সুশান্ত সিং রাজপুত - এক তরুণ প্রতিভাবান অভিনেতার রহস্য মৃত্যু এখন রাজনীতির ঘুঁটি হয়ে দাঁড়িয়েছে। এবার কংগ্রেস নেতা অধীররঞ্জন চৌধুরী এই প্রসঙ্গে তীব্র আক্রমণ করলেন বিজেপি-কে। তাঁর মতে রাজনীতিই সুশান্ত সিং রাজপুতকে হত্যা করেছে। আর এনসিবি-র পক্ষ থেকে বলিউডে মাদক পাচার চক্রের যে তদন্ত শুরু হয়েছে, তা আসলে বিহার নির্বাচনের আগে বিজেপির 'উদ্ধারকর্তা'। তিনি অভিযোগ করেছেন, সুশান্ত সিং রাজপুত নিয়ে রাজনীতি বিহারে বিজেপি দলের পক্ষে কাঙ্ক্ষিত ফল দিতে পারেনি। তাই এখন মাদকের তদন্ত তাদের উদ্ধার করতে পারে কি না সেটাই দেখার।

শুক্রবার রাতে অধীর টুইট করে বলেন, “সিবিআই এবং ইডি আর ছবিতে নেই, এখন লাইমলাইটে এনসিবি'। তাঁর অভিযোগ মাদকের তদন্তটা একটা ছুতো মাত্র। কারণ এখনও পর্যন্ত এমন কোনও পরিমাণে নিষিদ্ধ মাদক দ্রব্যের সন্ধান পাওয়া যায়নি, যে তার জন্য এনসিবি-কে তদন্ত করতে হবে। কটাক্ষ করে বলেছেন কোনও সন্ত্রাসবাদী যোগ খুঁজে পাওয়া গেলে নাহয় 'অন্তত ইউএপিএ আইনে মামলা বা এনএসএ-কে ডাকা যেত। কংগ্রেস নেতা আরও বলেছেন, বিহারের ভোট ঘোষণা হয়েছে, তাই গেরুয়া দলের নির্বাচনের জন্য উপাদেয় কিছু উপকরণের খুব দরকার।

অধীরের আগেই অবশ্য সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যু মামলা এবং তার ফলে হওয়া মাদকের তদন্তকে বিহার নির্বাচনের সময় রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা হতে পারে বলে দাবি করেছিলেন বিজেপি বিরোধী শিবিরের আরেক নেতা শিবসেনা সাংসদ সঞ্জয় রাউত। তাঁর মতে এই সবটাই 'একটি দীর্ঘ পরিকল্পিত নাটক'। বিহার সরকারের হাতে বলার মতো কোনও উন্নয়নমূলক কাজ বা প্রশাসনিক বিষয় নেই বলেই সুশান্ত সিং রাজপুতের বিষয়টি নিয়ে শোরগোল করা হচ্চে বলে অভিযোগ করেছিলেন সঞ্জয়।