ষষ্ঠ দফা বৈঠেক আগেই কি সুর নরম করল কেন্দ্রীয় সরকার? কারণ  মঙ্গলবার সন্ধ্যে ৭টা সময় বিক্ষোভকারী কৃষকদের কথা বলার জন্য ডেকে পাঠিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ। তেমনই দাবি করেছে বিক্ষোভকারী কৃষকরা। সিংহু বর্ডারে আন্দোলনকারী কৃষক নেতা রাজেশ টিকাইট জানিয়েছেন আজ সন্ধ্যাতেই তাঁরা কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহর সঙ্গে কথা বলতে যাচ্ছেন। সিংহু বর্ডার থেকেই তাঁরা রওনা দেবেন বলেও জানিছেন। 

আগামিকাল অর্থাৎ বুধবার কেন্দ্রীয় সঙ্গে ষষ্ঠ দফার বৈঠকে বসার কথা কেন্দ্রীয় সরকারের। এর আগে পাঁচ দফা আলোচনা হলেও এখনও পর্যন্ত রফা সূত্র অধরাই থেকে গেছে। নতুন তিনটি কৃষি বিল বাতিল করতে হবে সরকারকে। এই দাবিতে এখনও পর্যন্ত অনড় থেকেছেন কৃষকরা। পাশাপাশি নূণ্যতম সহয়ক মূল্য নিয়েও নিজেদের দাবি জানিয়েছেন আন্দোলনকারী কৃষকরা। কেন্দ্রীয় কৃষি মন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর সেই বিষয়ে কৃষকদের আশ্বাসও দিয়েছেন। কিন্তু তারপরেও পরিস্থিত তেমন কোনও উন্নতি হয়নি। অন্যদিকে ১৩ দিন চলা  কৃষক বিক্ষোভ নিয়ে কিছুটা হলেও উদ্বেগ বাড়ছে কেন্দ্রীয় সরকারের মধ্যে। আগেই কৃষি মন্ত্রী নরেন্দ্র সিং তোমর ও বাণিজ্য মন্ত্রী পীযূষ গোয়েলের সঙ্গে একাধিকবার কথা বলেছিলেন অমিত শাহ। তাই কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে ষষ্ঠ দফা বৈঠকের আগে অমিত শাহর সঙ্গে কৃষকদের এই বৈঠকের দিকেই তাকিয়ে রয়েছে দেশ। সংশ্লিষ্ট মহলের ধারনা এই বৈঠকেই কৃষক বিক্ষোভের জট কেটে যেতে পারে। 

ষষ্ঠ দফা বৈঠকের আগেই সরকারের ওপর চাপ বাড়াতে বনধের ডাক দিয়েছিল কৃষকরা।  আজ কৃষকদের ডাকা ভারত বনধে গোটা দেশেই কমবেশি প্রভাব পড়েছে। দেশের সাধারণ মানুষ যেমন সমর্থ জানিয়েছেন কৃষকদের বনধকে। তেমনই একাধিক সংগঠকও পাশে কৃষকদের পাশে থাকার বার্তা দিয়েছেন। বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলিও কৃষকদের ডাকা বনধে সামিল হয়েছ।  সকাল ১১টা থেকে দুপুর ৩টে পর্যন্ত কৃষকদের ডাকা বনধ অনেকাংশেই ছিল শান্তিপূর্ণ।