সোমবার প্রেসিডেন্ট হিসাবে প্রথমবার ভারতে পা রেখেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। আহমেদাবাদ ও আগ্রা ঘুরে রাতে দিল্লিতে পৌঁছেছেন তিনি। রাজধানীতেই সপরিবারে রাত্রিবাস করেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। আর এর মাঝেই নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে নতুন করে উত্তপ্ত হয়েছে জাতীয় রাজধানী। রণক্ষেত্রে পরিণত হয় উত্তর-পূর্ব দিল্লির জাফরাবাদ এলাকা। যাঁর আঁচ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে অন্যত্রও। জাফরাবাদ, মৌজপুর, গোকুলপুরী, চাঁদবাগ সহ একাধিক জায়গায় সংঘর্ষে এখনও পর্যন্ত ৭ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। এদের মধ্যে রয়েছেন এক পুলিশ কনস্টেবলও। বাকিরা সাধারণ নাগরিক। দিল্লি পুলিশের তরফে জানান হয়েছে সংঘর্ষে আহতের সংখ্যা ১৩৫। হামলায় আহত হয়েছেন ৩৭ জন পুলিশকর্মীও।

 

সোমবারের সংঘর্ষের পর আজও থমথমে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা। মঙ্গলবার সকাল থেকে ফের উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে  দিল্লির মৌজপুর ও ব্রহ্মপুরী এলাকা। সেখানে দুটি দল একে অপরকে লক্ষ্য করে পাথর ছোঁড়ে। পুলিশকে লক্ষ্য করে নতুন করে পাথরবৃষ্টি শুরু হয়। মুখ ঢেকে পাথর ছুড়তে দেখা যায় কয়েকজনকে। আগুন লাগানো হয় দুটি গাড়িতেও। পরিস্থিতি সামাল দিতে এলাকায় টহল দিচ্ছে ব়্যাফ। জাফরাবাদ, মৌজপুর-বাবারপুর, গোকুলপুরি, শিব বিহার ও জোহরি এনক্লেভ স্টেশনের গেট বন্ধ করে রাখাল হয়েছে। দিল্লির আরও ১০টি জায়গায় জারি রয়েছে ১৪৪ ধারা। 

আরও পড়ুন: আজ মোদীর সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক ট্রাম্পের, দিল্লির স্কুলে যাচ্ছেন মেলানিয়া

মার্কিন প্রেসিডেন্টের মত হাইপ্রফাইল ব্যক্তিত্ব এখন রয়েছেন ভারতে। সেই কারণে রাজধানীর নেতৃত্ব যাতে দ্রুত নিয়ন্ত্রণে আনা যায় তার জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক চেষ্টার কোনও খামতি রাখছে না। পরিস্থিতি পর্যালোচনা করতে সোমবার গভীর রাতে বৈঠকে বসেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন দিল্লি পুলিশ ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের শীর্ষ আধিকারিকরা। 

 

সোমবার জাফরাবাদ থেকে মৌজপুরের মধ্যে সিএএ-র সমর্থনকারী ও বিরোধীদের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হয়। পুলিশের সামনেই চলতে থাকে পাথরবৃষ্টি, জ্বালিয়ে দেওয়া হয় পেট্রল পাম্প ও দমকলের গাড়ি, ঘর ও যানবাহনে আগুন ধরায় বিক্ষোভকারীরা। পুলিশের সামনেই বন্দুক হাতে এক যুবককে তেড়ে আসতে দেখা যায়। অভিযোগ, মোট আটবার গুলি চালিয়েছে সে। এমনকী ভাইরাল এক ভিডিয়োতে পুলিশ কর্মীকে শাসাতে দেখা যায় ওই দুষ্কৃতীকে।  রাতে ওই যুবককে আটক করে পুলিশ। ভজনপুরা ও মৌজপুরে সিএএ বিরোধী ও সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের জেরে উত্তেজনা ছড়ায়। একে অপরকে লক্ষ্য করে ইটবৃষ্টি করে দু'পক্ষই। ভজনপুরাতে পুলিশের জিপ ও একটি রিকশা জ্বালানোর অভিযোগ উঠেছে।

আরও পড়ুন: ডাক পেলেন না সনিয়া, ট্রাম্পের সম্মানে আয়োজিত নৈশভোজ বয়কট কংগ্রেসের

পরিস্থিতির আঁচ করে মঙ্গলবার পূর্ব ও উত্তর-পূর্ব দিল্লির সমস্ত স্কুল বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে দিল্লি প্রশাসন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে দিল্লির উপ-রাজ্যপাল এবং কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সাহায্য চেয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল। এদিন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে ফের দিল্লির পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠকে বসার কথা রয়েছে কেজরিওয়ালের।