রাজ্যসভা এবং লোকসভায় দাঁড়িয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ বার বার দাবি করেছেন, ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার এবং জম্মু কাশ্মীরকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে ঘোষণার ফলে শান্তি ফিরবে ভূস্বর্গে, হাসবে কাশ্মীর। এবার সরাসরি কাশ্মীরে গিয়ে উপত্যকার সাধারণ মানুষকে সেই বার্তাটাই দিতে শুরু করলেন জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত ডোভাল। 

এ দিন দক্ষিণ কাশ্মীরের সোপিয়ানে রাস্তার উপরে কাশ্মীরিদের সঙ্গে কথা বলতে দেখা যায় জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টাকে। ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্তের পরে কাশ্মীরের অবস্থা সরোজমিনে খতিয়ে দেখতে উপত্যকায় রয়েছেন ডোভাল। নিরাপত্তা ব্যবস্থা খুঁটিনাটি দেখার পাশাপাশি তাঁকে যে আম কাশ্মীরিদের আস্থা অর্জনেরও দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, তা এ দিন পরিষ্কার। 

দেখা যায়, রাস্তার উপরই খাবার কিনে সাধারণ মানুষের সঙ্গে মধ্যাহ্নভোজ সারছেন ডোভাল। খেতে খেতেই তিনি স্থানীয় বাসিন্দাদের কাছে পরিস্থিতির হালহকিকত নিয়ে জানতে চান। জবাবে স্থানীয়রা জানান, সরকার যে সিদ্ধান্তই নিক না কেন, তাঁরা শুধু শান্তি চান। ডোভাল তখন তাঁদের আশ্বস্ত করে বলেন, যে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, তা কাশ্মীরের সাধারণ মানুষের ভালর জন্যই নেওয়া। এর ফলে সন্তানদের নিয়ে কাশ্মীরিরা শান্তিতে থাকবেন, তাঁদের কর্মসংস্থানও হবে বলে আশ্বস্ত করেন জাতীয় নিরাপত্ত উপদেষ্টা। 

সংবাদসংস্থার খবর অনুযায়ী, বৃহস্পতিবার থেকেই জম্মু কাশ্মীরের ব্যাঙ্ক, সরকারি অফিস খুলতে শুরু করবে। কঠিন সিদ্ধান্ত নেওয়ার পরে এবার দ্রুত উপত্যকাকে স্বাভাবিক করাই কেন্দ্রীয় সরকারের কাছে চ্যালেঞ্জ। বিরোধীরা বার বার কাশ্মীরবাসীর যে আস্থা অর্জন করার কথা বলছিলেন, ঐতিহাসিক সিদ্ধান্ত কার্যকর করার পরই সরকারের সেই আস্থা অর্জনের চেষ্টা দেখা গেল অজিত ডোভালের মাধ্যমে। 

তবে শুধু কাশ্মীরের সাধারণ মানুষই নন, এ দিন জম্মু কাশ্মীরের পুলিশ এবং কেন্দ্রীয় আধা সামরিক বাহিনীর জওয়ানদের সঙ্গেও দেখা করেন ডোভাল। কাশ্মীরে তাঁরা যে দায়িত্ব পালন করেছেন, তা তুলনাহীন এবং গর্ব করার মতো বলে বাহিনীকে উদ্বুদ্ধ করার চেষ্টা করেন ডোভাল।