ভারতীয় স্যাটেলাই থেকে পাওয়া ছবিগুলি ব্যবহার করে দেশের জন্য একটি প্রয়োজনী মানচিত্র তৈরির কাজে আরও একধাপ এগিয়ে গেল ভারত। আর সেই কাজে মূলত দেশীয় মেধাকে ব্যবহারের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। ইন্ডিয়ার ইনস্টিটিউট অব টেকনোলডি বোম্বে, ইন্ডিয়ার স্পেস রিসার্চ আর্গানাইজেশন এবং ফ্রি ওপেন সফটওয়্যার ইন এডুকেশনের উদ্যোগে ইন্ডিয়ার টেকনিক্যাল এডুকেশন একটি অনলাইন ম্যাপাথন এডুকেশন এভেন্টের আয়োজন করেছে। এই ইভেন্টের মূল উদ্দেশ্যই হল দেশীয় প্রযুক্তির ব্যবহার আরও বাড়িয়ে তোলা।  


উদ্যোগী প্রার্থীদের একটি সম্পূর্ণ মানচিত্র তৈরি করে  জমা করতে হবে বলেও নির্দেশ দিওয়া হয়েছে। গত ৭ ডিসেম্বর অনলাইন এই ইভেন্টটির উদ্বোধন হয়। আগ্রহী প্রার্থীরা নাম নথিভুক্ত করতে পারবেন  ১৮ই ডিসেম্বরের মধ্যে। ১৪-৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে তাঁদের সম্পূর্ণ মানচিত্র তৈরি করে জমা দিতে হবে।ফলাফল জানান হবে আগামী ৪ থেকে ১০ জানুয়ারির মধ্যে। আগ্রহী প্রার্থীদের যোগাযোগ করার ওয়েবসাইট অ্যাড্রেস হল www.iitb-isro-aicte-mapathon.fosee.in 

এআইসিটিই-র চেয়ারম্যান অনিল সাহররাবুধে বলেছিলেন যে ইস্রোর  বিকাশ করা ডেটাবেশগুলিকে আরও জনপ্রিয় করার উদ্দেশ্যে এই উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। একই সঙ্গে আত্মনির্ভর ভারত গঠনের লক্ষ্যে নিজের দেশের ডেটাবেশের ওপর জোর দিতেই এইজাতীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, এজাতীয় পদক্ষেপ ভারতীয় ডেটাবেস ব্যবহারকারী গবেষকদের উৎসাহিত করবে পাশাপাশি গবেষণাকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে সাহায্য করবে। 

সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলি মনে করছে এজাতীয় মানচিত্রগুলিতে জলবায়ু পরিবর্তন, অভিযোদন, শিভা, প্রাকৃতিক সম্পদ ব্যবস্থাপনা, স্বাস্থ্য পরিষেবা, ভূগোল নানা বিষয়ে তথ্য থাকবে। আর সেই কারণেই তা আর্থ-সামাজিক ও প্রশাসনিক ক্ষেত্র গুরুত্বপূর্ণ হয়ে দাঁড়াবে। স্যাটেলাইট ইমেজ ও ক্লাউড সোর্স থেকে জিএসআই মানচিত্র তৈরি করছে, যা স্মার্ট ফোন ব্যবহারকারীরা সহজে পেয়ে যাবে। জিএসআই অ্যাপ্লিকেশন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক পেন্নান চিন্নাসামি জানিয়েছে, যেকোনও ব্যক্তি ওপেন সোর্স সফটওয়্যার সহজে ব্যবহার করতে পারে। কিউজিআইএস স্পোকেন টিউটোরিয়াল গুলি ইংরাজিতে ব্যবহার করে পারবে।কিন্তু ব্যবহারকারীরা নিজের সুবিধে মত ভাষাগুলি ডাব করে নিতে পারবে।  যেকোনও সম্প্রদায়ের মানুষ যাতে এই অ্যাপলিকেশনগুলি ব্যবহার করতে পারে সেদিকে জোর দেওয়া হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।