বিশ্বে করোনা আক্রান্ত দেশের তালিকায় ৪ নম্বরে রয়েছে ভারত। কিন্তু যা পরিস্থিতি খুব শীঘ্রই দেশ তিন নম্বরে পৌঁছে যাবে বলে আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। বর্তমানে করোনা আক্রান্ত দেশ হিসাবে বিশ্বে ৩ নম্বরে রয়েছে রাশিয়া। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৬ লক্ষ ৬১ হাজারের বেশি। অন্যদিকে স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যা অনুযায়ী ভারতে ইতিমধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ৬ লক্ষ ২৫ হাজার ছাড়িয়েছে। যেভাবে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা রেকর্ড গড়ছে তাতে খুব শীঘ্রই ভারত এবার রাশিয়াকে ছাপিয়ে যাবে বলেই আশঙ্কা করা হচ্ছে। আর এদেশে কোরনা আক্রান্ত রাজ্যগুলির মধ্যে এক নম্বরে রয়েছে মহারাষ্ট্র। প্রতিদিন যেভাবে রাজ্যটিতে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে তাতে ক্রমেই প্রশাসনের কপালে চিন্তার রেখা আরও বেশি করে ফুটে উঠছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় মহারাষ্ট্রে করোনা সংক্রমণের শিকার হয়েছে ৬,৩৩০ জন। যা এখনও পর্যন্ত দৈনিক আক্রান্তের হিসাবে মারাঠা রাজ্যে সর্বোচ্চ। ফলে মহারাষ্ট্রে বর্তমানে আক্রান্তের সংখ্যা ১ লক্ষ ৮৬ হাজারের গণ্ডি ছাড়িয়ে গিয়েছে। কোভিড ১৯ রোগে মহারাষ্ট্রে প্রাণ হারিয়েছেন ৮ হাজারের বেশি মানুষ। তবে এর মধ্যে আশার খবর রাজ্যটিতে ইতিমধ্যে মারণ রোগকে জয় করে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১ লক্ষরেও বেশি মানুষ। এখনও পর্যন্ত মহারাষ্ট্রে করোনার নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১০ লক্ষেরও বেশি।

 

এদিকে  মহারাষ্ট্রের রাজধানী মুম্বইতে আক্রান্তের সংখ্যা ৮০ হাজার ছাড়িয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণের শিকার হয়েছেন ১,৫৫৪ জন। মারা গিয়েছেন ৫৭ জন। ফলে কেবল মুম্বইতে কোভিড ১৯ রোগে প্রাণ হারিয়েছেন ৪,৬৮৯ জন। এই পরিস্থিতিতে গোটা থানেকে ১০ দিনের জন্য লকডাউনে রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রশাসন। 

রাজধানী দিল্লির পরিস্থিতিও ক্রমেই আয়ত্বের বাইরে যাচ্ছে। ইতিমধ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ৯২ হাজার ছাড়িয়ে গিয়েছে। যা পরিস্থিতিত তাতে কয়েকদিনের মধ্যে রাজধানীর আক্রান্তের সংখ্যা এক লক্ষ ছাড়িয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ২,৩৭৩ জন। দিল্লিতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২,৮৬৪। তবে আক্রান্তদের মধ্যে ৬৩ হাজার ইতিমধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এই অবস্থায় দিল্লি, হরিয়ানা ও উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রীদের করোনা  নির্ণয়ে ব়্যাপিড অ্যান্টিজেন পরীক্ষার সংখ্যা বাড়াতে বলছেনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ।