লকডাউনের মধ্যে অনেকেই হয়তো অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েছেন। আবার  অনেকেই আছেন লকডাউনের মধ্যে সন্তানের পরিকল্পনা করছেন। অনেকেই ভাবছেন এটাই  সবথেকে শ্রেষ্ঠ সময়। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা তেমনটা মনে করেছেন না। বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, এই সময়টাতে পরিকল্পনা না করাই শ্রেয়। এর একটাই কারণ সংক্রমণ। যে হারে করোনা সংক্রমনের সংখ্যা বাড়ছে তাতে এই সময়টাতে সন্তান ধারণ না করাই শ্রেয়। 

আরও পড়ুন-মানসিক অবসাদ থেকে হৃদরোগের সমস্যা, অতিরিক্ত ঘুমেই নিজের ক্ষতি করছেন...

করোনা রুখতে দেশে ইতিমধ্যেই দেশে পঞ্চম  দফার লকডাউন চলছে।  আর এই লকডাউনে সকলেই গৃহবন্দি। এর আগে দম্পতিরা  আগে কখনও এতটা সময় একসঙ্গে কাটিয়েছেন কিনা তা হয়তো অনেকেরই মনে পড়বে না।  এই সময়টাতে করোনা মোকাবিলায় সকলকেই সচেতন হতে হবে।  তবে অতিরিক্ত চিন্তা না করে লোকের ভুয়ো কথায় কান না দিয়ে নিজের বাড়িতে সাবধানতা অবলম্বন  করলেই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে। অযথা ভয় না পেয়ে পরিস্থিতির মোকাবিলা করতে হবে। দরকার ছাড়া এই সময়টাই বাইরে না বেরোনোও ভাল।

আরও পড়ুন-রূপচর্চা ও পানীয়তে নয়, এই কাজেও ব্যবহার করতে পারেন লেবুর রস...

প্রতিদিনই রেকর্ড হার বেড়ে চলেছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। করোনা ভয়ে সকলেই কাঁটা। চিকিৎসকেরা  জানিয়েছেন, এই সময় গর্ভবতী এবং সদ্যোজাত সন্তানের সংক্রমনের ভয় সবচাইতে বেশি থাকে। সাধারণ মানুষের তুলনায় অনেক বেশি সচেতন হতে হবে। তার উপর করোনা নিয়ে একের পর এক নয়া নয়া তথ্য প্রকাশ্যে আসছে। তবে মায়ের কোভিড পজিটিভ হলে যে সন্তানেরও পজিটিভ হবে তা এখনও প্রমাণ মেলেনি। কিন্তু তারপরেও ঝুঁকি  থেকেই যাচ্ছে। কারণ হাসপাতাল গুলিতে হু হু করে করোনার সংক্রমণ ছড়াচ্ছে। যার কারণেই সেটা নিয়ে চিন্তা বাড়ছে। কারণ সদ্যোজাতোর রোগ-প্রতিরোগ ক্ষমতা এই সময় দুর্বল থাকে। তাই যে কোনও সংক্রমনই সহজে থাবা বসাতে পারে।