অপেক্ষা আর কিছুক্ষণের। লকডাউনের মাঝে অবশেষে চালু হল হতে চলেছে যাত্রীবাহী ট্রেন পরিষেবা। বিকেলে দিল্লির উদ্দেশ্যে রওনা দেবে একটি ট্রেন, আর একটি ট্রেন আসবে ভেলোর থেকে। শেষ মুহুর্তের প্রস্তুতি তুঙ্গে হাওড়া স্টেশনে।

করোনা সতর্কতায় দেশজুড়ে লকডাউন চলছে, কম দিনও তো হল না। এক মাসের বেশি সময় ধরে হাওড়ায় কোনও ট্রেন, যায়ওনি। মঙ্গলবার সকালে স্টেশনে চলে আসেন টিকিট পরীক্ষক-সহ অন্যন্য রেলকর্মীরা। প্ল্যাটফর্ম থেকে কোচ, সর্বত্রই স্যানিটাইজেশনের কাজ শুরু হয় যায় জোরকদমে। জানা গিয়েছে, থার্মাল স্ক্রিনিং-এর পর মাস্ক পরে ট্রেনে উঠতে হবে যাত্রীদের।  অনলাইনে মোটে তিনঘণ্টার মধ্যে বিক্রি হয়ে গিয়েছে সব টিকিট। মঙ্গলবার বিকেল পাঁচটায় হাওড়া থেকে ছাড়বে দিল্লিগামী এসি স্পেশাল ট্রেন। ট্রেনটির ভাড়া রাজধানীর মতোই। স্টপেজও একই থাকবে। হাওড়ার পর আসানসোল, ধানবাদ, পরেশনাথ, গয়া, দীনদয়াল উপাধ্যায়, প্রয়াগরাজ, কানপুর সেন্ট্রাল, দিল্লি।

হাওড়ায় আর পি এফ এর সিনিয়র কমান্ড্যান্ট রজনিস ত্রিপাঠি জানিয়েছে্ন, যাঁরা দিল্লিতে যাবেন, তাঁদের ট্রেন ছাড়ার দেড় ঘণ্টা আগে স্টেশনে আসতে হবে। গাড়ির ঢোকার রাস্তা দিয়ে লাইন করে যাত্রীদের ঢোকানো হবে প্ল্যাটফর্মে। সামাজিক দূরত্ব  বজায় রাখা ও মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক। সুস্থ আছেন তো? প্রত্যেক যাত্রীর শারীরিক পরীক্ষা করবেন চিকিৎসকরা। স্রেফ ট্রেন ছাড়াই নয়, বিকেলে আবার ভেলোর আরও একটি ট্রেন আসবে হাওড়ায়। সেই ট্রেনের যাত্রীদের থার্মাল স্ক্রিনিং ও শারীরিক পরীক্ষা হবে। তারপর প্রত্যেকেই গাড়ি করে পৌঁছে দেওয়া হবে গন্তব্যে।