ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট তাদের অন্যতম টিকা - নিউমোকোকাল কনজুগেট ভ্যাকসিনের উদ্বোধন করতে চলেছে ২৮ ডিসেম্বর ২০২০। এদিন বিকেল ৪টা বেজে ২০ মিনেটে এই টিকার লঞ্চ ইভেন্টের আয়োজন করা হয়েছে। এই অনুষ্ঠানটি সরাসরি ভাবে অনুষ্ঠিত হবে এবং সেখানে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট এর সিইও আদার পুনাওয়ালা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রনালয়ের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ডঃ হর্ষ বর্ধনের উপস্থিতিতে গণমাধ্যমে বক্তব্য রাখবেন। 

কেন নেবেন এই ভ্যাকসিন-

সেরাম ইনস্টিটিউট এর এই নয়া আবিষ্কার নিউমোকোকল কনজুগেট ভ্যাকসিন (PCV13)নিউমোকোকাল রোগ প্রতিরোধ করতে সক্ষম। এই নিউমোকোকাল ব্যাকটিরিয়া নিউমোনিয়ার অন্যতম কারণ এবং নিউমোনিয়া সহ বিভিন্ন ধরণের রোগ সৃষ্টিকারী ফুসফুসের সংক্রমণ ঘটায়। নিউমোকোকল রোগ নিউমোকোকাল ব্যাকটিরিয়া দ্বারা সৃষ্ট যে কোনও অসুস্থতায় কাজ করবে বলে দাবী করেছে সংস্থা।

নিউমোনিয়া ছাড়াও নিউমোকোকাল ব্যাকটিরিয়ার ফলে কানের সংক্রমণ, সাইনাস সংক্রমণ, মেনিনজাইটিস (মস্তিষ্ক এবং মেরুদণ্ডের আবরণ টিস্যুর সংক্রমণ), ব্যাকেরেমিয়া (রক্ত প্রবাহের সংক্রমণ), এছাড়া যে কোনও ব্যক্তির নিউমোকোকাল রোগ হতে পারে। তবে ২ বছরের কম বয়সী শিশুরা, কিছু নির্দিষ্ট চিকিৎসাধীন রোগী ছাড়া, ৬৫ বছর বা তার বেশি বয়স এবং ধূমপায়ীদের মধ্যে এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার সবচেয়ে বেশি ঝুঁকি রয়েছে। বেশিরভাগ নিউমোকোকাল সংক্রমণ হালকা ধরণের। তবে কারও কারও এর ফলে দীর্ঘমেয়াদী সমস্যাও হতে পারে। যেমন মস্তিষ্কের ক্ষতি বা শ্রবণশক্তি কমে যাওয়ার মত সমস্যাও হতে পারে। নিউমোকোকাল রোগজনিত মেনিনজাইটিস, ব্যাকেরেমিয়া এবং নিউমোনিয়া মারাত্মক আকার হতে পারে।

PCV13 কি- 

ছোট বাচ্চাদের সাধারণত ২, ৪, ৬ এবং ১২-১৫ মাস বয়সী শিশুদের নিউমোকোক্সাল কনজুগেট ভ্যাকসিনের ৪ টি ডোজ প্রয়োজন। কিছু ক্ষেত্রে, PCV13 টিকা শেষ করতে কোনও শিশুর ৪ টিরও কম ডোজের প্রয়োজন হতে পারে। তবে কিছু চিকিৎসা অনুযায়ী তাদের ২ বছর বা তার বেশি বয়সী প্রত্যেকের জন্যও PCV13 এর একটি ডোজ দেওয়া বাঞ্ছনীয়। রোগী এবং স্বাস্থ্যসেবা সরবরাহকারীদের মধ্যে আলোচনার ভিত্তিতে ৬৫ বছর বা তার বেশি বয়স্কদের এই টিকা দেওয়া যেতে পারে।

PCV13 এর আগের ডোজ, PCV7 নামে পরিচিত। নিউমোকোকল কনজুগেট ভ্যাকসিনে বা ডিপথেরিয়া টক্সয়েডযুক্ত কোনও টিকা যেমন ডিটিএপি, বা কোনও মারাত্মক, প্রাণঘাতী অ্যালার্জির রয়েছে  এমন কিছু ক্ষেত্রে, PCV13 টিকাদান স্থগিত করার সিদ্ধান্ত নিতে পারেন চিকিৎসকরা। এছাড়া সর্দি-কাশির মতো ছোট ছোট অসুস্থতায় আক্রান্ত ব্যক্তিদের টিকা দেওয়া যেতে পারে। যে ব্যক্তিরা মাঝারি বা গুরুতর অসুস্থ তারা সাধারণত PCV13 পাওয়ার আগে সুস্থ না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করা উচিত।

PCV13 টিকার প্রভাব-

এই টিকা নেওয়ার পর সেখানে লালভাব, ফোলাভাব, ব্যথা, জ্বর, ক্ষুধা হ্রাস, হতাশাগ্রস্থতা (খিটখিটে মেজাজ), ক্লান্ত বোধ, মাথা ব্যথা এবং ঠান্ডা লাগার মত সমস্যা দেখা দিতে পারে। অল্প বয়সের শিশুদের PCV13 এর পরে জ্বরের কারণে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বাড়তে পারে যদি এটি নিষ্ক্রিয় ইনফ্লুয়েঞ্জা ভ্যাকসিনের একই সময়ে প্রয়োগ করা হয়। যে কোনও ওষুধের মতোই, একটি ভ্যাকসিনের খুব দূরবর্তী সম্ভাবনা রয়েছে যার ফলে মারাত্মক অ্যালার্জির মত প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। এই ভ্যাকসিনযুক্ত ব্যক্তি ক্লিনিক ছেড়ে যাওয়ার পরে অ্যালার্জির প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। যদি আপনি মারাত্মক অ্যালার্জির লক্ষণগুলি দেখেন (মুখ এবং গলা ফোলাভাব, শ্বাস নিতে অসুবিধা, দ্রুত হার্টবিট, মাথা ঘোরা, বা দুর্বলতা) তবে সত্ত্বর ৯১১-এ কল করুন এবং সেই ব্যক্তিকে নিকটস্থ হাসপাতালে নিয়ে যান।