বর্ষবরণের সময় মদের সাগরে ভেসে যেতে চেয়েছিলেন ৬১ বছরের প্রৌঢ়। কিন্তু, শেষ পর্যন্ত শ্রীঘর থেকেই তাঁকে নতুন বছরের সকালটা দেখতে হবে। বাড়িতে ৮৫ লিটার মদ মজুদ করার জন্য বৃহস্পতিবার ওই প্রৌঢ়কে গ্রেফতার করেছে বেঙ্গালুরু সিটি পুলিশ। পুলিশেরহ দাবি ব্যক্তিগতভাবে মদ সংরক্ষণের অনুমোদিত পরিমণের থেকে ২০ লিটার বেশি মদ মজুত করেছিলেন ওই ব্যক্তি, তাও আবার অবৈধ উপায়ে।

এদিন বেঙ্গালুরুর রাজাজিনগরের কর্ড রোডের পশ্চিম দিকের এক বাড়ি থেকে ওই ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়। পুলিশ জানিয়েছে ওই ব্যক্তি নতুন বছরের আগে বাড়িতে প্রচুর মদ মজুত করেছে বলে গোপন সূত্রে খবর পেয়েছিলেন তাঁরা। সেই মতো এদিন অভিয়ান চালানো হয়। তাতে ৮৫ লিটার বিদেশি মদ উদ্ধার করা হয়েছে। আবগারি দপ্তরের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, কোনও ব্যক্তি তাঁর ঘরে সর্বোচ্চ ৪ লিটার পর্যন্ত মদ রাখতে পারেন। এছাড়া, অভিযুক্ত ব্যক্তি সেই মদের কেনার কোনও বিল-ও দেখাতে পারেননি। তাঁর দাবি মেখরি সার্কেলের ভারতীয় বায়ুসেনার ক্যান্টিন থেকে তিনি ওই মদ কিনেছেন। এরপরই ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে অবৈধ দখলের অভিযোগে আবগারি আইনের আওতায় এফআইআর দায়ের করা হয়।

কিন্তু ওই ব্যক্তি রিয়েল এস্টেট এজেন্ট। তিনি কীকরে ভত্রুকি দেওয়া মদ কিনলেন বায়ুসেনার ক্যান্টিন থেকে? ওই গ্রেফতারির পর ওই ব্যক্তি জানিয়েছেন, এক ওয়ারেন্ট অফিসারের তাঁকে এই ক্ষেত্রে সহায়তা করেছেন। এরপর ওই ওয়ারেন্ট অফিসারের খোঁজ চলছে। তদন্তকারী এক কর্তা বলেছেন, অভিযুক্তের দাবি সঠিক হলে, এটি কর্মরত এবং অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্যদের জন্য উপলব্ধ বিধানগুলির সুস্পষ্ট অপব্যবহার। এ জাতীয় বিধিগুলি কখনই তাঁদের সঙ্গে যুক্ত অসামরিক ব্যক্তিদের আনন্দ উপভোগের জন্য ব্যবহার করা উচিত নয়। কীভাবে মদের বোতলগুলি সংগ্রহ করা হয়েছিল এবং এর কে বা কারা তাতে সাহায্য করেছিল - সবটাই তদন্ত করা হচ্ছে।