১৫ বছরের এক বালিকাকে দিনের পর দিন দুই ব্যক্তি ধর্ষণ করে গিয়েছে। যার জেরে ওই বালিকা গর্ভবতী হয়ে পড়ে।  ঘটনা প্রকাশ্যে আসতেই পঞ্চায়েতের তরফে বিচারসভা বসানো হয়। সেই পঞ্চায়েতে বিচারের রায় শুনলে চমকে উঠতে হবে। পঞ্চায়েত জানিয়েছে, গর্ভবতী ওই বালিকার শিশু জন্মালে তাকে বিক্রি করে দিতে হবে। বিনিময়ে যে টাকা পাওয়া যাবে, তাই হবে ওর ক্ষতিপূরণ। শুনতে খুব অবাক লাগলেও ঘটনাটা সত্যি। আর এই ঘটনা ঘটেছে বিহারের মুজাফফরপুরে। 

পঞ্চায়েত থেকে এই বিচার পাওয়ার পর হতাশ দীন মজুর পরিবারটি মুজাফফর মহিলা থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে মৌলানা মকবুল ও মুহাম্মদ সোহিবের নামে। অভিযুক্তদের সন্ধানে পুলিশ তল্লাশি অভিযান শুরু করেছে। মুজাফফরপুরের কার্তা মসজিদ কমিটির সদস্য মুহাম্মদ সারদে জানিয়েছেন,  ১৫ বছরের মেয়েটি একাধিকবার পঞ্চায়েতে এসে অভিযোগ জানিয়েছে ধর্ষণের বিষয়ে। সে বার বার বিচারের দাবি জানিয়েছে। চলতি বছরের শুরু থেকে তাকে ক্রমাগত ধর্ষণ করে গিয়েছে মুজাফফরপুরের দুই বাসিন্দা বলে অভিযোগ করে এসেছে। 

সারদে আরও জানিয়েছে, গত মাসে ওই বালিকা ধর্ষণের ফলে একটি শিশু সন্তান প্রসব করেছে। তিনি পঞ্চায়েতের সাফাই গেয়ে জানিয়েছেন, আমাদের পঞ্চায়েতের তরফে একটা ভালো উপায় বের করা হয়েছিল। ওই সদ্যোজাতো শিশুটিকে এক লক্ষ টাকায় বিক্রি করে দেওয়ার কথা বলা হয়েছিল। ওই বালিকা টাকাটা ক্ষতিপূরণ হিসেবে রাখতে পারে। কিন্তু এখনও শিশুটিকে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে কি না, সেই বিষয়ে কিছু জানি না। 
যদিও কার্তা গ্রামের মুখিয়া অরুণ কুমার জানিয়েছেন, আমি আগেই বলেছিলাম, পঞ্চায়েতে এই ধরনের সমস্যার বিচার পাওয়া সম্ভব নয়। মেয়েটি ও তার পরিবারকে বার বার পুলিশে অভিযোগ জানানোর কথা আমি বলেছিলাম।