিটনুন দিয়ে এই ছাতুর সরবত খেলে পেটও যেমন ভরবে তেমন এর পাশাপাশি পেটও পরিস্কার করবে এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা থেকেও মুক্তি পাওয়া যাবে। ছিপছিপে চেহারা পেতে ছাতুর শরবতের জুড়ি মেলা ভার। যারা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত তারাও নিশ্চিন্তে ছাতুর সরবত খেতে পারেন। তাহলে আর চিন্তা কিসের, যারা দীর্ঘদিন ধরে স্থূলতা নিয়ে চিন্তায় রয়েছেন তারা অবশ্যই এটি ট্রাই করতে পারেন।