তবে কি সেকুলার বুদ্ধিজীবীরা একে-একে আস্থা হারাচ্ছেন রাহুল গান্ধির প্রতি? এর আগে কট্টর মোদী বিরোধী ঐতিহাসিক রামচন্দ্র গুহ বলেছিলেন, মোদীর বিরুদ্ধে রাহুল গান্ধিকে দিয়ে হবে না। এবার আরও এক  বামপন্থী বুদ্ধিজীবী প্রায় সেই  একই কথারই পুনরাবৃত্তি করলেন। অর্থনীতিতে নোবেলজয়ী অভিজিৎ বিনায়ক বন্দ্য়োপাধ্য়ায় জয়পুর সাহিত্য় সম্মেলনে রবিবার স্পষ্টই বললেন, "এদেশে আরও ভাল বিরোধী দল দরকার। বিরোধীরা হলেন গণতন্ত্রের হৃৎপিণ্ড। আর, নিজেদের ঠিক রাখতে শাসকদলের দরকার আরও ভাল বিরোধী দল।"

পুওর ইকোনমিক্সের প্রবক্তা এদিন জয়পুরে দারিদ্র নিয়ে বক্তব্য় রাখছিলেন। অর্থনীতির নানা বিষয় নিয়ে বলতে বলতেই তিনি এই দেশের বিরোধীদের প্রসঙ্গ টানেন। দারিদ্রকে ক্য়ানসারের সঙ্গে তুলনা করে তিনি বলেন, ক্য়ানসারের মতোই এর অনেক সমস্য়া রয়েছে। এর অনেক রোগ রয়েছে। যেমন কিছু মানুষ শিক্ষায় বেশিদূর এগোতে পারেনি। কিছু মানুষের আবার স্বাস্থ্য় ভাল নয়। কেউ কেউ আবার সম্পদের দিক থেকে গরিব। আপনাকে চিহ্নিত করতে হবে একজনের কী নেই। একসঙ্গে সবকিছুর সমাধান খুঁজতে গেলে চলবে না।

টাকা পেলেই গরিবরা তা অপচয় করে,  এই সংস্কারকে চ্য়ালেঞ্জ করে অভিজিৎ বিনায়ক বলেন, "গরিব মানুষরা টাকা পেলেই তা নষ্ট করবে, কুঁড়ে হয়ে যাবে আর এইভাবে আবারও দরিদ্রে পরিণত হবে, এ কথা ঠিক নয়।" তাঁর কথায়, "গরিব মানুষের সামর্থ্য় নিয়ে অনেকরকম সংস্কার আছে। ধার নয়, গরিবদের কিছু সম্পদ দিন। হতে পারে একটা গরু দিলেন, একটা ছাগল দিলেন, হালকা গয়না দিলেন বিক্রির জন্য়, তারপর দেখুন ১০ বছর পর কী ঘটে ওঁদের জীবনে। ওঁরা ২৫ শতাংশ বেশি ধনী হয়ে যাবে, স্বাস্থ্য়বান হয়ে যাবে, সুখী হয়ে যাবে এই সময়ের মধ্য়ে। আর এই সম্পদপ্রাপ্তির বিষয়টিই তাঁদের আরও কঠোর পরিশ্রম করতে অনুপ্রাণিত করবে।"

বীরভূম থেকে শুরু করে আফ্রিকার প্রত্য়ন্ত গ্রাম, সর্বত্র অভিজিৎ তাঁর পুওর ইকোনমিক্স নিয়ে পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালিয়েছেন। তাঁর আর এস্থার ডুফেলোর যৌথভাবে লেখা 'পুওর ইকোনমিকস' আজ অর্থনীতির গবেষকদের কাছে তো বটেই, অন্য়দের কাছেও জনপ্রিয়। এদিন জয়পুর সাহিত্য় সম্মেলনে তিনি কার্যত অর্থনীতি  নিয়েই তাঁর বক্তব্য় রাখছিলেন। সেখানে দারিদ্রের সঙ্গে এদেশে ব্য়াঙ্কিং ক্ষেত্রের সঙ্কটের বিষয়টি নিয়েও আলোচনা করেন তিনি। আর বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে গিয়েই প্রসঙ্গক্রমে এসে পড়ে দেশে বিরোধী  দলের প্রশ্নটি। তখনই তিনি বলেন, নিজেদের ঠিক পথে চালিত করার জন্য় এদেশের শাসকদলের প্রয়োজন আরও ভাল বিরোধী দল। সেখানে তাঁকে জিজ্ঞেস করা হয়, তাঁকে যদি রিজার্ভ  ব্য়াঙ্কের গভর্নর পদের জন্য় প্রস্তাব দেওয়া হয় তিনি কি তা গ্রহণ করবেন। উত্তরে অভিজিৎ বলেন, কখনই নয়। সেইসঙ্গে তাঁকে প্রশ্ন করা হয়, এদেশে থাকলে কি নোবেল পেতেন? সেক্ষেত্রেও তাঁর উত্তর, "আমার মনে হয় না পেতাম"।