সার্জিক্যাল স্ট্রাইক এর মত জবাবের রণকৌশল তাঁর মস্তিষ্কপ্রসূত। তাঁর বানানো ব্লু প্রিন্টেই হয়েছে উরি হামলা। এমনকি হালের বালাকোট হামলাটিও তাঁরই ছক। ভারতীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থার প্রধান স্তম্ভ হয়ে উঠেছেন অজিত দোভাল। এবার তারই পুরষ্কার পেলেন তিনি। নতুন গঠিত সপ্তদশ কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভায় পাঁচ বছরের জন্যে ক্যাবিনেটের সমতুল্য পদ দেওয়া হল জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালকে।

দোভালের কীর্তি

১৯৬৭ সালে আগ্রা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অর্থনীতিতে প্রথম স্থান পেয়ে পাশ করেন অজিত দোভাল। ১৯৬৮ সালে কেরালা ক্যাডারে যোগ দেন এই প্রাক্তন আই পি এস।  অজিত দোভাল দেশের পঞ্চম জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা।  অতীতে আইবি ডিরেক্টরের গুরু দায়িত্ব সামলেছেন ৭২ বছর বয়েসি ডোভাল। ২০১৪ সালে তাঁর ঠিক করা স্ট্র্যাটেজিতে পাকিস্তানের উপর হামলা চালায় ভারতীয় সেনাবাহিনী যতদিন না নিয়ন্ত্রণ রেখার উপর থেকে পাকিস্তানের গুলিবর্ষণ বন্ধ হচ্ছে ততদিন টানা হামলা চালানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন তিনি। ২০১৫ সালের জুন মাসে মায়ানমার সার্জিক্যাল স্ট্রাইকও তার মস্তিষ্কপ্রসূতই।

কর্ম জীবনে বহু চড়াই-উৎরাই পার করেছেন অজিত দোভাল।  মায়ানমার বা চিনের জঙ্গি দমন থেকে জম্মু কাশ্মীরের জঙ্গি দমন, নিজস্ব কৃতিত্বেই ভারতীয় নিরাপত্তা ব্যবস্থার প্রধান হয়ে দাঁড়িয়েছেন দোভাল। প্রথম পুলিশ অফিসার হিসেবে কীর্তি চক্র পান ১৯৯৮ সালে। নিজের জীবনের ৬ বছর পাকিস্তানেও কাটিয়েছেন তিনি।