প্রাক্তন বিজেপি জেলাসভাপতির বাগান বাড়ি থেকেই রমরমিয়ে চলছিল বেআইনি যৌন ব্যবসা। আর সেই সেক্স ট্রাফিকিং রেকেটের পর্দা ফাঁস করার পুরো কৃতিত্ব নিল আগ্রা পুলিশ। উত্তর প্রদেশ প্রশাসন আগ্রা পুলিশের এই ভূমিকাকে রীতিমত সাধুবাদ জানিয়ে বলেই পুলিশ সূত্রের খবর।  

প্রাক্তন বিজেপি জেলা সভাপতি অবশ্য জানিয়েছেন এই ঘটনার সঙ্গে তাঁর কোনও যোগাযোগ নেই। বাগানবাড়িটি তাঁর। কিন্তু বর্তমানে তিনি বাগানবাড়িটি ইজারা দিয়েছিলেন বলেও জানিয়েছেন। আর যৌন ব্যবসা চালানোর জন্য যারা গ্রেফতার হয়েছে তাদের সঙ্গেও কোনও যাগোযোগ নেই বলেও দাবি করেছেন সংশ্লিষ্ট বিজেপি নেতা। 


আগ্রার পুলিশ সুপার বাবলু কুমার জানিয়েছেন বিশাল আকারেই সেক্স রেকেটটি চলছিল। আর অভিযুক্তদের হাতেনাতে ধরতে রেইড করাও হয়েছিল। যার অংশ হিসেবে তল্লাশি চালান হয় ওই বাগানবাড়িতে। তিনি আরও বলেন প্রথমে ওই বাগানবাড়িতে মহিলাদের নিয়ে আসা হত। আর সেখান থেকেই খরিদারদের কাছে পাঠান হত মহিলাদের। বিভিন্ন হোটেল আগে থেকেই বুক করে রাখা হত। এই ঘটনায় সমাজের বেশ কয়কজন প্রভাবশালী ব্যক্তিও জড়িয়ে রয়েছে বলে অভিযোগ। তিন মহিলাসহ মোট ৯ জনকে পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করছে। 

বিজেপি নেতার দাবি আগ্রা পুলিশ এই ঘটনায় তাঁকে ইচ্ছেকৃতভাবে ফাঁসাতে চাইছে। ঘটনার সম্পূর্ণ তদন্তেরও দাবি জানিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি তিনি বলেছেন শচীন, বিষ্ণু ও বিশাল গোয়েল নামে তিন ব্যক্তিতে ইজারা দিয়েছিলেন বাগানবাড়িটি। যদিও পুলিশের দাবি প্রথম থেকেই বিজেপি নেতা জানতেন বাগানবাড়িতে কী কাজ হচ্ছে।  ব্যাবসা থেকে তিনি ভাগ নিতেন বলেও অভিযোগ পুলিশের। আগ্রার বেশ কয়েকটি পাঁচতারা হোটেলও পুলিশের নজর রয়েছে বলেও সূত্রের খবর। স্থানীয় কংগ্রেস নেতা অবশ্য বিষয়টি নিছকই একটি নাটক বলে বর্ননা করেছেন। তিনি বলেছেন পুলিশ সবই জানে। পুলিশের সঙ্গে বিজেপি নেতৃত্বের যোগাযোগেই চলে এই বেআইনি ব্যবসা। 

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে রাষ্ট্র সংঘে নালিশ আফগান সরকারের, ভারতের মত লঙ্ঘিত হচ্ছে সীমান্ত নীতি .

রাজস্থান সংকট নিয়ে দ্বিমত কংগ্রেসের অন্দরে, পাইলট-গেহলট বিবাদ মেটাতে কি উদ্যোগী হবেন সনিয়া ...

করোনাভাইরাসকে হাতিয়ার করে ভারতে হত্যার নির্দেশ, জেহাদিদের জন্য বার্তা ইসলামিক স্টেটের