শিক্ষা নিয়ে বড় বড় কথা বলছেন, অথচ দশম শ্রেণিতে টুকলি  করতে গিয়ে  ধরা পড়েছিলেন অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যন্ত্রী জগনমোহন রেড্ডি। এমনই অভিযোগ আনলেন টিডিপির সাধারণ সম্পাদক নারা লোকেশ। স্বাভাবিকভাবেই লোকেশের এই মন্তব্য ঘিরে অন্ধ্রের রাজনীতিতে শুরু হয়েছে জোর বিতর্ক।

রাজ্যের সব স্কুলকে ইংলিশ মিডিয়ামে উন্নীত করার কথা বলেই বিরোধীদের বিরাগভাজন হলেন অন্ধ্রের মুখ্য়মন্ত্রী জগনমোহন রেড্ডি। জগনের এই সিদ্ধান্তকে কেন্দ্র করে একেবারে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করলেন টিডিপির নেতা নারা লোকেশ। খোদ মুখ্য়মন্ত্রীর শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়েই প্রশ্ন তুললেন এই বিরোধী নেতা। তিনি বলেন, ওয়াইএসআরসিপি দলের তরফে বলা হয় জগনমোহন স্নাতক। তিনি বিএ অথবা বিকম ডিগ্রিধারী। আপনারা কি বলতে পারবেন কোন কলেজ থেকে এই পাঠ নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। আসলে দশম শ্রেণিতে টুকলি করতে গিয়ে ধরা পড়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। আজ আমাদের তাঁরাই জ্ঞান দিচ্ছেন।

কেন তিনি এই ধরনের আক্রমণে গেলেন তাঁরও ব্যাখা দিয়েছেন বিরোধী দলের এই নেতা। তিনি জানান, প্রথম থেকেই ইংরেজি মাধ্য়ম স্কুল করার কথা বলেছিল টিডিপি। তবে ইংরেজির পাশাপাশি অন্য মাধ্যমের ব্যবস্থাও রাখতে বলেছিলাম আমরা। যার ফলে ইংরেজি মাধ্য়মে পড়ার পাশাপাশি অন্য় মাধ্য়মেও পড়ার সুযোগ পায় ছেলে মেয়েরা। কিন্তু রাজ্য় সরকার সেই পথে হাঁটেনি।

ক্ষমতায় এসে অন্ধ্রের শিক্ষা ব্যবস্থায় বেশকিছু পরিবর্তন আনেন মুখ্য়মন্ত্রী। যার  সাম্প্রতিকতম উদাহরণ রাজ্যের সব সরকারি স্কুলে প্রথম থেকে দ্বাদশ শ্রেণি প্রর্যন্ত ইংরেজি মাধ্যেমর ব্য়বস্থা করা। যা নিয়ে রাজ্য রাজনীতিতে জোর শোরগোল পড়ে গিয়েছে। ইতিমধ্যেই মন্ত্রিসভায় বিপুল  সংখ্যাগরিষ্ঠতায় এই সিদ্ধান্ত পাশ করিয়ে নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। ২০২০-২১ অর্থবর্ষ থেকেই এই নিয়ম চালু হবে সব সরকারি স্কুলে। মূলত প্রথম থেকে ষ্ষ্ঠ শ্রেণি প্রর্যন্ত সব স্কুলে ইংরেজি মাধ্য়মেই পড়াশোনা বাধ্য়তামূলক করা হবে। স্বাভাবিকভাবেই ক্লাস সিক্স থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্ষন্ত পরবর্তীকালে সব পাঠ্য়ক্রম ইংরেজি মাধ্যেমই পড়ানো হবে। যা নিয়েই বিরোধীদের রোষের মুখে পড়েছেন অন্ধ্রের মুখ্য়মন্ত্রী।