সন্দীপ মজুমদার, হাওড়া:  করোনার আতঙ্ক! এবার খোদ মন্ত্রীর ওয়ার্ডেই দীর্ঘক্ষণ খোলা জায়গায় পড়ে রইল মহিলার দেহ। ঘটনায় আতঙ্ক ছড়াল হাওড়া শহরে। মৃতার স্বামী ও ছেলের লালারস পরীক্ষার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন। এলাকাটিকে কন্টেনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন: খুন নাকি আত্মহত্যা, হেমতাবাদের বিজেপি বিধায়কের ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে এল পুলিশের

জানা গিয়েছে, যে মহিলা মারা গিয়েছেন, তাঁর বাড়ি হাওড়ার শহরের ৬২ ওয়ার্ডের অগ্রসেন স্ট্রিটে।  দিন তিনেক আগে আচমকাই প্রবল শ্বাসকষ্ট শুরু হয় তাঁর। করোনা নয় তো? নিয়মমাফিক তখন ওই মহিলার লালারস বা সোয়াব পরীক্ষা করা হয়নি। কিন্তু রিপোর্ট আসার আগে সোমবার ভোরে ওই মহিলার শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি ঘটে। হাসপাতাল নিয়ে যাওয়ার পথে মারাও যান তিনি। এরপরই করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে। হাসপাতাল থেকে মৃতদেহ নিয়ে সোজা বাড়ি চলে আসেন পরিবারের লোকেরা। বা়ড়ির সামনে খোলা জায়গা কাঠ চাপা দিয়ে রেখে দেওয়া হয় দেহটি।

আরও পড়ুন: টানা রেকর্ড গড়ে কমতির ঘরে করোনা,একদিনে আক্রান্ত ১৪৩৫

পরিবারের লোক ও স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, স্বাস্থ্য দপ্তরে খবর দেওয়া হলেও প্রথমে কেউ দেহ নিতে আসেননি। ফলে প্রায় সাত ঘণ্টা দেহটি পড়ে থাকে খোলা জায়গায়! শেষপর্যন্ত অবশ্য স্বাস্থ্য দপ্তরের লোকেরা এসেই দেহটি নিয়ে যান। এদিকে মৃত মহিলার স্বামী ও ছেলের সঙ্গে থাকতেন। ছেলের দোকানটি গত কয়েকদিন ধরে খোলা ছিল। ফলে রীতিমতো আতঙ্ক ছড়িয়েছে এলাকায়। স্বামী ও ছেলে দু'জনেরই লালারস পরীক্ষা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্বাস্থ্য দপ্তর। হাওড়া শহরের অগ্রসেন স্ট্রিট এলাকাটিকে  কন্টেনমেন্ট জোন ঘোষণা করে দেওয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন: বুধবারই প্রকাশ হচ্ছে মাধ্যমিকের ফল, উচ্চমাধ্যমিকের পালা কবে

উল্লেখ্য, হাওড়া শহরের ৬২ নম্বর ওয়ার্ডের এই অগ্রসেন স্ট্রিটে থাকেন রাজ্য়ের ক্রীড়া ও  যুব কল্য়াণ দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী লক্ষ্মীরতন শুক্লা। দিন কয়েক আগে তাঁর স্ত্রীর করোনা সংক্রমণ ধরা পড়েছে।