স্বামীর সঙ্গে ঘুরতে বেরিয়ে ছিলেন ১৯ বছরের এক তরুণী। পথে ধর্ষণের শিকার হলেন তিনি । ঘটনাস্থল হরিয়ানার কর্নাল জেলা। জাতীয় সড়ক সংলগ্ন একটি টোলপ্লাজার কাছে আন্ডারপাসে তাঁর উপর অত্যাচার চালান হয় বলে অভিযোগ তুলেছেন ওই তরুণী।

১৯ বছরের নির্যাতিতা পঞ্জাবের লুধিয়ানার বাসিন্দা। তরুণীর অভিযোগ, টোলপ্লাজা সংলগ্ন শৌচালয়ে গিয়েছিলেন তিনি। সেই সময়  তাঁকে অপহরণ করে দুই দুষ্কৃতী। ছুরি দেখিয়ে তাঁর উপর চালানো হয় চরম অত্যাচার।

আরও পড়ুন: সিএএ-এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ, পুলিশের অনুমতি ছাড়াই চেন্নাইয়ের রাজপথে জনজোয়ার

মহিলা জানান, পানিপথ থেকে স্বামীর সঙ্গে বাসে করে ফিরছিলেন তিনি। টোলপ্লাজায় নেমে এক আত্মীয়র সঙ্গে দেখা করার কথা ছিল তাঁর। বাস থেকে নেমে শৌচালয়ে গিয়েছিলেন তরুণী। আর তাঁর স্বামী অপেক্ষা করছিলেন চায়ের দোকানে। সেই সময় দুই দুষ্কৃতী ছুরি দেখিয়ে তাঁকে ধর্ষণ করে। 

তরুণী অভিযোগ করেছেন, মূল অভিযুক্ত তাঁকে টোলপ্লাজা থেকে কিছুটা দূরে কূটালি আন্ডারপাসে নিয়ে যায়। এই অপরাধে তাকে সাহায্য করেছিল পানিপথের বাসিন্দা আরেক দুষ্কৃতী। পরে দুই অভিযুক্তই ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায়। 

আরও পড়ুন: বিয়ের আসরে কাঁদছিল কনে, নেচে নববধূর ঠোঁটে হাসি ফোটালেন দুলহেরাজা, ভাইরাল হল ভিডিও

তরুণীর অভিযোগের ভিত্তিতে ইতিমধ্যে মূল অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে কর্নাল জেলার মধুবন থানার পুলিশ। ধৃত ব্যক্তির বাড়ি স্থানীয় স্টাউন্ডি গ্রামে। রাস্তার ধারে ফেরিওয়ালা হিসাবে কাজ করত ওই অভিযুক্ত। দ্বিতীয় অভিযুক্তকেও গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 

তরুণীর কাছেই নিজেদের ফোন নম্বর ফেলে যায় দুই অভিযুক্ত। তা দেখেই দু'জনের সন্ধান পায় পুলিশ।