প্রাচ্যের ভেনিস হিসেবে পরিচিত হবার কারণে, আলাপ্পুজহা কেরালার পর্যটন ক্ষেত্রে  একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান দখল করে আছে।  এটি নৌকা বাইচ প্রতিযোগিতা,ব্যাকওয়াটার হলিডে, বেলাভূমির  জন্য বিখ্যাত। আলাপ্পুজহা বেলাভূমি একটি জনপ্রিয় পিকনিক স্পটও । এখানে সমুদ্র থেকে নির্গত পাথরের বাঁধ ১৩৭  বছরের পুরনো। ভিজয়া বীচ পার্কে প্রমোদের আয়োজন এই বেলাভূমির অতিরিক্ত আকর্ষণ।এর নিকটস্থ একটি প্রাচীন লাইটহাউস পর্যটকদের কাছে আকর্ষনীয় গন্তব্যস্থল। কিন্তু করোনার কারণে এখনও পর্যটকদের দেখা নেই এখানকার বিখ্যাত হাউসবোটগুলিতে। তাই এবার রাজ্যের করোনা যুদ্ধে বিলাসবহুল এই বোটহাউস গুলিকেই কোয়ারেন্টাই সেন্টার হিসাবে গড়ে তুলছে স্থানীয় প্রশাসন। 

করোনার জেরে লকডাউন চলছে সারা ভারত জুড়ে। ফলে বন্ধ হয়ে গেছে একাধিক পর্যটন কেন্দ্র। ভ্রমণপ্রেমীদের কাছে কেরল এক অন্যতম পছন্দের জায়গা। আর কেরলের অন্যতম আকর্ষণ সেখানকার আলাপ্পুজহায় অবস্থিত চলমান হাউসবোট। সেগুলো থাকলেও এখন সেখানে নেই পর্যটকরা। তাই এই হাউসবোট গুলিকে জরুরি ভিত্তিতে কোয়ারেন্টাইনের জন্য ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানান আলাপ্পুজহার জেলাশাসক এম অঞ্জনা। 

 
জেলাশাসক এম অঞ্জনা জানিয়েছেন, তাদের আইসোলেশন ওয়ার্ডে ১,৫০০ থেকে ২,০০০টি বেড আছে করোনা আক্রান্তদের জন্য। কিন্তু এর পরেও যদি কোয়ারেন্টাইন সেন্টারের দরকার পড়ে, তখন আইসোলেশন সেন্টার হিসাবে ব্যবহার করা হবে হাউসবোট গুলিকে।  


কাতর আর্তিতে রাতেই খুলল আদালত, লকডাউনের মাঝেই মেক্সিকান বান্ধবীকে বিয়ে করলেন যুবক
দেশে শুরু দ্বিতীয় দফায় লকডাউন, ছাড় পাবে কোন কোন ক্ষেত্র, নির্দেশিকা জারি করল কেন্দ্র
ভিসার নিয়ম ভেঙে ধর্মপ্রচার, তাবলিগ জামাতে যোগ দেওয়া ৫৭ জন বিদেশিকে এবার জেলে পুড়ল পুলিশ

আলাপ্পুজহার হাউসবোট বা নৌকাগুলিতে সাজানো গোছানো শয়নকক্ষ, আধুনিক শৌচালয়, আরামদায়ক বৈঠকখানা, একটি রান্নাঘর সহ  ভালো হোটেলের সমস্ত রকমের আরামদায়ক ব্যবস্থা রয়েছে, এমনকি মাছধরার জন্য ব্যালকনিও রয়েছে। হাউসবোটে থাকাকালীন ব্যাকওয়াটারের সাবলীল জীবন উপভোগ করা যায়। তবে কেবল এই হাউসবোটগুলিই নয়, করোনা পরিস্থিতি আরও জটিল আকার ধারণ করলে, জরুরী অবস্থার মোকাবিলা করতে রাজ্যের আরও ৬০টি হোটেল এবং রিসর্টকেও আইসোলেশন ওয়ার্ড হিসাবে ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেরলের স্বাস্থ্য দফতর। যেখানে ২৪ ঘণ্টার জন্য উপস্থিত থাকবে মেডিক্যাল দল।

এর আগে ভারতীয় রেল নিজেদের ট্রেনের বগিগুলিকে আইসোলেশন ওয়ার্ড তৈরির কাজে লাগিয়েছে। করোনা আক্রান্ত দিল্লি ও মুম্বইতে একাধিক স্টেডিয়াম প্রশাসন অধিগ্রহণ করেছে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার তৈরি করতে। এছাড়াও একাধিক হোটেলকেও ব্যবহার করা হচ্ছে আইসোলেশন ওয়ার্ড হিসাবে। এবার সেই দলে ঢুকে পড়ল কেরলের বিখ্যাত হাউসবোটও।

তবে বর্তমানে কেরলের করোনা পরিস্থিতি অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে বলে দাবি করছে রাজ্য প্রশাসন। গত ২ দিনে সেখানে নতুন করে আক্রান্তের খবর মেলেনি। রাজ্যটিতে করোনা প্রাণ কেড়েছে ৩ জনের। আক্রান্তের সংখ্যা ৩৮৭। গত ৩০ জানুয়ারি দেশের মধ্যে কেরলেই প্রথম করোনা আক্রান্তের সন্ধান পাওয়া গিয়েছিল।  দেশে করোনা সংক্রমণের প্রথম দিকে রাজ্যটিতে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকলেও ক্রমে করোনা গ্রাফ নিম্নমুখী হতে শুরু করেছে বলে জানাচ্ছে কেরল সরকার।