বিহার-ঝাড়খন্ডের পরে মহারাষ্ট্র, পুলিশ রিপোর্টে মাওবাদী অভিযানে সাফল্যের খতিয়ান

| Sep 25 2022, 02:49 PM IST

বিহার-ঝাড়খন্ডের পরে মহারাষ্ট্র, পুলিশ রিপোর্টে মাওবাদী অভিযানে সাফল্যের খতিয়ান

সংক্ষিপ্ত

গড়চিরোলির পুলিশ সুপার অঙ্কিত গোয়েল পিটিআইকে বলেছেন, “বিগত পাঁচ-ছয় বছরের মধ্যে গত দুই থেকে তিন বছরে জেলায় নকশাল কার্যকলাপ এবং তাদের উপস্থিতি উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে৷ বিভিন্ন এনকাউন্টার, গ্রেফতার এবং আত্মসমর্পণের কারণে নকশালদের সংখ্যা উল্লেখযোগ্যভাবে কমে এসেছে।

মহারাষ্ট্রের গড়চিরোলিকে নকশালবাদের শক্ত ঘাঁটি বলে মনে করা হয়। পুলিশ আধিকারিকদের মতে, মহারাষ্ট্রের দুটি বামপন্থী চরমপন্থা প্রভাবিত জেলার মধ্যে একটি গড়চিরোলি। পুলিশ রিপোর্ট জানাচ্ছে এখানে মাওবাদীরা গত পাঁচ বছরে উল্লেখযোগ্যভাবে কমে এসেছে। ছত্তিশগড়ের সীমান্তবর্তী গড়চিরোলি জেলায়, সাম্প্রতিক বছরগুলিতে কার্যত কোনও নকশাল নিয়োগ হয়নি, এবং তাদের সংখ্যা উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে।

ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা নকশাল কার্যকলাপের পতনের জন্য বেশ কয়েকটি কারণকে দায়ী করেছেন, যার মধ্যে রয়েছে পুলিশের সাথে এনকাউন্টারে জেলার শীর্ষ নেতৃত্বের নির্মূল, ক্যাডারদের গ্রেপ্তার, ক্রমবর্ধমান সংখ্যক নকশাল তাদের অস্ত্র তুলে দেওয়া এবং পুনর্বাসন কর্মসূচির কার্যকর বাস্তবায়ন।

Subscribe to get breaking news alerts

গড়চিরোলির পুলিশ সুপার অঙ্কিত গোয়েল পিটিআইকে বলেছেন, “বিগত পাঁচ-ছয় বছরের মধ্যে গত দুই থেকে তিন বছরে জেলায় নকশাল কার্যকলাপ এবং তাদের উপস্থিতি উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস পেয়েছে৷ বিভিন্ন এনকাউন্টার, গ্রেফতার এবং আত্মসমর্পণের কারণে নকশালদের সংখ্যা উল্লেখযোগ্যভাবে কমে এসেছে।

গোয়েল বলেছিলেন যে বেশ কয়েকটি নকশাল দল ভেঙে দেওয়া হয়েছে, বিশেষ করে উত্তর গড়চিরোলি অঞ্চলে। মাওবাদী সদস্যের সংখ্যা ১৮০ থেকে ১২০-এ নেমে এসেছে," তিনি বলেন, পুলিশ গত দুই বছরে ৫৪ জন নকশালকে নিকেশ করেছে, এবং আরও অনেককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জানা গিয়েছে এখন মাত্র ১০ থেকে ১২ টি গ্রুপ বা দালাম রয়েছে যার মধ্যে কোরচি দালাম, সাথগাঁও দালাম, প্লাটুন সাত, প্লাটুন ১৪ এবং কোম্পানি ৪ চালু আছে। গড়চিরোলি পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৭ থেকে ২০২২ সালের ৩১শে অগাষ্ট পর্যন্ত পুলিশের সঙ্গে এনকাউন্টারে ১৩৭ জন নকশাল নিহত হয়েছে। এই সংখ্যা ২০১৮ সালে ৫০ এবং ২০২১ সালে ৪৯ ছিল।

একইভাবে, ২০১৭ থেকে এই বছরের ৩১ অগাস্ট পর্যন্ত, ১৯৬ জন অভিযুক্ত নকশালকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল, এবং অন্য ৯১ জন একই সময়ে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেছিল। ২০২১ সালের ১৩ নভেম্বর মারদিনটোলা জঙ্গলে পুলিশের সাথে এনকাউন্টারে শীর্ষ নকশাল নেতা মিলিন্দ তেলতুম্বে এবং উত্তর গড়চিরোলির বেশ কয়েকজন নেতা সহ ২৬ জন নিহত হলে পুলিশ একটি বড় সাফল্য পায়।

উল্লেখ্য, বিহার ও ঝাড়খণ্ডের নকশাল প্রভাবিত এলাকায় দীর্ঘদিন ধরেই অভিযান চালাচ্ছে নিরাপত্তা বাহিনী। কয়েকদিন আগে বুডঢা পাহাড়ি এলাকায় একমাস অভিযানের পর বড় সাফল্য পেয়েছে নিরাপত্তা বাহিনী। বুধবার সিআরপিএফ ডিজি কুলদীপ সিং বলেন, 'এখন আমরা বলতে পারি বিহার নকশালমুক্ত হয়েছে। তারা হয়তো রংদারি গ্যাং আকারে টিকে আছে, কিন্তু এখন কোনো এলাকায় তাদের আধিপত্য নেই। তিনি বলেছিলেন যে বিহার এবং ঝাড়খণ্ডে এমন কোনও জায়গা নেই যেখানে বাহিনী পৌঁছতে পারে না। এই সাফল্যের জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ পুলিশ ও সিআরপিএফকে অভিনন্দন জানিয়েছেন।

ডিজি বলেন, সাম্প্রতিক সময়ে নকশাল হামলা দ্রুত কমেছে। এটি কমপক্ষে ৭৭ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে। ২০০৯ সালে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক নকশাল হামলা হয়েছিল। হামলায় মৃতের সংখ্যা ৮৫ শতাংশ কমেছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী টুইট করে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, দেশের অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তায় একটি ঐতিহাসিক মাইলফলক অতিক্রম করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে, নিরাপত্তা বাহিনী সারা দেশে বামপন্থী উগ্রবাদের বিরুদ্ধে নিষ্পত্তিমূলক যুদ্ধে অভূতপূর্ব সাফল্য অর্জন করেছে।