ভাল করে গোঁফ-ও ওঠেনি। যে বয়সে তরুণরা সিনেমা দেখে, বন্ধুদের নিয়ে ফুর্তি করে, সেই বয়সেই রাজস্থানের জয়পুরের মায়াঙ্কপ্রতাপ সিং গুরুগম্ভীর আদালত কক্ষে বসে একের পর এক জটিল মামলা শুনবেন, বিচার বিবেচনা করে রায় দেবেন। সম্প্রতি মাত্র ২১ বছর বয়সে, রাজস্থান জুডিশিয়ারি সার্ভিস পরীক্ষা পাস করেছেন। এখন তিনি দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে কমবয়সী বিচারক হিসেবে নিয়োগ পাওয়ার জন্য দিন গুণছেন।

তবে এই নজির-কে একেবারেই পাত্তা দিচ্ছেন না মায়াঙ্কপ্রতাপ। তাঁর মতে একজন বাল সৎ বিচারক হতে পারবেন কিনা, সেটাই আসল। তাঁর বয়সটা কোনও বিষয় নয়। জুডিশিয়ারি সার্ভিসের পরীক্ষায় হাতে গোনা ছাত্রছাত্রী প্রথম সুযোগেই সফল হয়। মায়াঙ্কপ্রতাপ জানিয়েছেন তাঁর পরীক্ষা ভালো হয়েছিল, তবে সফল যে হবেনই সেই সম্পর্কে নিশ্চিত ছিলেন না। ফল ভালো হওয়ায় তিনি খুশি।

মায়াঙ্কপ্রতাপ সিং আরও জানিয়েছেন আরজেএস পরীক্ষাপ প্রস্তুতি পর্বে প্রতিদিন ১২ থেকে ১৩ ঘন্টা পড়াশোনা করেছেন তিনি। এর আগে রাজস্থান বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি ৫ বছরের এলএলবি কোর্স করেছেন। চলতি বছরের এপ্রিল মাসেই স্নাতক হয়েছেন।

তবে রাজস্থান হাইকোর্ট আরজেএস পরীক্ষার নিয়ম না বদলে মায়াঙ্কের পক্ষে এই নজির গড়া সম্ভব হত না। চলতি বছরেই চলতি আরজেএস পরীক্ষায় বসার বয়সের নিম্নসীমা ২৩ থেকে কমিয়ে থেকে ২১ করা হয়। আর সেই কারণেই এই বছরই পরীক্ষায় বসার সুযোগ পান মায়াঙ্কপ্রতাপ। আর দেশ পেল তার সবচেয়ে কম বয়সী বিচারককে।