অনেক ধরনের  খাওয়ার প্রতিযোগিতার কথা শোনা যায়। কিন্তু ডিম খাওয়ার প্রতিযোগিতা। তাও ৫০টা ডিম একেবারে খেতে হবে। তবেই পাওয়া যাবে ২০০০ টাকা। বন্ধুর সঙ্গে এই প্রতিযোগিতা করতে গিয়ে মারা গেলেন ৪২ বছরের সুভাষ যাদব। ডিম খাওয়ার প্রতিযোগিতা শুরুর দিকে বেশ ভালোই করেছিলেন। কিন্তু একটা সময় যাওয়ার পর থেকে তাঁর শরীর খারাপ লাগতে শুরু করেন। কিন্তু তারপরেও তিনি ডিম খেয়ে যান। প্রতিযোগিতার একেবারে প্রান্তে এসে শেষ রক্ষা হল না। ৪১ তম ডিম খেতে গিয়ে মারা গেলেন তিনি। সোমবার ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের জাওনপুর জেলায়। 

 উত্তর প্রদেশের পুলিশ  জানিয়েছে, সুভাষ তাঁর এক বন্ধুর সঙ্গে  বিবিগঞ্জ বাজারে এসেছিলেন ডিম খেতে।  কথায় কথায় দুই বন্ধুর মধ্যে বাগযুদ্ধ শুরু হয়। দুজনের মধ্যে ঝগড়া চলে একসঙ্গে কে কটা ডিম খেতে পারে।  এই বিতণ্ডা থেকে  দুই বন্ধুর মধ্যে প্রতিযোগিতা হয়। যদি সুভাষ যাদব  একসঙ্গে ৫০টি ডিম খেতে পারে, বন্ধুটি তাকে ২০০০ টাকা দেবে।  এখানে টাকার থেকেও বেশি হয়ে দাঁড়ায় সম্মান, বন্ধুর সঙ্গে করা প্রতিযোগিতায় হারার ভয়।সুভাষ যাদব বন্ধুর প্রস্তাবে রাজি হয়ে যায়।  


দোকানি তাঁদের ডিম দিয়ে যেতে থাকেন, আর সুভাষ যাদব সেই ডিম খেতে থাকেন। উত্তরপ্রদেশের পুলিশ জানিয়েছে,  শুরুর দিকে সুভাষ যে হারে ডিম খাচ্ছিলেন, শেষের দিকে গতি ধীরে  হতে থাকে। পুলিশ অনুমান করছে, সুভাষের শরীর অনেক আগে থেকেই খারাপ হচ্ছিল। কিন্তু হারার ভয়ে সে জোর করে খাচ্ছিলয। ৪১ তম ডিম সে সম্পূর্ণ করে। কিন্তু ৪২ তম ডিমে কামড় বসানোর পরেই সুভাষ অজ্ঞান হয়ে পড়েন। পুলিশ তাকে যত দ্রুত সম্ভব জেলা হাসপাতালে নিয়ে যায়। কিন্তু পরিস্থিতির অবনতি হতে থাকায় তাঁকে সঞ্জয় গান্ধি পোস্ট গ্র্যাজুয়েট ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই কয়েক ঘণ্টার মধ্যে তাঁর মৃত্যু হয়। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, বেশি খাবার ফলে তাঁর মৃত্যু হয়েছে। সুভাষের পরিবার এই বিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে অস্বীকার করেছেন বলে জানা গিয়েছে।